ঘুষ না পেয়ে ৩ লাখ টাকার ডিম ভেঙে দেয়া সেই ৬ পুলিশ সদস্য ক্লোজড

0

বগুড়া প্রতিনিধি:

দাবিকৃত ঘুষ না দেয়ায় ৩ লাখ টাকার ডিম রাস্তায় ফেলে নষ্ট করে দেয়ার ঘটনায় ৬ পুলিশ সদস্যকে প্রত্যাহার করা হয়েছে। তাদের হাইও‌য়ে বগুড়া রি‌জিয়ন সদর দফতরে সংযুক্ত করা হয়েছে। শুক্রবার বাংলাদেশ পুলিশের এআইজি (মিডিয়া অ্যান্ড পিআর) মো. সোহেল রানা বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

সুষ্ঠু ও প্রভাবমুক্ত তদ‌ন্তের স্বার্থে ঘটনার সঙ্গে জড়িত ৬ পু‌লিশ সদস্যকে ক্লোজড ক‌রার বিষয়টি উল্লেখ করে তিনি বলেন, ঘটনাটি জানার পরপর পুলিশের উর্ধ্বতন কর্মকর্তারা ডি‌মের মা‌লিকের সঙ্গে যো‌গা‌যোগ ক‌রেন। ক্ষতিগ্রস্ত ব্যবসায়ী এক‌টি অভিযোগ দায়ের করেন। সেই অভিযো‌গের ভিত্তিতে বিষয়‌টি তদন্ত করে ৩ কার্যদিবসের মধ্যে প্রতিবেদন দিতে হাইওয়ে পু‌লিশের এস‌পি পদমর্যাদার একজন কর্মকর্তাকে দা‌য়িত্ব দেয়া হয়েছে।

প্রসঙ্গত, বৃহস্পতিবার ভোর রাতে একটি পিকআপ ভ্যানে ৩৫ হাজার ১শ’ ডিম নিয়ে সিরাজগঞ্জের কামারখন্দ থেকে নাটোর যাচ্ছিল। পথে আগ্রান সূতিরপাড় এলাকায় পিকআপের চাকা পাংচার হয়ে গেলে সেটি পাশের ফিডার রোডে নেমে যায়।

খবর পেয়ে বনপাড়া হাইওয়ে পুলিশের একটি টিম ঘটনাস্থলে আসে। এ সময় পুলিশ সদস্যরা পিকআপ উদ্ধারের জন্য রেকার ভাড়াসহ ২০ হাজার টাকা দাবি করে। কিন্তু চালক এতে রাজি না হওয়ায় ক্ষিপ্ত হয়ে পুলিশ সদস্যরা পিকআপে ডিমের খাঁচি বাঁধার রশি ছুরি দিয়ে কেটে দেয়। এতে ডিমের খাঁচি রাস্তায় পড়ে অধিকাংশই ভেঙে নষ্ট হয়ে যায়। যার বাজারমূল্য ৩ লাখ টাকা।

বৃহস্পতিবার বেলা ১১টায় সরেজমিনে ঘটনাস্থলে গিয়ে দেখা যায়, স্থানীয় নারীরা রাস্তায় পড়ে থাকা ভাঙাচোরা ডিম কুড়িয়ে নিচ্ছেন। রাস্তাজুড়ে ভাঙা ডিমের হলুদ কুসুম ছড়িয়ে রয়েছে। ট্রাকের চালক-হেলপার ভাঙা ডিম ফেলে প্লাস্টিকের খাঁচিগুলো সংগ্রহ করছেন। রাস্তায় যত্রতত্র কেটে ফেলা রশিগুলো পড়ে রয়েছে।

ঘটনার প্রত্যক্ষদর্শী ও স্থানীয় পুকুরের পাহারাদার শহীদুল ইসলাম ও আতাহার আলী জানান, চালক-হেলপার বারবার অনুরোধ করা স্বত্ত্বেও পুলিশ পিকআপের রশিগুলো কেটে দিয়েছে। রশি না কাটলে ডিমগুলো নষ্ট হতো না। পুলিশ ডিমসহ পিকআপটি রেকারে করে থানায় নিয়ে গেলে কী এমন ক্ষতি হতো?

পিকআপের চালক সিরাজগঞ্জ সদরের মজনু মিয়া জানান, আমার গাড়ির চাকা পাংচার হয়ে ফিডার রাস্তায় নেমে গেলেও কোনো ডিম পড়েনি। কিন্তু পুলিশের দাবিমতো ঘুষ না দেয়ায় তারা রাগে ডিম বাঁধার রশি কেটে দেয়ায় সব ডিম রাস্তায় পড়ে গেছে।

ডিমের মালিক বিপ্লব কুমার সাহা বলেন, আমি চালকের মোবাইল দিয়ে কর্তব্যরত পুলিশ অফিসারের সঙ্গে কথা বলেছি এবং রশি না কাটার জন্য অনুরোধ করেছি। কিন্তু তারা আমার কোনো কথা শুনেনি। এতে আমার ৩ লাখ টাকার ডিম নষ্ট হয়ে গেল।

Spread the love
  • 212
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
    212
    Shares

এই ওয়েবসাইটের যাবতীয় লেখার বিষয়বস্তু, মতামত কিংবা মন্তব্য– লেখকের একান্তই নিজস্ব। somoyekhon.com-এর সম্পাদকীয় নীতির সঙ্গে এর মিল আছে, এমন সিদ্ধান্তে আসার কোনো যৌক্তিকতাই নেই। লেখকের মতামত, বক্তব্যের বিষয়বস্তু বা এর যথার্থতা নিয়ে somoyekhon.com আইনগত বা অন্য কোনো ধরনের কোনো প্রকার দায় বহন করে না।