দোজখ ও কবর আজাবের ভয় দেখিয়ে ৫ ছাত্রী ধর্ষণ, মাদ্রাসা অধ্যক্ষ গ্রেপ্তার

0

বগুড়া প্রতিনিধি:

বগুড়ার শিবগঞ্জে সপ্তম শ্রেণিতে পড়ুয়া একজন ছাত্রীকে ধর্ষণের অভিযোগে মাদ্রাসার অধ্যক্ষ মাওলানা আবদুর রহমান মিন্টু (৩২) নামের এক মাদ্রাসাশিক্ষককে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। এছাড়াও মাদ্রাসার আরও ৪ ছাত্রীকে ধর্ষণের কথাও স্বীকার করেছেন তিনি।

গতকাল মঙ্গলবার (১ জুন) রাত ৮টার দিকে শিবগঞ্জ এলাকা থেকে তাকে গ্রেপ্তার করা হয়।

গ্রেপ্তার আবদুর রহমান উপজেলার বিহার ইউনিয়নের পার লক্ষ্মীপুর চাঁনপাড়া গ্রামের মৃত সোলাইমান আলীর ছেলে ও শিবগঞ্জ পৌর এলাকার বানাইল কলেজ পাড়া মহল্লার হযরত ফাতেমা (রা.) হাফেজিয়া মহিলা মাদ্রাসার মুহতামিম (অধ্যক্ষ)।

পুলিশ জানায়, আবাসিক মাদ্রাসাটিতে ১২-১৩ জন ছাত্রী একসঙ্গে থাকে। তাদের পাশের কক্ষেই থাকেন শিক্ষক মিন্টু। গত রোববার (৩০ মে) মেয়েরা সবাই ঘুমিয়ে পড়লে রাত প্রায় আড়াইটার দিকে শিক্ষক মিন্টু তাদের রুমে ঢুকে ওই ছাত্রীকে ঘুম থেকে ডেকে তুলে ধর্ষণ করেন।

পরদিন ওই ছাত্রী বিষয়টি তার পরিবারকে জানায়। ছাত্রী জানায়, শিক্ষক আবদুর রহমান তাকে চাপ প্রয়োগ করেন তার প্রস্তাবে রাজি হতে। কিন্তু রাজি না হলে তাকে দোজখের ভয় ভীতি দেখান। কবর আজাবের কথাও বলেন। তাতেও রাজি না হলে জোরপূর্বক তাকে ধর্ষণ করা হয়।

এ ঘটনায় মঙ্গলবার বিকেলে ওই ছাত্রীর বাবা বাদী হয়ে শিক্ষক আবদুর রহমান মিন্টুর বিরুদ্ধে নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে মামলা করেন।

শিবগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) সিরাজুল ইসলাম বলেন, মামলা দায়েরের পর ওই শিক্ষককে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে তিনি একইভাবে আরও ৪ ছাত্রীকে ধর্ষণের কথা স্বীকার করেছেন। বুধবার (২ জুন) দুপুরে তাকে আদালতের মাধ্যমে কারাগারে পাঠানো হয়েছে।

এদিকে নির্যাতনের শিকার ছাত্রীকে ডাক্তারি পরীক্ষার জন্য হাসপাতালে পাঠানো হয়েছিল। কিন্তু তার শারীরিক অসুস্থতা থাকায় আগামী ৭ জুন ডাক্তারি পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হবে। আদালতে তার জবানবন্দি গ্রহণ করা হবে। প্রয়োজনে ওই শিক্ষককে রিমান্ডে এনে ছাত্রীদের ধর্ষণের বিষয়ে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি নেয়া হবে, জানান ওসি সিরাজুল ইসলাম।

এ ঘটনায় এলাকায় চাঞ্চল্য সৃষ্টি হয়েছে। বিক্ষুব্ধ এলাকাবাসী হযরত ফাতেমা (রা.) হাফেজিয়া মহিলা মাদ্রাসাটি বন্ধ করে দেয়ার দাবি জানান। সেই সাথে ধর্ষক আবদুর রহমান মিন্টুর ফাঁসির চেয়ে থানার সামনে বিক্ষোভ করেন।

Spread the love
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

এই ওয়েবসাইটের যাবতীয় লেখার বিষয়বস্তু, মতামত কিংবা মন্তব্য– লেখকের একান্তই নিজস্ব। somoyekhon.com-এর সম্পাদকীয় নীতির সঙ্গে এর মিল আছে, এমন সিদ্ধান্তে আসার কোনো যৌক্তিকতাই নেই। লেখকের মতামত, বক্তব্যের বিষয়বস্তু বা এর যথার্থতা নিয়ে somoyekhon.com আইনগত বা অন্য কোনো ধরনের কোনো প্রকার দায় বহন করে না।