রোহিঙ্গা ক্যাম্পে ২ বছরে জন্মেছে ১ লাখ শিশু, সংখ্যায় বাড়ছে দ্রুত

0

কক্সবাজার প্রতিনিধি:

দেশের আয়তনের তুলনায় জনসংখ্যার যে বিপুল চাপ, তার মধ্যে এসে পড়েছে নতুন আরও অনেক রোহিঙ্গা শরণার্থী। যাদের সিংহভাগই নারী। অশিক্ষিত রোহিঙ্গা মুসলিমরা তাদের ধর্ম বিশ্বাসের কারনেই জন্ম নিয়ন্ত্রণে আগ্রহী নয়। ফলে এই শরণার্থী অবস্থায় ভাসমান জীবনেও থেমে নেই তাদের অরক্ষিত যৌ-ন স-ঙ্গম। ফলে জন্ম নিচ্ছে হাজার হাজার শিশু।

যার পুরো চাপটাই এসে পড়ছে আশ্রয়দাতা দেশ বাংলাদেশের ওপর। বন জঙ্গল উজাড় করে যেমন তারা হাজার কোটি টাকার সম্পদ বিনষ্ট করছে, তেমনি গণহারে শিশু জন্ম দিয়ে জনসংখ্যা বিস্ফোরণের এক মারাত্মক ঝুঁ-কিতে ফেলছে বাংলাদেশকে। গোদের ওপর বিষফোঁড়ার মতো যুক্ত হচ্ছে মারাত্মক সংক্রামক সব রোগ!

২০১৭ সালের ২৪ আগস্ট থেকে বিপুল সংখ্যক রোহিঙ্গা বাংলাদেশে আশ্রয় নেয়। বর্তমানে নতুন পুরাতন মিলিয়ে কক্সবাজারে প্রায় ১২ লাখ রোহিঙ্গা শরণার্থী বসবাস করছে। আর এর সঙ্গে যোগ হয়েছে গত ২ বছরে জন্ম নেওয়া প্রায় ১ লাখ শিশু।

জাতিসংঘের শরণার্থী বিষয়ক সংস্থা ইউএনএইচসিআর এর জনসংখ্যা বিষয়ক রিপোর্টে এ তথ্য উঠে এসেছে।

বাংলাদেশ সরকারের সহযোগিতায় বিভিন্ন দেশি-বিদেশি সংস্থা রোহিঙ্গাদের খাবারের ব্যবস্থা করছে। রোহিঙ্গাদের মধ্যে পুরুষের চেয়ে নারীর সংখ্যা বেশি। অনেকে আবার এখানে এসে ক্যাম্পে বিয়ে করেছেন। এসব রোহিঙ্গা নারীদের মধ্যে জন্মনিয়ন্ত্রণ পদ্ধতি গ্রহণের আগ্রহ কম বলে গণমাধ্যমকে জানিয়েছেন পরিবার পরিকল্পনা অধিদফতরের কক্সবাজারের সহকারী পরিচালক ডাক্তার পিন্টু কান্তি ভট্টাচার্য্য।

তিনি বলেন, সরকারি বেসরকারি ১২০টি স্বাস্থ্য কেন্দ্র থেকে এসব রোহিঙ্গা নারীদের জন্মনিয়ন্ত্রণের বিষয়ে সচেতন করা হচ্ছে।

ক্যাম্পে বসবাসকারী রোহিঙ্গাদের সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, তাদের বেশিরভাগ পরিবারের সদস্য সংখ্যা ১০ থেকে ১৫ জনের মধ্যে।

ইউএনএইচসিআর এর জনসংখ্যা বিষয়ক রিপোর্টের উদ্ধৃতি দিয়ে শরণার্থী ত্রাণ ও প্রত্যাবাসন কমিশন কার্যালয়ের অতিরিক্ত কমিশনার শামসুদ্দোজা নয়ন গণমাধ্যমকে জানান, গত ২ বছরে ৩২টি রোহিঙ্গা ক্যাম্পে ৯১ হাজার শিশুর জন্ম হয়েছে। তার মধ্যে ১ বছরের নিচে রয়েছে ৩১ হাজার শিশু। আর ২ বছরের নিচে রয়েছে ৬০ হাজার শিশু। জনসংখ্যা রোধ করতে ক্যাম্পগুলোতে নানা কার্যক্রম চলছে বলেও জানান তিনি।

কক্সবাজারের জেলা প্রশাসক কামাল হোসেন গণমাধ্যমকে বলেন, রোহিঙ্গাদের এখানে বসবাসের পাশাপাশি তাদের মানবিক কারণে খাবারের ব্যবস্থা করা ও সেই সাথে নিজ দেশে ফেরানোর লক্ষ্যে কাজ করছে সরকার।

Spread the love
  • 441
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
    441
    Shares

এই ওয়েবসাইটের যাবতীয় লেখার বিষয়বস্তু, মতামত কিংবা মন্তব্য– লেখকের একান্তই নিজস্ব। somoyekhon.com-এর সম্পাদকীয় নীতির সঙ্গে এর মিল আছে, এমন সিদ্ধান্তে আসার কোনো যৌক্তিকতাই নেই। লেখকের মতামত, বক্তব্যের বিষয়বস্তু বা এর যথার্থতা নিয়ে somoyekhon.com আইনগত বা অন্য কোনো ধরনের কোনো প্রকার দায় বহন করে না।