এবার রংপুরে খাটের ভেতর সন্ধান মিলল টিসিবির তেলের খনির!

0

রংপুর প্রতিনিধি:

বিশ্বজুড়ে চলছে করোনা ভাইরাসের প্র’কোপ। অন্যান্য দেশের মত বাংলাদেশেও ৫১টি জেলা লকডাউন করা হয়েছে। এমন সং’কটময় মুহূর্তে সারাদেশে হাজার হাজার বস্তা ত্রাণের চাল লোপাটের সংবাদে যখন জনগণ হ’তাশ, ঠিক তখনই এলো আরেকটি বিস্ময়কর খবর।

রংপুরে এক ব্যবসায়ীর বাড়ির বক্সখাটের ভেতরে অ’বৈধভাবে থরে থরে মজুদ করে রাখা সরকারি বিপণন সংস্থা ট্রেডিং কর্পোরেশন অব বাংলাদেশের (টিসিবি) ন্যায্যমূল্যের ১ হাজার ২৩৮ লিটার ভোজ্যতেল উদ্ধার করেছে মহানগর গোয়েন্দা পুলিশ। যার বর্তমান বাজার মূল্য ১ লাখ টাকার কিছু বেশি।

আজ বুধবার রাত পৌনে ১১ টার দিকে নগরীর মধ্য পার্বতীপুর এলাকার ব্যবসায়ী হানিফ মিয়ার (৫৮) বাড়ি থেকে গোপন সূত্রে প্রাপ্ত খবরের ভিত্তিতে অভিযান চালায় আইন শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী। অভিযানে এসব টিসিবি পণ্য উদ্ধার করা হয় বলে জানান রংপুর মেট্রোপলিটন পুলিশের অতিরিক্ত উপ-পুলিশ কমিশনার (ডিবি এন্ড মিডিয়া) উত্তম প্রসাদ পাঠক।

তিনি উপস্থিত গণমাধ্যম কর্মীদের জানান, গোপন সংবাদের ভিত্তিতে জানতে পারি নগরীর ১৭নং ওয়ার্ডের মধ্য পার্বতীপুর ঈদগামাঠ সংলগ্ন এলাকার একটি বাসায় অ’বৈধভাবে প্রচুর পরিমাণে টিসিবির পণ্য মজুদ রয়েছে। এ খবর পেয়ে আমরা অভিযানের প্রস্তুতি নিই। ঘটনাস্থলে পৌঁছে অভিযান চালিয়ে ওই বাড়িতে একটি বক্সখাটের ভেতরে অভিনব কায়দায় লুকিয়ে রাখা বিপুল পরিমাণে টিসিবির তেল উদ্ধার করে ডিবি পুলিশ।

উদ্ধার করা পণ্যগুলোর হচ্ছে – ২ লিটার তেলের ২৫৯টি এবং ৫ লিটারের ১৪৪টি বোতল।

ওই বাড়ির মালিক হানিফ মিয়া কালোবাজারে বিক্রির উদ্দেশ্যে এসব পণ্য অ’বৈধভাবে মজুদ করেছিলেন বলে জানান অতিরিক্ত উপ-পুলিশ কমিশনার উত্তম প্রসাদ পাঠক। তিনি আরও জানান, এ ঘটনায় হানিফ মিয়া ও তাকে মালামাল সরবরাহকারী লাল মিয়াকে (৫২) আটক করা হয়েছে।

মহানগর গোয়েন্দা পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) ফিরোজ ওয়াহিদ জানান, সরকারি পণ্য কালোবাজারে বিক্রির সঙ্গে আরও কেউ জড়িত রয়েছে কি না তা অনুসন্ধানে নেমেছে পুলিশ।

Spread the love
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

এই ওয়েবসাইটের যাবতীয় লেখার বিষয়বস্তু, মতামত কিংবা মন্তব্য– লেখকের একান্তই নিজস্ব। somoyekhon.com-এর সম্পাদকীয় নীতির সঙ্গে এর মিল আছে, এমন সিদ্ধান্তে আসার কোনো যৌক্তিকতাই নেই। লেখকের মতামত, বক্তব্যের বিষয়বস্তু বা এর যথার্থতা নিয়ে somoyekhon.com আইনগত বা অন্য কোনো ধরনের কোনো প্রকার দায় বহন করে না।