অ-শালীন ভিডিও দেখিয়ে ৪ শিশুকে ধর্ষ’ণচেষ্টা, বৃদ্ধ আটক

0

বরগুনা প্রতিনিধি:

বরগুনায় অ-শ্লীল ভিডিও দেখিয়ে ধর্ষ’ণ চেষ্টার অভিযোগে নুর মোহাম্মদ (৬০) নামে একজনকে আটক করেছে পুলিশ।

শনিবার (৩০ অক্টোবর) বিকেল সাড়ে ৫টার দিকে বরগুনা সদর উপজেলার কেওড়াবুনিয়া ইউনিয়নের লতাবাড়িয়াভ গ্রাম থেকে তাকে আটক করা হয়।

স্থানীয় ও থানা পুলিশ সূত্রে জানা যায়, অভিযুক্ত নুর মোহাম্মদ লতাবাড়িয়া গ্রামের মাদ্রাসা পড়ুয়া ৪ শিশুকে মাদ্রাসায় আসা যাওয়ার পথে দীর্ঘদিন যাবত ধরে যৌ- হয়রানি করে আসছিলেন। তিনি নানা কৌশলে ওই শিশুদের প্রায়ই প্রলুব্ধ করতে চেষ্টা করতেন।

গত বৃহস্পতিবার সকালে মাদ্রাসায় যাওয়ার পথে শিশুদের ডেকে নিয়ে মোবাইল ফোনে অ-শ্লীল ভিডিও দেখিয়ে শিশুদের যৌ- হয়রানি করলে শিশুরা দৌড়ে বাড়ি চলে যায়। বাড়িতে গিয়ে বিষয়টি অভিভাবকদের জানানোর পর শনিবার দুপুরে তারা বরগুনার পুলিশ সুপারের কাছে অভিযোগ করেন।

অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (বরগুনা সদর সার্কেল) মেহেদী হাসান জানান, অ-শ্লীল ভিডিও দেখিয়ে চার শিশুকে যৌ- হয়রানির অভিযোগে নুর মোহাম্মদ নামে একজনকে আটক করা হয়। জিজ্ঞাসাবাদে অভিযোগের প্রাথমিক সত্যতা পাওয়া গেছে।

বরগুনা থানায় একজন অভিবাবক বাদী হয়ে নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনের ১০ ধারায় মামলা দায়ের করেছে। আজ রবিবার আদালতের মাধ্যমে অভিযুক্ত নুর মোহাম্মদকে কারাগারে পাঠানো হয়েছে।

গরু চুরির অভিযোগে দুজনকে চোখ বেঁধে মারধর

চট্টগ্রামের আনোয়ারায় গরু চুরির অভিযোগে দুজনকে চোখ বেঁধে মারধর করা হয়েছে।

উপজেলার বরুমচড়া ইউনিয়নের থানাদার টেক এলাকায় শনিবার সকালে এই ঘটনা ঘটে। মারধরের সময় ধারণ করা ভিডিও ফেসবুকে ছড়িয়ে পড়েছে।

মারধরের শিকার দুজন হলেন মো. শফিউল ও মো. ফরিদ। তারা দুজনই বরুমচড়া ইউনিয়নের বাসিন্দা।

বরুমচড়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মোহাম্মদ শাহাদত হোসেন চৌধুরী বলেন, আমি তখন একটা কাজে এলাকার বাইরে ছিলাম। পরে বিষয়টা শুনেছি। ওই দুজনকে পুলিশ উদ্ধার করে চিকিৎসার জন্য হাসপাতালে পাঠিয়েছে। এটা আসলে নিন্দনীয় কাজ।

আনোয়ারা থানার পরিদর্শক তদন্ত সৈয়দ ওমর বলেন, গরু চুরির অভিযোগে মামলা হয়েছে। ওই মামলায় তাদের গ্রেপ্তার দেখিয়ে বিচারিক হাকিম আদালতে তোলা হয়েছে।

আনোয়ারা সার্কেলের সহকারী পুলিশ সুপার হুমায়ুন কবির বলেন, চোখ বেঁধে মারধরের ঘটনা পাবলিক সেন্টিমেন্টের বিষয়। গতকাল আমি খোঁজ নিয়েছি। পাবলিক সেন্টিমেন্ট গ্রো হলে এমনটা হয়ে থাকে, এটা পুলিশ যাওয়ার আগে হয়েছে।

Spread the love
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

এই ওয়েবসাইটের যাবতীয় লেখার বিষয়বস্তু, মতামত কিংবা মন্তব্য– লেখকের একান্তই নিজস্ব। somoyekhon.com-এর সম্পাদকীয় নীতির সঙ্গে এর মিল আছে, এমন সিদ্ধান্তে আসার কোনো যৌক্তিকতাই নেই। লেখকের মতামত, বক্তব্যের বিষয়বস্তু বা এর যথার্থতা নিয়ে somoyekhon.com আইনগত বা অন্য কোনো ধরনের কোনো প্রকার দায় বহন করে না।