বরিশালে অস্ত্রের মুখে কিশোরীকে গণধর্ষণকারী ৪ যুবক গ্রেপ্তার

0

বরিশাল প্রতিনিধি:

বরিশালের মুলাদী উপজেলায় অস্ত্রের মুখে জিম্মি করে এক কিশোরীকে (১৫) গণধর্ষণের অভিযোগে ৪ যুবককে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। মঙ্গলবার (১৪ মে) সকাল থেকে বিকেল পর্যন্ত উপজেলার বিভিন্ন গ্রামে অভিযান চালিয়ে তাদের গ্রেপ্তার করা হয়।

গ্রেপ্তারকৃতরা হলো- নজরুল ইসলাম (৩১), ফয়সাল খান (১৮), রনি সরদার (২৪) এবং রাব্বী সিকদার (১৮)।

জানা যায়, উপজেলার সদর ইউনিয়নের দড়িচর লক্ষ্মীপুর গ্রামের ওই কিশোরী সোমবার সকালে পাইতিখোলা এলাকায় মামা বাড়িতে বেড়াতে যায়। পূর্ব-পরিচয়ের সূত্র ধরে উপজেলার নাজিরপুর ইউনিয়নের ঘোষেরচর গ্রামের আদারি খানের ছেলে ইজিবাইক চালক নজরুল ইসলাম খান কথা আছে বলে ওই কিশোরীকে ইজিবাইকে ওঠায়। পরে সহযোগীদের নিয়ে অস্ত্রের মুখে জিম্মি করে কিশোরীকে পাশের ইউনিয়নের জালালপুর গ্রামের রহিম ক্বারীর কলাবাগানে নিয়ে যায়।

সেখানে তার সহযোগী ফয়সাল খান, রাব্বী সিকদার, রনি সরদার ওই কিশোলীকে পালাক্রমে ধর্ষণ করে। রাত সাড়ে ১০টার দিকে স্থানীয়রা ওই কিশোরীর চিৎকার শুনে ৩ ধর্ষককে আটক করে। সেই সঙ্গে কিশোরীকে উদ্ধার করে স্থানীয় দফাদার আবু হানিফ ও চৌকিদার আমিনুল ইসলামের হাতে তুলে দেয়। দফাদার ও চৌকিদার ধর্ষকদের কাছ থেকে মুচলেকা রেখে তাদের ছেড়ে দেয় এবং কিশোরীকে তাদের জিম্মায় রেখে থানায় সংবাদ দেয়।

মুলাদী থানা পুলিশের ওসি মো. জিয়াউল আহসান বলেন, মঙ্গলবার সকালে খবর পেয়ে মুলাদী থানা পুলিশ জালালপুর গ্রামে পৌঁছে গণধর্ষণের শিকার কিশোরীকে উদ্ধার করে। এরপর সকাল থেকে বিকেল পর্যন্ত মুলাদী থানা পুলিশ উপজেলার বিভিন্ন গ্রামে অভিযান চালিয়ে গণধর্ষণের সঙ্গে জড়িত ৪ যুবককে গ্রেপ্তার করে।

খাগড়াছড়িতে কিশোরী গণধর্ষণ, হত্যা: আটক ৩ স্থানীয়

খাগড়াছড়ির সদরের বড়পাড়া এলাকায় এক ত্রিপুরা কিশোরীকে গণধর্ষণের পর হত্যার অভিযোগ উঠেছে। এ ঘটনায় ৩ যুবককে আটক করেছে পুলিশ।

সোমবার (১৩ মে) রাতে মেয়েটি ধর্ষণের শিকার হয়। স্থানীয়দের কাছ থেকে খবর পেয়ে মঙ্গলবার (১৪ মে) দুপুর ৩টার দিকে তার লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ। কিশোরীর নাম ধনিতা ত্রিপুরা (১৭)। সে বড়পাড়া এলাকার নল মোহন ত্রিপুরার ছোট মেয়ে।

আটককৃতরা হলো- রোমেন ত্রিপুরা (২২), কিরণ ত্রিপুরা (২০) ও কমল ত্রিপুরা (১৯)। আটককৃতরা সবাই ভাইবোনছড়া ইউনিয়নের ভিজাচন্দ্র কার্বারী পাড়ার বাসিন্দা।

জানা গেছে, পূর্ব-পরিচয়ের সূত্র ধরে ৩ যুবক সোমবার রাতে ধনিতা ত্রিপুরার বাড়িতে ছিল। এ সময় ধনিতা ত্রিপুরার মা-বাবা কেউ বাড়িতে ছিল না। সকাল সাড়ে ৮টা পর্যন্ত ধনিতার কোনো সাড়া-শব্দ না পেয়ে প্রতিবেশীরা ঘরের দরজা খুলে বিছানার ওপর ধনিতার মরদেহ পড়ে থাকতে দেখে। তাকে গণধর্ষণ করে হত্যা করা হয়েছে বলে জানায় স্থানীয়রা।

খাগড়াছড়ি সদর থানা পুলিশের ওসি মো. সাহাদাত হোসেন টিটো ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, মরদেহের সুরতহাল রিপোর্ট শেষে ময়নাতদন্তের জন্য খাগড়াছড়ি আধুনিক জেলা সদর হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হয়েছে। ময়নাতদন্ত শেষে মৃত্যুর কারণ জানা যাবে।

তিনি আরও বলেন, ঘটনার সঙ্গে জড়িত ৩ যুবককে আটক করে জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে। এ বিষয়ে আটককৃতদের বিরুদ্ধে মামলার প্রস্তুতি চলছে।

Spread the love
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

এই ওয়েবসাইটের যাবতীয় লেখার বিষয়বস্তু, মতামত কিংবা মন্তব্য– লেখকের একান্তই নিজস্ব। somoyekhon.com-এর সম্পাদকীয় নীতির সঙ্গে এর মিল আছে, এমন সিদ্ধান্তে আসার কোনো যৌক্তিকতাই নেই। লেখকের মতামত, বক্তব্যের বিষয়বস্তু বা এর যথার্থতা নিয়ে somoyekhon.com আইনগত বা অন্য কোনো ধরনের কোনো প্রকার দায় বহন করে না।