তালেবান বনাম আইএস: যুদ্ধ ঘোষণা

0

আবু বকর আল-বাগদাদির সংগঠন আইএস এবার তালেবানকে শত্রু ঘোষণা করল।

এই দুই সংগঠনের লড়াইয়ে আফগানিস্তান ফের অস্থির হতে পারে বলে আশঙ্কা করা হচ্ছে।

তালেবান সংগঠনের সব লোকজনকে হত্যা করে তাদের সম্পত্তি বাজেয়াপ্ত করা উচিত। এমন ফতোয়াই জারি করল আইএস।

ইসলামের সঙ্গে প্রতারণা করছে তালেবান এবং তারা ভণ্ড মুসলি বলে জানিয়েছেন এক আইএস কম্যান্ডার।

সে কারণেই তালেবানের বিরুদ্ধে যুদ্ধ ঘোষণা করা হয়েছে বলে দাবি আবু বকর আল-বাগদাদির এই সংগঠন। ইরানের সংবাদ সংস্থা ‘তাসনিম’ এই খবর প্রকাশ করেছে।

ইরাক এবং সিরিয়ার যে বিস্তীর্ণ অঞ্চল আইএস-এর দখলে ছিল, তার প্রায় পুরোটাই হাতছাড়া হওয়ার পথে।

এ বার তাই আফগানিস্তানে জমি পেতে চাইছে তারা। আইএস এবং তালেবানের মধ্যে এই শত্রুতা নতুন নয়। গত বছর আগস্টে আফগান তালেবানের মুখপাত্র জাবিউল্লা মুজাহিদ আইএস-এর বিরুদ্ধে যুদ্ধের ডাক দিয়েছিল।

আইএস জঙ্গিদের খুন করা হবে বলে তাদের তরফে ঘোষণা করা হয়েছিল। এ বার আইএস-ও তালেবানের বিরুদ্ধে একই পদক্ষেপ করল।

আফগানিস্তানে প্রভাব বিস্তারের তাগিদেই এই দুই জঙ্গি সংগঠন পরস্পরের বিরুদ্ধে যুদ্ধ ঘোষণা করছে বলে বিশেষজ্ঞ মহলের মত।

মার্কিন হস্তক্ষেপে আফগানিস্তানে তালেবান শাসনের অবসান হয়েছে এবং গণতান্ত্রিক সরকার প্রতিষ্ঠিত হয়েছে ঠিকই। কিন্তু তালেবান সে দেশ থেকে নির্মূল হয়নি।

গ্রামীণ আফগানিস্তানের বিস্তীর্ণ এলাকায় তালেবানের প্রভাব এখনও যথেষ্ট। গত কয়েক বছরে আফগানিস্তানের কিছু কিছু এলাকা আইএস কবলিত হয়েও পড়েছে।

ফলে আফগান সরকারের মাথাব্যথা আরও বেড়েছে। এ বার দুই জঙ্গি সংগঠন পরস্পরের বিরুদ্ধে যুদ্ধের ডাক দেওয়ায় গ্রামীণ আফগানিস্তানে অস্থিরতা আরও বাড়তে পারে বলে কাবুল মনে করছে।

Spread the love
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

এই ওয়েবসাইটের যাবতীয় লেখার বিষয়বস্তু, মতামত কিংবা মন্তব্য– লেখকের একান্তই নিজস্ব। somoyekhon.com-এর সম্পাদকীয় নীতির সঙ্গে এর মিল আছে, এমন সিদ্ধান্তে আসার কোনো যৌক্তিকতাই নেই। লেখকের মতামত, বক্তব্যের বিষয়বস্তু বা এর যথার্থতা নিয়ে somoyekhon.com আইনগত বা অন্য কোনো ধরনের কোনো প্রকার দায় বহন করে না।