মক্কায় ভুলে ভরা হাজার হাজার কপি কোরআন শরিফ!

0

আন্তর্জাতিক ডেস্ক:

এখন চলছে হজের মৌসুম। সারাবিশ্ব থেকে ১৮ লাখেরও বেশি মুসলমান অবস্থান করছেন পবিত্র নগরী মক্কা নগরীতে। বিশ্বের নানা দেশ থেকে সেখানে হাজির হয়েছেন তারা পরম স্রষ্টার নৈকট্য লাভের উদ্দেশ্যে। কষ্ট স্বীকার করে পূণ্য লাভের আশায় মক্কার মসজিদুল হারামে ইবাদত বন্দেগি ও কোরআন তেলাওয়াতে নিয়োজিত থাকেন হজ যাত্রীরা।

তবে এবার এসেছে এক চাঞ্চল্যকর সংবাদ। সৌদি আরবের পবিত্র নগরী মক্কার মসজিদুল হারাম থেকে ভুল লেখা ও অসম্পূর্ণ পৃষ্ঠার কোরআনের ৯ হাজার পাণ্ডুলিপি বের করা হয়েছে। খবর সৌদি গেজেট।

দুই পবিত্র মসজিদের বই (লাইব্রেরি) বিভাগের প্রধান পরিচালক খালেদ আল-হারিদি জানান, প্রতিদিন হাজার হাজার ভুল লেখা ও অসম্পূর্ণ পৃষ্ঠার কোরআন পাওয়া যাচ্ছে।

তার মতে, ভুল লেখা মুদ্রণসহ অসম্পূর্ণ পৃষ্ঠার এসব কপির অধিকাংশই সিরিয়া থেকে আসা। হাজিরা মহান আল্লাহর কাছ থেকে পূণ্য লাভের আশায় কোরআনের এসব কপি মসজিদুল হারামের সংরক্ষিত তাকে (সেলফে) রেখে দেয়।

হারিদি জানান, ভুল লেখা ও অসম্পূর্ণ পৃষ্ঠার কোরআনের এ কপিগুলো যাচাই-বাছাইয়ে ৭০ জন দায়িত্বশীল ও ১৪০ জন কর্মচারী ২৪ ঘণ্টা নিরলস কাজ করে যাচ্ছেন।

এদিকে মসজিদুল হারামে হজ উপলক্ষ্যে মদিনার কিং ফাহাদ কোরআন কমপ্লেক্স থেকে মুদ্রিত ও প্রকাশিত কোরআনের ১ হাজার পাণ্ডুলিপি প্রতিদিন হাজিদের মধ্যে বিতরণ করা হচ্ছে।

মসজিদে হারামে কোরআন শরিফ রাখার জন্য প্রায় ৩ হাজার তাক রয়েছে। যেখানে হজ ও ওমরা জেয়ারত কারীদের জন্য রাখা আছে পবিত্র কোরআন।

রমজানে পবিত্র কাবা শরিফে অনেক মানুষের সমাগম ঘটে। সে সময় পবিত্র কোরআনের পর্যাপ্ত সরবরাহ নিশ্চিত করতে ১০০ কার্টুন কোরআন শরিফ রিজার্ভ রাখা হয়। যার প্রতিটি কার্টুনে ৮০ থেকে ৯০টি কোরআন শরিফ থাকে বলেও জানান হারিদি।

হজ মৌসুম উপলক্ষ্যে প্রতিদিন প্রত্যেক হাজিকে একটি জায়নামাজ ও একটি কোরআন শরিফ বিতরণ কার্যক্রম অব্যাহত রয়েছে।

জাগো নিউজ

Spread the love
  • 247
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
    247
    Shares

এই ওয়েবসাইটের যাবতীয় লেখার বিষয়বস্তু, মতামত কিংবা মন্তব্য– লেখকের একান্তই নিজস্ব। somoyekhon.com-এর সম্পাদকীয় নীতির সঙ্গে এর মিল আছে, এমন সিদ্ধান্তে আসার কোনো যৌক্তিকতাই নেই। লেখকের মতামত, বক্তব্যের বিষয়বস্তু বা এর যথার্থতা নিয়ে somoyekhon.com আইনগত বা অন্য কোনো ধরনের কোনো প্রকার দায় বহন করে না।