দারুচিনির দারুণ সব গুণাগুণ

0

লাইফ স্টাইল ডেস্ক:

শরীরের অতিরিক্ত ওজন, কোলেস্টেরল বাড়ছে। সাথে যুক্ত হচ্ছে হার্টের রোগসহ আরও জটিলতা। আর এসব রোগের ঘরোয়া টোটকা হলো দারুচিনি। ইনসুলিন, কোলেস্টেরলের মাত্রা ঠিক রাখতে সকালে মধু দিয়ে দারুচিনি বা দারুচিনি চায়ের জবাব নেই।

স্বাভাবিক পরিবেশে এই গাছের উচ্চতা ১০ থেকে ১৫ মিটার পর্যন্ত হয়ে থাকে। আদি নিবাস শ্রীলঙ্কায়। ইন্দোনেশিয়া, ভারত, বাংলাদেশ, চীনেও প্রচুর উত্পাদন। গাছের বাকল মশলা হিসাবে বৃবহৃত। এর ছালে থাকে সিনামাল ডিহাইড। অপূর্ব গন্ধের জন্য দায়ী। পাতায় আছে ইউজিনল। দারুচিনিতে আছে সামান্য প্রোটিন। কিন্তু এতে রয়েছে প্রচুর মিনারেল ও ভিটামিন।

আসুন জেনে নিন, সুস্থ শরীর পেতে এই দারুচিনির অবদান সম্পর্কে-

১। ব্লাড সুগার নিয়ন্ত্রণ- টাইপ-টু ডায়াবেটিস রোগীদের জন্য দারুচিনি খুব উপকারি। কারণ এটি রক্তে সুগারের মাত্রা নিয়ন্ত্রণ করে।

২। ওজন নিয়ন্ত্রণ- দেহের রক্ত তরল থাকতে সাহায্য করে দারুচিনি। রক্ত সঞ্চালন বৃদ্ধি করে। মাত্র ২ ঘণ্টার মধ্যে রক্তে কোলেস্টেরলের পরিমাণ প্রায় ১০ শতাংশ কমিয়ে দিতে পারে দারুচিনি। দেহের ওজন নিয়ন্ত্রণে রাখে।

৩। বাতের ব্যথা কমায়- দারুচিনিতে রয়েছে প্রচুর ম্যাঙ্গানিজ। মজবুত হাড়, রক্ত ও দেহের অন্যান্য টিস্যু গঠনে সাহায্য করে। বাতের ব্যথায় দারুচিনির তেল বা চা উপকারি। ব্যথা কমাতে দারচিনি ও মধু দারুণ কাজ করে। হাড়ের জোড়ায় ব্যথা হলে হালকা গরম জলে ১ চামচ মধু ও দারুচিনি গুঁড়ো মিশিয়ে ব্যথার জায়গায় আস্তে আস্তে মালিশ করলে ব্যথা কমবে।

৪। ক্ষ’ত সারায়- পৃথিবীর সেরা ৭ অ্যান্টি অক্সিডেন্ট সমৃদ্ধ খাবারের তালিকায় রয়েছে দারুচিনি। শরীরের বিভিন্ন অংশের ক্ষ’ত সারিয়ে তুলতে এই মশলা কার্যকর।

৫। ক্যান্সার প্রতিরোধক- গ্যাস্ট্রিক আলসার, মেলানোমা বা ত্বকের মেলানিন কোষ মিলে যে টিউমার হয়, তার সম্ভাবনা কমায় দারুচিনি। লিউকোমিয়া ও লিমফোমা ক্যান্সারের কোষগুলির প্র’ভাব কমায়।

৬। খাদ্য-বিষক্রিয়া রোধ- খাদ্যে বিষক্রিয়া হলে দারুচিনি খেলে উপকার পাওয়া যায়। পাকস্থলীর ব্যাক্টেরিয়া ও ফাঙ্গাস দম’ন করে। অ্যান্টি ব্যাক্টেরিয়াল হিসাবে কাজ করে। দারুচিনি ও মধু পেট ব্যথা কমায়, অ্যাসিডিটি দূর করে। রাতে শোয়ার আগে দারুচিনির সঙ্গে হরিতকির গুঁড়ো মিশিয়ে খেলে পেট পরিষ্কার হয়।

Spread the love
  • 81
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
    81
    Shares

এই ওয়েবসাইটের যাবতীয় লেখার বিষয়বস্তু, মতামত কিংবা মন্তব্য– লেখকের একান্তই নিজস্ব। somoyekhon.com-এর সম্পাদকীয় নীতির সঙ্গে এর মিল আছে, এমন সিদ্ধান্তে আসার কোনো যৌক্তিকতাই নেই। লেখকের মতামত, বক্তব্যের বিষয়বস্তু বা এর যথার্থতা নিয়ে somoyekhon.com আইনগত বা অন্য কোনো ধরনের কোনো প্রকার দায় বহন করে না।