ভারতে করোনায় মৃ’ত মুসলিম বৃদ্ধকে কবরস্থানে দাফনে বাধা, দাহ করলেন স্বজনরা

0

আন্তর্জাতিক ডেস্ক:

ভারতেও করোনা দ্রুত ছড়িয়ে পড়ছে। এই ভাইরাসে আক্রা’ন্ত হয়েছেন দেশটির ৩ হাজার ৮২ জন মানুষ। আর মা’রা গেছেন ৮৬ জন। মৃ’তদের মধ্যে মুসলিমও রয়েছেন বেশ কিছু। তাদের ডেডবডি কবরস্থানে কবর দেওয়াতে বাধা দেওয়া হচ্ছে বলে স্থানীয় সংবাদমাধ্যম সূত্রে জানা গেছে।

ভারতের রাজধানী মুম্বাইয়ে করোনা আক্রা’ন্ত হয়ে মৃ’ত্যুর পর কবরস্থানে দাফন করতে নিয়ে যাওয়ায় বাধা দেওয়া হয়েছে। পরে ওই মুসলিম ব্যক্তিকে স্বজনরা দাহ করলেন শ্মশানে। পরিবারের সম্মতি নিয়ে এবং স্বজনদের উপস্থিতিতে করোনা ভাইরাসে আক্রা’ন্ত হয়ে মৃ’ত্যুবরণ করা ওই মুসলিম ব্যক্তিকে মুম্বাইয়ে হিন্দুদের একটি শ্মশানে দাহ করার মাধ্যমে সৎকার করা হয়। এ সময় পরিস্থিতি পর্যবেক্ষণে প্রশাসনের কর্তাব্যক্তিরা উপস্থিত ছিলেন।

দেশটির স্থানীয় সংবাদমাধ্যম সূত্রে জানা যায়, গত কয়েকদিনে দেশের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে একই অভিযোগ আসছে। করোনা ভাইরাসে আক্রা’ন্ত হয়ে মৃ’ত্যুর পর শেষকৃত্যে বাধা দেওয়া হচ্ছে। সে কবরস্থানই হোক বা শ্মশান। করোনায় মৃ’ত কাউকে শেষকৃত্যের জন্য নিয়ে যাওয়া হলেই বাধা দিচ্ছেন স্থানীয় বাসিন্দারা। সংক্র’মণ ছড়িয়ে পড়ার আত’ঙ্কেই মৃ’তদেহের শেষকৃত্যে বাধা দেওয়া হচ্ছে। আর এবার মুম্বাইয়ের মৃ’ত মুসলিম ব্যক্তির ক্ষেত্রেও একই ঘটনার পুনরাবৃত্তি।

মুম্বাইয়ে মৃ’ত ওই মুসলিম ব্যক্তিকে কবর দিতে নিয়ে যাওয়া হয় নির্দিষ্ট কবরস্থানে। কিন্তু ওই ব্যক্তিকে কবর দিলে এলাকায় করোনা ভাইরাস ছড়াতে পারে, এই আশ’ঙ্কায় মুম্বাইয়ের মালাডের ওই কবরস্থানে মৃ’ত মুসলিম ব্যক্তির কবরে বাধা দেওয়ার অভিযোগ উঠেছে। পরে স্থানীয় কয়েকজনের চেষ্টায় করোনায় মৃ’ত ওই বুদ্ধের ডেডবডি হিন্দুদের শ্মশানে দাহ করে সৎকার করা হয়। মৃ’তের পরিবারের মত নিয়েই মৃ’তদেহ পোড়ানোর ব্যবস্থা করে প্রশাসন।

এর আগে কলকাতাতেও একই ঘটনা ঘটেছিল। করোনা আক্রা’ন্তদের মৃ’ত্যুর পর তার শেষকৃত্যে বাধা দেওয়া হয়েছে। রাজ্যে করোনা আক্রা’ন্ত হয়ে প্রথম মৃ’ত্যু হয় দমদমের এক ব্যক্তির। তাকে নিমতলা শ্মশানে দাহ করতে বাধা দেওয়া হয়।

Spread the love
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

এই ওয়েবসাইটের যাবতীয় লেখার বিষয়বস্তু, মতামত কিংবা মন্তব্য– লেখকের একান্তই নিজস্ব। somoyekhon.com-এর সম্পাদকীয় নীতির সঙ্গে এর মিল আছে, এমন সিদ্ধান্তে আসার কোনো যৌক্তিকতাই নেই। লেখকের মতামত, বক্তব্যের বিষয়বস্তু বা এর যথার্থতা নিয়ে somoyekhon.com আইনগত বা অন্য কোনো ধরনের কোনো প্রকার দায় বহন করে না।