স্নানের ভিডিও প্রকাশের হুম’কিতে ছাত্রী ধ’র্ষণের অভিযোগ বিজেপি নেতার নামে

0

আন্তর্জাতিক ডেস্ক:

কয়েকদিন আগে বিজেপি নেতা স্বামী চিন্ময়ানন্দের বিরু’দ্ধে ১ বছর ধরে লাগাতার ধ’র্ষণ করার অভিযোগ জানিয়েছিল ভারতের উত্তর প্রদেশের শাহাজানপুরের আইনের এক ছাত্রী। শনিবার (১৪ সেপ্টেম্বর) আরও একটি চাঞ্চল্যকর তথ্য প্রকাশ্যে আনল ওই ছাত্রী।

ওই ছাত্রী জানান, স্নানের সময় তার ভিডিও রেকর্ড করেন সাবেক সাংসদ এবং পরে তা দেখিয়ে ব্ল্যাকমেল করতো। স্নানের ভিডিও প্রকাশ করে দেওয়ার হুম’কি দিয়ে তাকে একাধিকবার ধ’র্ষণ করে। শুধু তাই নয় এমনকি ধ’র্ষণের ভিডিও রেকর্ড করেন অভিযুক্ত।

নি’র্যাতিতার বাবা সম্প্রতি ৪৩টি ভিডিও ক্লিপ বিশেষ তদন্তকারী টিম সিটের কাছে জমা দিয়েছে। এছাড়াও তথ্য প্রমাণ লোপাট করার অভিযোগও জানিয়েছেন অভিযুক্ত সাংসদের বিরু’দ্ধে।

তিনি আরও জানিয়েছেন, চিন্ময়ানন্দ তার মেয়েকে ব্ল্যাকমেল করে একাধিকবার ধ’র্ষণ করে। এরপর তার মেয়ে ক্যামেরা লুকিয়ে রেখে সমস্ত ঘটনাটি রেকর্ড করেছে।

৩ ধ’র্ষকের কবল থেকে বাঁচতে বিবস্ত্র অবস্থাতেই দৌড়

এক কিশোরীকে অ’পহরণের পর ধ’র্ষণ করেছিল ৩ ব্যক্তি। তুলে নিয়ে বিবস্ত্র করে মারধ’রও করছিল। সেই কিশোরীকে উদ্ধারের জন্য এক দোকানদার এগিয়ে গেলে সেখান থেকে পালিয়ে যায় ধ’র্ষকরা। সেই সুযোগে প্রাণ বাঁচাতে নগ্ন অবস্থাতেই ছুটতে শুরু করে কিশোরী। গত সোমবার সকালে ভারতের রাজস্থানে ঘটেছে এই ঘটনা।

এনডিটিভি বলছে, ৩ অভিযুক্তকেই গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। রাজস্থানের ভিলওয়ারার বাসিন্দা ওই কিশোরী তার বন্ধু ও ফুফাতো বোনের সঙ্গে মেলা থেকে ফেরার পথে এক মন্দিরের সামনে ৩ ব্যক্তি তাদের পথ আটকায়।

কিশোরীর বোন পালাতে পারলেও মেয়েটিকে টেনে এক নির্জন স্থানে নিয়ে যায় অভিযুক্তরা। তারপর সেখানেই তাকে ধ’র্ষণ করে। তার বোন কাছের এক বাজারে এসে বোনের পরিস্থিতির কথা জানিয়ে সাহায্য প্রার্থনা করে এক দোকানদারের কাছে।

বোনের কাছে ঘটনা শোনার পর ওই দোকানদার ঘটনাস্থলে পৌঁছে দেখতে পান মেয়েটিকে হেন’স্তা করছে অভিযুক্ত ধ’র্ষকরা। দোকানদারকে দেখার পরই ওই ৩ অভিযুক্ত পালিয়ে যায়। আর সে সুযোগে আত’ঙ্কিত মেয়েটি ন’গ্ন অবস্থাতেই সেখান থেকে দৌড় শুরু করে।

পুলিশকে ওই দোকানদার জানিয়েছেন, আহত কিশোরী ন’গ্ন বস্থায় দৌড়াতে শুরু করে। আত’ঙ্কে তখন তার কোনও হুঁশ ছিল না। সে ওই অবস্থায় প্রায় অর্ধেক কিলোমিটার পথ দৌড়ে যায়। এরপর তাকে থামিয়ে লজ্জা নিবারণের জন্য কিছু জামা কাপড় তুলে দেন তিনি।

স্থানীয় পুলিশের এক ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা জানিয়েছেন, মেয়েটি তার বন্ধু ও বোনের সঙ্গে মন্দিরের কাছে পৌঁছালে ৩ সন্দেহভাজন ব্যক্তি তাদের ধাওয়া করে। তারা সেখানে বসে মদ্যপান করছিল। বাকি ২ জন পালাতে পারলেও কিশোরী পারেনি। এরপর তাকে নির্জন স্থানে নিয়ে ধ’র্ষণ করা হয়।

কিশোরীকে ধ’র্ষণের অপরাধে মামলা দায়ের হয়েছে। প্রথম শ্রেণির আদালতে মামলাটি বিচার হবে। নামকরা এক আইন কর্মকর্তা মামলাটির তত্ত্বাবধান করবেন। দোকানদার, নি’র্যাতিতা কিশোরী ও তার বন্ধুদের বিবৃতি গ্রহণ করেছে পুলিশ।

Spread the love
  • 9
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
    9
    Shares

এই ওয়েবসাইটের যাবতীয় লেখার বিষয়বস্তু, মতামত কিংবা মন্তব্য– লেখকের একান্তই নিজস্ব। somoyekhon.com-এর সম্পাদকীয় নীতির সঙ্গে এর মিল আছে, এমন সিদ্ধান্তে আসার কোনো যৌক্তিকতাই নেই। লেখকের মতামত, বক্তব্যের বিষয়বস্তু বা এর যথার্থতা নিয়ে somoyekhon.com আইনগত বা অন্য কোনো ধরনের কোনো প্রকার দায় বহন করে না।