করোনাকে ‘আল্লাহর গজব’ বলা প্রখ্যাত আলেম মোদার্‌রেসি নিজেই আক্রা’ন্ত!

0

আন্তর্জাতিক ডেস্ক:

চীনের উহান শহর থেকে বিশ্বব্যাপী ছড়িয়ে পড়া করোনা ভাইরাসকে আল্লাহর গজব বলে অভিহিত করেছিলেন ইরাকের প্রখ্যাত ইসলামি পণ্ডিত হাদি আল মোদার্‌রেসি। ইসলামের শ’ত্রুদের ধ্বং’স করতে আল্লাহ এই গজব নাজিল করেছেন। কাফেরদের বিনা’শ করতে আল্লাহ এই গজব পাঠিয়েছেন বলে উল্লেখ করেছিলেন তিনি।

ফেব্রুয়ারিতে মেমরি টিভিতে দেয়া এক সাক্ষাৎকারে মুসলিমদের ওপর অত্যা’চারের কারনে চীনে এই গজব নাজিল হয়েছে উল্লেখ করে তিনি বলেন, লাখ লাখ মুসলমানের ওপর চীনা সরকার যে অত্যা’চার ও নিপী’ড়ন চালাচ্ছে, তাতে আল্লাহ শা’স্তিস্বরূপ করোনা ভাইরাসকে পাঠিয়েছেন।

সাক্ষাৎকারে তিনি আরও বলেন, যেসব প্রাণি ও পোকামাকড় খাওয়া হারাম, চীনারা আল্লাহর সেই নির্দেশ মানে না বলে আসমানি গজব নাজিল হয়েছে তাদের ওপর।

তার এই সাক্ষাৎকার প্রকাশের পর ইসলামি বিশ্ব তাকে সাধুবাদ জানিয়েছিল, শক্তিশালী চীন সরকারের বিরু’দ্ধে কথা বলার জন্য।

ইংরেজিতে প্রকাশিত আল-আরবি’র বরাতে জানা গেছে, হাদি আল মোদার্‌রেসি নিজেই করোনা ভাইরাসে আক্রা’ন্ত হয়ে বর্তমানে চিকিৎসাধীন আছেন। হাদি আল মোদার্‌রেসি নিজেও টুইটে জানিয়েছেন তার করোনা আক্রা’ন্ত হওয়ার সংবাদটি।

এদিকে আন্তর্জাতিক সংবাদমাধ্যমগুলোতে এ সংবাদ প্রকাশের পর পশ্চিমা বিশ্ব হাদি আল মোদার্‌রেসি সম্পর্কে বলছে- আল্লাহ হয়তো তার ঔদ্ধ’ত্যপূর্ণ মন্তব্য পছন্দ করেননি, তাই তাকেও সাজা দিয়েছেন করোনা ভাইরাসের মাধ্যমে।

টুইটে প্রকাশিত একটি ছবিতে হাদি আল মোদার্‌রেসিকে দেখা গেছে সার্জিক্যাল মাস্ক পরিহিত অবস্থায়। তিনি প্রার্থনা করেছেন, হে আল্লাহ, হযরত মুহাম্মদ (স.) এবং তাঁর পরিবারের সদস্যদেরকে আপনি সুমহান মর্যাদা দিন। আমার এই অসুস্থতা ও সংক’টময় পরিস্থিতি নিশ্চয় তারা জানেন, আমার সমস্ত রোগ ও ক’ষ্ট দূর করে দিন। আমাকে এসব বালা-মুছিবত থেকে রক্ষা করুন। এই রোগ থেকে আমাকে সুস্থ করে দিন। এক মুমিন বান্দা হিসেবে এই আমার প্রার্থনা।

প্রসঙ্গত, উহান থেকে ছড়িয়ে পড়া করোনা ভাইরাসটি কোনো গজব বা অদৃষ্টের শা’স্তি নয়। এটি অন্য ৫/১০টা ভাইরাসের মত আরেকটি ভাইরাস। প্রকৃতি থেকে সৃষ্ট এই ভাইরাস থেকে মুক্ত থাকতে পরিচ্ছন্নতা ও স্বাস্থ্য সুরক্ষার নিয়ম মেনে চলতে হবে। জীবাণুনা’শক ব্যবহার এবং সতর্ক থাকলে এই ভাইরাস থেকে মুক্ত থাকা যায়।

গত বছরের ডিসেম্বরের শেষদিকে চীনের হুবেই প্রদেশের উহান শহরে করোনা ভাইরাসের বিস্তার শুরু হয়। গত জানুয়ারির শেষদিকে তা ভ’য়াবহ রূপ নিতে শুরু করে। এ পর্যন্ত বিশ্বের ১৯৫টির বেশি দেশে কোভিড-১৯ এ আক্রা’ন্তের সংখ্যা প্রায় ৫ লাখ ছাড়িয়েছে। তার মধ্যে মৃ’ত্যু হয়েছে ২২ হাজারেরও বেশি মানুষের। ইতিমধ্যে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা (ডব্লিউএইচও) কোভিড-১৯ এর বিস্তারকে বৈশ্বিক ম’হামারী হিসেবে ঘোষণা করেছে।

করোনা ভাইরাস ছড়িয়ে পড়া ঠেকাতে সংক্র’মিত দেশগুলোর ওপর ভ্রমণ নিষে’ধাজ্ঞা দেওয়া হচ্ছে, বাতিল করা হচ্ছে ভিসাও। প্রতিটি দেশই নিজের সীমান্ত সুরক্ষায় জোর দিচ্ছে। বিশেষজ্ঞরা বলছেন, এই বিচ্ছি’ন্নতা আগামী জুন মাস পর্যন্ত দীর্ঘায়িত হতে পারে।

Spread the love
  • 62.1K
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
    62.1K
    Shares

এই ওয়েবসাইটের যাবতীয় লেখার বিষয়বস্তু, মতামত কিংবা মন্তব্য– লেখকের একান্তই নিজস্ব। somoyekhon.com-এর সম্পাদকীয় নীতির সঙ্গে এর মিল আছে, এমন সিদ্ধান্তে আসার কোনো যৌক্তিকতাই নেই। লেখকের মতামত, বক্তব্যের বিষয়বস্তু বা এর যথার্থতা নিয়ে somoyekhon.com আইনগত বা অন্য কোনো ধরনের কোনো প্রকার দায় বহন করে না।