ক্যালিফোর্নিয়ায় লকডাউনের মধ্যেই গো’লাগুলি, আহত ৪

0

আন্তর্জাতিক ডেস্ক:

যুক্তরাষ্ট্রের ক্যালিফোর্নিয়ায় করোনা ভাইরাসজনিত লকডাউন চলার মধ্যেই একটি আবাসিক ভবনে সশ’স্ত্র হাম’লায় ৬ জন আহত হয়েছে।

শুক্রবার (১০ এপ্রিল) রাতে বেকার্সফিল্ডের একটি অ্যাপার্টমেন্ট কমপ্লেক্সে পার্টি চলার সময় এ হাম’লা হয়। স্থানীয় শেরিফের কার্যালয়কে উদ্ধৃত করে ব্রিটিশ সংবাদমাধ্যম বিবিসি এ তথ্য জানিয়েছে।

করোনার কারণে গত মাস থেকে ক্যালিফোর্নিয়ায় ভ্রমণে কড়াকড়ি জারি রয়েছে। গত ১১ এপ্রিল পর্যন্ত সেখানে করোনায় আক্রা’ন্তের সংখ্যা ২১ হাজার ছাড়িয়ে গেছে। মৃ’ত্যু হয়েছে সাড়ে ৬শ’রও বেশি মানুষের।

ক্যালিফোর্নিয়ার গভর্নর গাভিন নিউসোম জনিয়ে দিয়েছেন শুধু নিত্য প্রয়োজনীয় দ্রব্য ও ও’ষুধ সামগ্রী কিনতে, পোষা কুকুরকে হাঁটাতে কিংবা ব্যায়াম করতে বের হতে পারবে বাসিন্দারা। অত্যাবশ্যকীয় ব্যবসায়িক কার্যক্রম বন্ধ রাখতে বাধ্য করা হয়েছে। শুধু মুদি দোকান, ফার্মেসি ও পেট্রোল স্টেশনগুলো খোলা আছে।

এর মধ্যেই শুক্রবার (১০ এপ্রিল) রাতে বেকার্সফিল্ডের একটি অ্যাপার্টমেন্ট কমপ্লেক্সে পার্টি চলছিলো। হঠাৎই সেখানে গু’লি চালায় দুর্বৃ’ত্তরা।

স্থানীয় শেরিফ জানিয়েছে, ঘটনার পর পরই ৪ ব্যক্তিকে গাড়িতে করে পালিয়ে যেতে দেখা গেছে। ধারণা করা হচ্ছে তারাই হাম’লাকারী। তবে এখন পর্যন্ত এ ঘটনায় কাউকে গ্রেপ্তার করা যায়নি। ভিক্টিমদের কারো অবস্থা গুরুতর নয়। তাদের হাসপাতালে চিকিৎসা দেওয়া হচ্ছে।

যুক্তরাষ্ট্রকে ৬ লাখ করোনা টেস্টিং কিট দেবে দক্ষিণ কোরিয়া

করোনা ভাইরাস পরীক্ষায় যুক্তরাষ্ট্রকে ৬ লাখ কিট দেবে দক্ষিণ কোরিয়া। ১৪ এপ্রিল মঙ্গলবার এর প্রথম চালান পাঠানোর কথা রয়েছে। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক দক্ষিণ কোরিয়ার একজন কর্মকর্তার বরাত দিয়ে এক প্রতিবেদনে এ খবর জানিয়েছে সংবাদমাধ্যম রয়টার্স।

প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের অনুরোধে এসব কিট পাঠানো হচ্ছে। গত ২৫ মার্চ ফোনে দক্ষিণ কোরিয়ার প্রেসিডেন্ট মুন জ ইন-এর সঙ্গে কথা বলেন ট্রাম্প। এ সময় তিনি যুক্তরাষ্ট্রে করোনার টেস্টিং কিট পাঠানোর অনুরোধ জানান।

জনস হপকিন্স বিশ্ববিদ্যালয়ের তথ্য অনুযায়ী, যুক্তরাষ্ট্রে এখন পর্যন্ত এ ভাইরাসে আক্রা’ন্ত হয়েছে ৫ লাখ ৪৭ হাজার ৫৯০ জন। এর মধ্যে ২২ হাজার ১০৯ জনের মৃ’ত্যু হয়েছে। দেশটিতে এ ভাইরাসে সবচেয়ে বেশি মানুষের মৃ’ত্যু হয়েছে নিউ ইয়র্কে। সেখানে ইতোমধ্যেই এ সংখ্যা ৯ হাজার ছাড়িয়েছে।

হোয়াইট হাউসের করোনা টাস্কফোর্সের কর্মকর্তা ডা. ডেবোরা ব্রিক্স সম্প্রতি আশ’ঙ্কা জানিয়ে বলেছেন, প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নেওয়া হলেও ১ লাখ মৃ’ত্যু কিছুতেই এড়াতে পারবে না যুক্তরাষ্ট্র। আর সোশ্যাল ডিসট্যান্সিং মেনে চলা না হলে এ সংখ্যা ২২ লাখ পর্যন্ত পৌঁছাতে পারে।

Spread the love
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

এই ওয়েবসাইটের যাবতীয় লেখার বিষয়বস্তু, মতামত কিংবা মন্তব্য– লেখকের একান্তই নিজস্ব। somoyekhon.com-এর সম্পাদকীয় নীতির সঙ্গে এর মিল আছে, এমন সিদ্ধান্তে আসার কোনো যৌক্তিকতাই নেই। লেখকের মতামত, বক্তব্যের বিষয়বস্তু বা এর যথার্থতা নিয়ে somoyekhon.com আইনগত বা অন্য কোনো ধরনের কোনো প্রকার দায় বহন করে না।