প্রেমিকের অসুস্থ মাকে দেখতে গিয়ে ধর্ষণের শিকার স্কুলছাত্রী

0

নারায়ণগঞ্জ প্রতিনিধি:

নারায়ণগঞ্জের রূপগঞ্জে মায়ের অসুস্থতার অজুহাত দেখিয়ে বাড়িতে ডেকে নিয়ে স্কুলপড়ুয়া প্রেমিকাকে ধর্ষণের অভিযোগ উঠেছে প্রেমিকের বিরুদ্ধে।

মঙ্গলবার (১৪ মে) সকালে ধর্ষিতা নিজেই রূপগঞ্জ থানায় মামলা দায়ের করেছেন। মামলার দায়েরের পর পরই অভিযুক্ত রনিসহ তার ২ সহযোগী হৃদয় ও রাসেল মিয়াকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ।

রূপগঞ্জ থানার উপপরিদর্শক সোহেল সিদ্দীকি জানান, গত ৪ বছর আগে রূপগঞ্জের বরপা রসুলপুর এলাকার এ/পি খান ডাক্তার বাড়ির ভাড়াটিয়া কাজল মিয়ার ছেলে মোঃ রনি মিয়ার সঙ্গে তার প্রেমের সর্ম্পক গড়ে ওঠে। গত ৮ মে বুধবার বিকালে রনি মিয়া মুঠোফোনে স্কুল পড়ুয়া ছাত্রীকে জানায় তার মা গুরুতর অসুস্থ তাকে দেখতে চায়। অসুস্থতার খবরে স্কুল পড়ুয়া ছাত্রী রাজধানী ঢাকার লালবাগ থানার ভাগালপুর লেনের বাসা থেকে সিএনজিযোগে এসে রনির সঙ্গে দেখা করে।

তিনি আরও জানান, এক পর্যায়ে রনি সুকৌশলে তাকে তার মা’র ওখানে না নিয়ে রসুলপুর এলাকার এক ডাক্তারের বাড়ির নিচতলার এক রুমে নিয়ে যায়। পরে শারীরিক সর্ম্পকের প্রস্তাব দেয়। এতে রাজি না হওয়ায় স্কুলছাত্রীকে ভয় দেখিয়ে ধর্ষণ করে লম্পট রনি। এ সময় রনির ২ বন্ধু একই এলাকার হাবিবুর রহমানের ছেলে হৃদয় ও রাসেল বাহিরে পাহারারত অবস্থায় ছিল।

রূপগঞ্জ থানা পুলিশের ওসি মাহমুদ হাসান বলেন, স্কুলপড়ুয়া মেয়েটি থানায় এসে মামলা করার সঙ্গে সঙ্গে আসামী ধর্ষক ও তার সহযোগীদের গ্রেপ্তার করা হয়েছে। তাদের রিমান্ড চেয়ে আদালতে পাঠানো হয়েছে।

বরিশালে অস্ত্রের মুখে কিশোরীকে গণধর্ষণকারী ৪ যুবক গ্রেপ্তার

বরিশালের মুলাদী উপজেলায় অস্ত্রের মুখে জিম্মি করে এক কিশোরীকে (১৫) গণধর্ষণের অভিযোগে ৪ যুবককে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। মঙ্গলবার (১৪ মে) সকাল থেকে বিকেল পর্যন্ত উপজেলার বিভিন্ন গ্রামে অভিযান চালিয়ে তাদের গ্রেপ্তার করা হয়।

গ্রেপ্তারকৃতরা হলো- নজরুল ইসলাম (৩১), ফয়সাল খান (১৮), রনি সরদার (২৪) এবং রাব্বী সিকদার (১৮)।

জানা যায়, উপজেলার সদর ইউনিয়নের দড়িচর লক্ষ্মীপুর গ্রামের ওই কিশোরী সোমবার সকালে পাইতিখোলা এলাকায় মামা বাড়িতে বেড়াতে যায়। পূর্ব-পরিচয়ের সূত্র ধরে উপজেলার নাজিরপুর ইউনিয়নের ঘোষেরচর গ্রামের আদারি খানের ছেলে ইজিবাইক চালক নজরুল ইসলাম খান কথা আছে বলে ওই কিশোরীকে ইজিবাইকে ওঠায়। পরে সহযোগীদের নিয়ে অস্ত্রের মুখে জিম্মি করে কিশোরীকে পাশের ইউনিয়নের জালালপুর গ্রামের রহিম ক্বারীর কলাবাগানে নিয়ে যায়।

সেখানে তার সহযোগী ফয়সাল খান, রাব্বী সিকদার, রনি সরদার ওই কিশোলীকে পালাক্রমে ধর্ষণ করে। রাত সাড়ে ১০টার দিকে স্থানীয়রা ওই কিশোরীর চিৎকার শুনে ৩ ধর্ষককে আটক করে। সেই সঙ্গে কিশোরীকে উদ্ধার করে স্থানীয় দফাদার আবু হানিফ ও চৌকিদার আমিনুল ইসলামের হাতে তুলে দেয়। দফাদার ও চৌকিদার ধর্ষকদের কাছ থেকে মুচলেকা রেখে তাদের ছেড়ে দেয় এবং কিশোরীকে তাদের জিম্মায় রেখে থানায় সংবাদ দেয়।

মুলাদী থানা পুলিশের ওসি মো. জিয়াউল আহসান বলেন, মঙ্গলবার সকালে খবর পেয়ে মুলাদী থানা পুলিশ জালালপুর গ্রামে পৌঁছে গণধর্ষণের শিকার কিশোরীকে উদ্ধার করে। এরপর সকাল থেকে বিকেল পর্যন্ত মুলাদী থানা পুলিশ উপজেলার বিভিন্ন গ্রামে অভিযান চালিয়ে গণধর্ষণের সঙ্গে জড়িত ৪ যুবককে গ্রেপ্তার করে।

Spread the love
  • 313
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
    313
    Shares

এই ওয়েবসাইটের যাবতীয় লেখার বিষয়বস্তু, মতামত কিংবা মন্তব্য– লেখকের একান্তই নিজস্ব। somoyekhon.com-এর সম্পাদকীয় নীতির সঙ্গে এর মিল আছে, এমন সিদ্ধান্তে আসার কোনো যৌক্তিকতাই নেই। লেখকের মতামত, বক্তব্যের বিষয়বস্তু বা এর যথার্থতা নিয়ে somoyekhon.com আইনগত বা অন্য কোনো ধরনের কোনো প্রকার দায় বহন করে না।