সরকারের সামনে কঠিন কিছু চ্যালেঞ্জ

0

স্পেশাল করেসপন্ডেন্স:

আওয়ামী লীগ সরকারের বর্তমান মেয়াদের শেষ হতে বাকি আছে আর দুই বছরের কম। কিন্তু এর মধ্যেই এক কঠিন সময় অতিক্রম করছে আওয়ামী লীগ সরকার। দ্রব্যমূল্যের ঊর্ধ্বগতি, দেশে-বিদেশে নানামুখী ষড়যন্ত্র এবং আওয়ামী লীগের অন্তর্কলহ সরকারকে একটি অস্বস্তিকর পরিস্থিতির মধ্যে ফেলেছে।

তৃতীয় মেয়াদে আওয়ামী লীগ সরকার এখন সবচেয়ে কঠিন সময় পার করছে বলে রাজনৈতিক বিশ্লেষকরা মনে করছেন। কিন্তু তাদের ধারণা, সামনে আরো কঠিন সময় আছে। সরকারকে সামনের দিনগুলোতে একটা দুর্গম পথ পাড়ি দিতে হতে পারে।

তারা বলেছেন, সরকারের সামনে যে চ্যালেঞ্জগুলো রয়েছে তা সামনে আরও ঘনীভূত হবে এবং সরকারকে এটা মোকাবেলা করতে হবে দৃঢ়ভাবে। যেমন-

১. দ্রব্যমূল্যের ঊর্ধ্বগতি: দ্রব্যমূল্যের ঊর্ধ্বগতি সরকারের জন্য এখন সবচেয়ে বড় মাথাব্যথার কারণ হয়ে দাঁড়িয়েছে। বিশেষ করে নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্যের দাম হু হু করে প্রতিদিন বাড়ছে এবং এটির ক্ষেত্রে কোনো নিয়ন্ত্রণ নেই। যদিও সরকার ভ্যাট, শুল্ক ইত্যাদি প্রত্যাহার করেছে। কিন্তু তারপরও এর প্রভাব বাজারে পড়তে সময় লাগবে।

সমস্যা হচ্ছে, সামনে রমজান। এই সময় যদি জিনিসপত্রের দাম হু হু করে বাড়ে তাহলে এটি জন-অসন্তোষের কারণ হতে পারে বলে অনেকে মনে করছেন। বিশ্লেষকদের ধারণা, এরকম পরিস্থিতিতে লোকজনের বিরক্তি আরও বেড়ে যাবে এবং এটি যদি নিয়ন্ত্রণ করতে না পারে তাহলে সরকারের জন্য তা বড় ধরনের সমস্যার কারণ হয়ে দাঁড়াতে পারে।

২. অভ্যন্তরীণ কোন্দল: আওয়ামী লীগের অভ্যন্তরীণ কোন্দল প্রকাশ্য আকার ধারণ করেছে। বিভিন্ন জেলায় আওয়ামী লীগের অভ্যন্তরীণ কোন্দল বেড়েই চলেছে। সামনের ২ বছর এই সংকটকে আরও কঠিনভাবে মোকাবেলা করতে হবে আওয়ামী লীগকে। এই সংকট যদি মোকাবেলা না করা যায়, সংগঠনকে ঐক্যবদ্ধ করা না যায়, তাহলে সামনের দিনগুলোতে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণ করা কঠিন হয়ে পড়তে পারে।

৩. আন্তর্জাতিক চাপ: সরকারের ওপর আন্তর্জাতিক চাপ ক্রমশ বাড়ছে। বিশেষ করে রাশিয়া ইস্যুতে সরকারের নিরবতা এবং নিরপেক্ষতা আন্তর্জাতিক পরিমণ্ডলে নানারকম প্রশ্নের জন্ম দিয়েছে। এ থেকেই বাংলাদেশের উত্তরণের পথ কী হতে পারে, তা নিয়ে নানামুখী আলাপ-আলোচনা চলছে। অনেকে মনে করছেন, সামনের দিনগুলোতে বাংলাদেশের ওপর আন্তর্জাতিক চাপ আরও বাড়বে।

৪. ষড়যন্ত্র: আওয়ামী লীগের জন্য আরেকটি বড় মাথাব্যথার কারণ হচ্ছে, দেশে-বিদেশে নানামুখী ষড়যন্ত্র এবং বিশেষ করে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম এখন সরকারের জন্য বড় ধরনের সমস্যার কারণ হয়ে দাঁড়িয়েছে। এই প্ল্যাটফর্মগুলো পরিণত হয়েছে গুজব ফ্যাক্টরিতে। প্রতিদিন সরকারের বিরুদ্ধে নানারকম অনিয়ম, অপপ্রচার, মিথ্যাচার করা হচ্ছে। ফলশ্রুতিতে সরকারের জন্য বড় ধরনের চাপ তৈরি হচ্ছে।

৫. দেশীয় ষড়যন্ত্র: দেশেও সরকারের বিরুদ্ধে একটি মহল ষড়যন্ত্রে লিপ্ত রয়েছে। বিশেষ করে সুশীল সমাজের একটি অংশ সরকারের বিরুদ্ধে নানারকম মানবাধিকার লঙ্ঘন, গুম ইত্যাদি বিষয় নিয়ে ক্রমশ সোচ্চার হচ্ছে। ফলে সামনের দিনগুলোতে এটি আরো বাড়বে বলেই ধারণা করা হচ্ছে।

আর এই সব মিলিয়ে সামনের দিনগুলো গভীর সংকটের এবং একটা কঠিন সময় নির্বাচনের আগ পর্যন্ত সরকারকে পাড়ি দিতে হবে বলেই রাজনৈতিক বিশ্লেষকরা মনে করছেন।

Spread the love
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

এই ওয়েবসাইটের যাবতীয় লেখার বিষয়বস্তু, মতামত কিংবা মন্তব্য– লেখকের একান্তই নিজস্ব। somoyekhon.com-এর সম্পাদকীয় নীতির সঙ্গে এর মিল আছে, এমন সিদ্ধান্তে আসার কোনো যৌক্তিকতাই নেই। লেখকের মতামত, বক্তব্যের বিষয়বস্তু বা এর যথার্থতা নিয়ে somoyekhon.com আইনগত বা অন্য কোনো ধরনের কোনো প্রকার দায় বহন করে না।