বড়শিতে উঠে এলো দু’মুখো মাছ!

0

বিশ্ব বিচিত্রা ডেস্ক:

নিউইয়র্কের লেকে ধরা পড়েছে দু’মুখো একটি মাছ। ভাইরাল হওয়া অদ্ভুত চেহারার মাছের ছবিটি দেখে অনেকেই বিস্মিত হয়েছেন। অদ্ভুত দর্শন মাছের ছবি ভাইরাল হয়েছে ইন্টারনেটে।

এনডিটিভির খবরে বলা হয়েছে, ডেবি গেডেস নামের এক নারী তার স্বামীর সঙ্গে নিউইয়র্কের চ্যাম্পলেন লেকে বড়শিতে মাছটি ধরেন।

তিনি বলেন, আমরা যখন নৌকায় তুললাম, তখন মাছটাকে দেখে বিশ্বাস করতে পারছিলাম না। মাছের দুটি মুখ! খুব আশ্চর্যজনক প্রাণী!

ডেবি গেডেস এনবিসি টিভিকে বলেন, মাছটি দেখে প্রথমে অবাক হয়েছি। বিশ্বাসই করতে পারছিলাম না এটি মাছ!

ডেবি জানিয়েছেন, তিনি এবং তার স্বামী কয়েকটি ছবি তুলে তারপর লেকে ফের মাছটি ছেড়ে দেন।

মাছের একটি ছবি ফেসবুকে পোস্ট করা হলে তা সঙ্গে সঙ্গে ভাইরাল হয়। ছবিটি বিশ্বজুড়েই ব্যাপকভাবে শেয়ার হয়েছে। সামাজিক মাধ্যমে দেয়ার পর থেকে দু’মুখো মাছের ছবিটি সবাই শেয়ার করেছে।

স্বামীর অতিরিক্ত ভালোবাসায় অতিষ্ঠ, বিচ্ছেদ চান স্ত্রী

স্ত্রীকে খুব ভালোবাসেন। কোনও কাজই স্ত্রীকে দিয়ে করান না। স্বামীর এমন ভালোবাসা, আদর-যত্নে রীতিমতো অতিষ্ঠ হয়ে উঠেছেন তার স্ত্রী। তাই বিচ্ছেদের সিদ্ধান্ত নিয়েছেন তিনি। এমন ঘটনা ঘটেছে সংযুক্ত আরব আমিরাতে।

দেশটির ফুজাইরার শরিয়াগ আদালতে গিয়ে বিবাহ বিচ্ছেদের আবেদন করেছেন ওই নারী। আদালতে তিনি বলেন, তার স্বামী কখনোই তাকে বকাঝকা করেন না। কোনো কিছুতে কোনোদিন মানাও করেননি তিনি।

বাড়ি-ঘরও তার স্বামীই পরিষ্কার করেন। সব সময় রান্নাও তিনি নিজেই করেন। স্বামীর এই অতিরিক্ত ভালোবাসায় দমবন্ধ লাগছে তার স্ত্রীর। সে কারণেই তিনি এই সম্পর্ক থেকে বেরিয়ে আসতে চাইছেন।

অভিযোগের সুরে ওই নারী বলেন, এত বছরের সম্পর্কে কখনও একটু ঝগড়াও হয়নি। এভাবে চলতে পারে না। মাঝে মাঝে আমি ইচ্ছা করেই ভুল করি যাতে একটু অশান্তি হয় ঘরে। কিন্তু সব সময়ই তিনি আমাকে ক্ষমা করে দেন। আমার জন্য উপহার নিয়ে আসেন।

আমি চাই আমাদের মধ্যে একটু কথা কাটাকাটি হোক। সব সময়ই মনে হয় আমার জীবনে কোনো সমস্যা নেই। এভাবে বেঁচে থাকা যায় না।

অপরদিকে স্ত্রীকে বেশি ভালোবাসার দায়ে অভিযুক্ত ওই স্বামী বলছেন, আমি কোনো ভুল করিনি। একজন ভালো স্বামীর ঠিক যা যা করা উচিত, আমি সব সময় তাই করেছি।

Spread the love
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

এই ওয়েবসাইটের যাবতীয় লেখার বিষয়বস্তু, মতামত কিংবা মন্তব্য– লেখকের একান্তই নিজস্ব। somoyekhon.com-এর সম্পাদকীয় নীতির সঙ্গে এর মিল আছে, এমন সিদ্ধান্তে আসার কোনো যৌক্তিকতাই নেই। লেখকের মতামত, বক্তব্যের বিষয়বস্তু বা এর যথার্থতা নিয়ে somoyekhon.com আইনগত বা অন্য কোনো ধরনের কোনো প্রকার দায় বহন করে না।