গ্রাহকের ব্যক্তিগত তথ্য হাতানোয় ফেসবুককে ৫০০ কোটি ডলার জরি-মানা

0

বিজ্ঞান ও তথ্য প্রযুক্তি ডেস্ক:

ব্যক্তিগত তথ্যের গোপনীয়তা লঙ্ঘ-ন করার দায়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম জায়ান্ট ফেসবুককে ৫০০ কোটি ডলার জরি-মানা করেছে যুক্তরাষ্ট্রের ফেডারেল ট্রেড কমিশন (এফটিসি)। যুক্তরাষ্ট্রের ইতিহাসে কোনো টেক জায়ান্টকে এটাই সর্বোচ্চ অংকের জরি-মানা।

বিবিসির এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, যুক্তরাষ্ট্রের ফেডারেল ট্রেড কমিশন (এফটিসি) এই বিষয়টির তদন্ত করছে। ফেসবুকের বিরু-দ্ধে অভিযোগ, তারা ক্যামব্রিজ অ্যানালিটিকার হয়ে উদ্দেশ্য প্রণো-দিতভাবে রাজনৈতিক কাজে ব্যাবহারের জন্য জন্য ৮৭ মিলিয়ন ব্যবহারকারীর ব্যক্তিগত তথ্য হাতিয়ে নিয়েছে ফেসবুক।

মার্কিন সংবাদমাধ্যম ওয়াশিংটন পোস্ট শুক্রবারের এক প্রতিবেদনে জানিয়েছে, এফটিসির সদস্যদের মধ্যে ৩ : ২ ভোটের মাধ্যমে ফেসবুকের বিরু-দ্ধে এই বিশাল এবং রেকর্ড পরিমাণ জরি-মানার বিষয়টি অনুমোদন দেয়া হয়।

ফেসবুক এবং এফটিসি উভয়ই বিবিসিকে বলেছে, তারা এই প্রতিবেদন নিয়ে কোনো ধরনের মন্তব্য করবে না। ব্রিটিশ পলিটিকাল কনসালটেন্সি ফার্ম ক্যামব্রিজ অ্যানালিটিকার কাছে প্রায় ৯০ মিলিয়ন ফেসবুক গ্রাহকের ব্যক্তিগত তথ্য থাকার বিষয়ে গত বছরের মার্চে ফেসবুকের বিরু-দ্ধে তদন্ত শুরু করে এফটিসি।

২০১১ সালে সম্পাদিত একটি চুক্তির শর্ত ভ-ঙ্গ হওয়ার কারণেই তদন্তের কাজ শুরু করে ফেডারেল ট্রেড কমিশন (এফটিসি)। ওই চুক্তি অনুযায়ী, কোনো ফেসবুক ব্যবহারকারীর ব্যক্তিগত তথ্য নেয়ার ক্ষেত্রে তাদেরকে বিষয়টি স্পষ্ট করে জানাতে হবে, যদি তারা সম্মতি দেয় তাহলেই কেবল তাদের তথ্য শেয়ার করা যাবে। আর সেটা না করা হলে তা হবে বে-আইনি।

ঘটনার সঙ্গে জড়িত বিভিন্ন ব্যক্তি গত শুক্রবার ওয়াল স্ট্রিট জার্নালকে বলেছে, ফেসবুককে ৫০০ কোটি ডলার জরি-মানার বিষয়টি এফটিসির ৩ : ২ ভোটে অনুমোদন দেয়া হয়েছে।

তারা আরও বলেছে, যে ৩ জন জরি-মানা করার পক্ষে ছিলেন. তারা ক্ষমতাসীন দল রিপাবলিকানের এবং বি-পক্ষে যারা ছিলেন তারা বিরোধীদল ডেমোক্র্যাটের।

মার্কিন অন্যান্য গণমাধ্যমেও প্রতিবেদনটি প্রকাশিত হয়েছে। তবে এই জরি-মানা চূড়ান্ত হবে বিচার বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের সিভিল বিভাগের মাধ্যমে। আর তা হতে কতদিন সময় লাগবে সে সম্পর্কে নিশ্চিত করে কিছু বলা যাচ্ছে না এখনই।

Spread the love
  • 46
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
    46
    Shares

এই ওয়েবসাইটের যাবতীয় লেখার বিষয়বস্তু, মতামত কিংবা মন্তব্য– লেখকের একান্তই নিজস্ব। somoyekhon.com-এর সম্পাদকীয় নীতির সঙ্গে এর মিল আছে, এমন সিদ্ধান্তে আসার কোনো যৌক্তিকতাই নেই। লেখকের মতামত, বক্তব্যের বিষয়বস্তু বা এর যথার্থতা নিয়ে somoyekhon.com আইনগত বা অন্য কোনো ধরনের কোনো প্রকার দায় বহন করে না।