জজ মিয়া নাটকের আগে বিএনপির প্রথম শিকার ছিলেন শৈবাল সাহা পার্থ!

0

সময় এখন:

২১শে আগস্ট ভয়াবহ গ্রেনেড হামলা ভিন্নখাতে প্রবাহিত করতে তৎকালীন বিএনপি-জামায়াত জোট সরকার যে ষড়যন্ত্র করেছিল, তার প্রথম শিকার হয়েছিলেন শৈবাল সাহা পার্থ নামের এক নিরীহ যুবক।

ওই গ্রেনেড হামলার ঘটনার তদন্ত ভিন্ন খাতে নেওয়ার জন্য ঢাকার এলিফ্যান্ট রোডের হার্ডনেট সাইবার ক্যাফে থেকে তৎকালীন বিরোধী দলীয় নেত্রী শেখ হাসিনাকে হত্যার হুমকি দিয়ে একটি দৈনিকে ই-মেইল পাঠানোর ঘটনার নাটক সাজানো হয়। এই নাটক সাজিয়ে ২৫শে আগস্ট বোনের বাসা থেকে ঐ সাইবার ক্যাফেতে ডেকে এনে সরকারের একটি বিশেষ গোয়েন্দা সংস্থার সদস্যরা শৈবাল সাহা পার্থকে আটক করে।

৪ দিন অজ্ঞাত স্থানে আটকে রেখে অমানুষিক নির্যাতনের পর ২৯শে আগস্ট সিআইডি ইন্সপেক্টর তাকে আদালতে পাঠিয়ে পর্যায়ক্রমে ১৪ দিন রিমান্ডের মাধ্যমে মালিবাগ সিআইডি অফিসে নিয়ে স্বীকারোক্তি আদায়ের জন্য আবারও বর্বর নির্যাতন চালানো হয়।

২৪ ঘণ্টা চোখে কালো কাপড়ে বেঁধে শরীরের স্পর্শকাতর অঙ্গে বৈদ্যুতিক শক দেওয়ার পাশাপাশি লাঠিপেটাসহ সব ধরণের নির্যাতন চালানো হয়। টানা ১৮ দিন আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর হেফাজতে থাকাকালে সারাক্ষণ চলেছে অভিনব কায়দায় নির্যাতন আর সাজানো স্বীকারোক্তি আদায়ের চাপ।

পার্থর মা ছেলের মুক্তির জন্য মন্দিরে নিজের রক্ত দিয়ে পূজা দেন। পার্থ যেহেতু ভারতে লেখাপড়া করেছেন তাই তাকে ভারতীয় চর হিসেবে প্রমাণেরও চেষ্টা করেছিল বিএনপি-জামায়াত জোট সরকার।

দীর্ঘ ৭ মাস কারাভোগের পর হাইকোর্টের নির্দেশে ২০০৫ সালের ২৩শে মার্চ কারাগার থেকে মুক্তি পান তিনি। এই মামলায় ১৯ জনের মৃত্যুদণ্ড, ১৯ জনের যাবজ্জীবন এবং ১১ জনের বিভিন্ন মেয়াদে শাস্তির রায় ঘোষণার পর ন্যায়বিচার নিশ্চিত করেন বিচারক। যদিও নির্দোষ নিরপরাধ শৈবাল সাহা পার্থ কলঙ্কমুক্ত হওয়া ছাড়া কোনো ক্ষতিপূরণ পাননি।

সেই শৈবাল সাহা পার্থ এখন একটি বেসরকারি প্রতিষ্ঠানে কাজ করছেন। ২০০৯ সালে বিয়ে করে সংসারী হয়েছেন। আর বার্ধক্যজনিত নানা রোগে আক্রান্ত তার বাবা-মা দুজনই কুমিল্লায় তাদের গ্রামের বাড়িতে থাকেন। আজও শৈবাল সেই অসহনীয় যন্ত্রণার কথা ভুলতে পারেননি। শরীরের বিভিন্ন জয়েন্টে সেই নির্যাতনের ব্যথা এখনো তাকে ভোগায়।

বাংলাদেশের তথাকথিত মানবাধিকার সংস্থা, যারা নিয়মিত বিএনপির লেজুড়বৃত্তি করে বেড়ায়, তাদের কেউ খোঁজ-খবর নেননি বিনা দোষে বিএনপির রাজনৈতিক প্রতিহিংসার শিকার শৈবাল সাহা পার্থর।

Spread the love
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

এই ওয়েবসাইটের যাবতীয় লেখার বিষয়বস্তু, মতামত কিংবা মন্তব্য– লেখকের একান্তই নিজস্ব। somoyekhon.com-এর সম্পাদকীয় নীতির সঙ্গে এর মিল আছে, এমন সিদ্ধান্তে আসার কোনো যৌক্তিকতাই নেই। লেখকের মতামত, বক্তব্যের বিষয়বস্তু বা এর যথার্থতা নিয়ে somoyekhon.com আইনগত বা অন্য কোনো ধরনের কোনো প্রকার দায় বহন করে না।