যেভাবে ধরা পড়লো ধর্ষকরা

0

বনানীতে বিশ্ববিদ্যালয়ের দুই ছাত্রী ধর্ষণের প্রধান আসামি সাফাত আহমেদকে সিলেট থেকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে।

আপন জুয়েলার্সের মালিকের ছেলে সাফাতের সঙ্গে এই মামলার আরেক আসামি সাদমান সাকিফকেও গ্রেপ্তার করা হয়েছে বলে আইজিপি মো. শহীদুল হক জানিয়েছেন।

তিনি বৃহস্পতিবার রাতে বলেন, “তাদের সিলেটে গ্রেপ্তারের পর ঢাকায় আনা হচ্ছে।”

সাফাত (২৬) আপন জুয়েলার্সের মালিক দিলদার আহমেদের ছেলে। গ্রেপ্তার সাদমান (২৪) পিকাসো রেস্তোরাঁর অন্যতম মালিক ও রেগনাম গ্রুপের কর্ণধার মোহাম্মদ হোসেন জনির ছেলে।

দুই বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রকে ধর্ষণের এই মামলায় সাফাতের আরেক বন্ধু নাঈম আশরাফ (প্রকৃত নাম হাসান মো. হালিম), সাফাতের দেহরক্ষী ও গাড়িচালক।

মামলার এজাহারের বর্ণনা অনুযায়ী, গত ২৮ মার্চ বনানীর রেইনট্রি হোটেলে জন্মদিনের অনুষ্ঠানে ডেকে নিয়ে দুই তরুণীকে ধর্ষণ করেন সাফাত ও নাঈম। সাদমানসহ অন্য তিনজন ছিলেন সহযোগী।

অভিযোগকারী এক তরুণী বলেন, সাদমান তাদের বন্ধু; তাদের দুই বান্ধবীকে সেই পীড়াপীড়ি করে সাফাতের জন্মদিনের অনুষ্ঠানের কথা বলে ডেকে নিয়েছিল।

ওই দুই তরুণী বৃহস্পতিবার ঢাকার আদালতে জবানবন্দি দিয়েছেন।

ঘটনার মাসখানেক পর গত ৬ মে এক তরুণী বনানী থানায় মামলা করার পর বিষয়টি নিয়ে তোলপাড় সৃষ্টি হয়। সাফাত গ্রেপ্তার না হওয়ায় পুলিশের সমালোচনাও ওঠে।

বৃহস্পতিবার রাত সাড়ে ৮টার দিকে নগরীর পাঠানটুলা এলাকার এক প্রবাসীর বাসা থেকে সাফাত ও সাদমানকে গ্রেপ্তার করা হয়।

সিলেট মহানগর পুলিশের অতিরিক্ত উপকমিশনার জেদান আল মুসা বলেন, সিলেট মহানগর পুলিশ ও ঢাকার পুলিশের যৌথ উদ্যোগে অভিযান চালিয়ে তাদের গ্রেপ্তার করা হয়।

ঢাকা থেকে পালিয়ে সাফাতসহ চারজন সোমবার সিলেটের দক্ষিণ সুরমার সিলাম এলাকায় ঠাকুরবাড়ি রিজেন্ট পার্ক রিসোর্টে গিয়েছিলেন বলে জানান রিসোর্টটির ব্যবস্থাপক মোবারক হোসেন।

তিনি বলেন, “একটি মাইক্রোবাসে করে সাফাতসহ চারজন রুম ভাড়া নেওয়ার জন্য আসেন। কিন্তু তারা কোনো পরিচয়পত্র দেখাতে পারেনি বলে রুম দেওয়া হয়নি। তখন তারা ফিরে যান।

“তাৎক্ষণিকভাবে তাদের আমরা চিনতে পারিনি। পরে বুঝতে পেরেছি তাদের মধ্যে সাফাত রয়েছেন।”

রিসোর্ট কর্তৃপক্ষের কাছে খবর পেয়ে পুলিশও তৎপর হয় বলে জানান অতিরিক্ত এসপি সুজ্ঞান চাকমা।

তিনি বলেন, “পুলিশের কাছে খবর ছিল যে তারা সিলেট এসেছেন। তাদের খোঁজা হচ্ছিল।”

পুলিশ তাদের নিয়ে রাতেই ঢাকার উদ্দেশে রওনা হয়েছেন বলে জানান এই পুলিশ কর্মকর্তা।

Spread the love
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

এই ওয়েবসাইটের যাবতীয় লেখার বিষয়বস্তু, মতামত কিংবা মন্তব্য– লেখকের একান্তই নিজস্ব। somoyekhon.com-এর সম্পাদকীয় নীতির সঙ্গে এর মিল আছে, এমন সিদ্ধান্তে আসার কোনো যৌক্তিকতাই নেই। লেখকের মতামত, বক্তব্যের বিষয়বস্তু বা এর যথার্থতা নিয়ে somoyekhon.com আইনগত বা অন্য কোনো ধরনের কোনো প্রকার দায় বহন করে না।