খাগড়াছড়িতে কিশোরী গণধর্ষণ, হত্যা: আটক ৩ স্থানীয়

0

খাগড়াছড়ি প্রতিনিধি:

খাগড়াছড়ির সদরের বড়পাড়া এলাকায় এক ত্রিপুরা কিশোরীকে গণধর্ষণের পর হত্যার অভিযোগ উঠেছে। এ ঘটনায় ৩ যুবককে আটক করেছে পুলিশ।

সোমবার (১৩ মে) রাতে মেয়েটি ধর্ষণের শিকার হয়। স্থানীয়দের কাছ থেকে খবর পেয়ে মঙ্গলবার (১৪ মে) দুপুর ৩টার দিকে তার লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ। কিশোরীর নাম ধনিতা ত্রিপুরা (১৭)। সে বড়পাড়া এলাকার নল মোহন ত্রিপুরার ছোট মেয়ে।

আটককৃতরা হলো- রোমেন ত্রিপুরা (২২), কিরণ ত্রিপুরা (২০) ও কমল ত্রিপুরা (১৯)। আটককৃতরা সবাই ভাইবোনছড়া ইউনিয়নের ভিজাচন্দ্র কার্বারী পাড়ার বাসিন্দা।

জানা গেছে, পূর্ব-পরিচয়ের সূত্র ধরে ৩ যুবক সোমবার রাতে ধনিতা ত্রিপুরার বাড়িতে ছিল। এ সময় ধনিতা ত্রিপুরার মা-বাবা কেউ বাড়িতে ছিল না। সকাল সাড়ে ৮টা পর্যন্ত ধনিতার কোনো সাড়া-শব্দ না পেয়ে প্রতিবেশীরা ঘরের দরজা খুলে বিছানার ওপর ধনিতার মরদেহ পড়ে থাকতে দেখে। তাকে গণধর্ষণ করে হত্যা করা হয়েছে বলে জানায় স্থানীয়রা।

খাগড়াছড়ি সদর থানা পুলিশের ওসি মো. সাহাদাত হোসেন টিটো ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, মরদেহের সুরতহাল রিপোর্ট শেষে ময়নাতদন্তের জন্য খাগড়াছড়ি আধুনিক জেলা সদর হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হয়েছে। ময়নাতদন্ত শেষে মৃত্যুর কারণ জানা যাবে।

তিনি আরও বলেন, ঘটনার সঙ্গে জড়িত ৩ যুবককে আটক করে জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে। এ বিষয়ে আটককৃতদের বিরুদ্ধে মামলার প্রস্তুতি চলছে।

কুলাউড়ায় আপন ভাতিজিকে ধর্ষণচেষ্টার দায়ে চাচা গ্রেপ্তার

মৌলভীবাজার জেলার কুলাউড়া উপজেলার কর্মধা ইউনিয়নে আপন ভাতিজিকে (১৯) ধর্ষণচেষ্টার দায়ে চাচা আব্দুর রশিদকে (৩৮) গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ।

সোমবার (১৩ মে) রাতে নিজ বাড়ি থেকে চাচাকে গ্রেপ্তার করে কুলাউড়া থানার এসআই নুর হোসেনের নেতৃত্বে পুলিশের একটি দল। এর আগে একই দিন ভিক্টিম ওই ভাতিজি নিজেই বাদি হয়ে কুলাউড়া থানায় তার চাচা আব্দুর রশিদের বিরুদ্ধে ধর্ষণচেষ্টার মামলা দায়ের করেন।

পুলিশ ও স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, ২ বছর আগে প্রবাস থেকে ফিরে দেশে অবস্থান করছিল চাচা আব্দুর রশিদ। লম্পট রশিদ তার স্ত্রীকে নিয়ে একই বিল্ডিংয়ে ভিক্টিমের পাশের কক্ষেই বসবাস করত। দীর্ঘদিন যাবৎ আদর করার ছলে নানা কৌশলে ভাতিজিকে যৌন নিপীড়ন করত চাচা রশিদ। ভাতিজি তা প্রতিহত করার অনেক চেষ্টা করলেও, তার শরীরের বিভিন্ন স্পর্শকাতর অংশে অযাচিতভাবে স্পর্শ করত রশিদ। লোকলজ্জা এবং কেউ বিশ্বাস করবে না- এই ভয়ে ভিক্টিম বিষয়টি কাউকে জানাননি। একপর্যায়ে বিষয়টি জানাজানি হলে অভিযুক্ত চাচা ও তার স্ত্রীর মধ্যে ঝগড়া হতো।

এ অবস্থায় গত ২৮ এপ্রিল সকাল ৮টার দিকে ভিক্টিম তার নিজ কক্ষে পড়ালেখা করছিলেন। তার বাবা কৃষিকাজে এবং মা ঘরের থালা-বাসন ধোয়ার জন্য পুকুরে যান। এই সুযোগে রশিদ ভিক্টিমের রুমে প্রবেশ করে জোরপূর্বক বিছানায় নিয়ে ভাতিজিকে ধর্ষণের চেষ্টা করে। এ সময় ভিক্টিমের চিৎকারে আশপাশের লোকজন চলে এলে চাচা রশিদ পালিয়ে যায়। এই ঘটনার পর লোকলজ্জার ভয়ে বিষয়টি গোপন করার চেষ্টা করা হয়। একপর্যায়ে ভিক্টিম নিজেই বাদি হয়ে গত সোমবার থানায় মামলা দায়ের করেন।

এ বিষয়ে কুলাউড়া থানার এসআই নূর হোসেন বলেন, প্রাথমিক তদন্তে ঘটনার সত্যতা পাওয়া গেছে। সে দীর্ঘদিন যাবৎ বিভিন্ন কৌশলে যৌন নিপীড়ন করে আসছিল। ধর্ষণচেষ্টার মামলার পর পরই আসামিকে আটক করা হয়েছে। তাকে আদালতের মাধ্যমে কোর্টে প্রেরণ করা হবে।

Spread the love
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

এই ওয়েবসাইটের যাবতীয় লেখার বিষয়বস্তু, মতামত কিংবা মন্তব্য– লেখকের একান্তই নিজস্ব। somoyekhon.com-এর সম্পাদকীয় নীতির সঙ্গে এর মিল আছে, এমন সিদ্ধান্তে আসার কোনো যৌক্তিকতাই নেই। লেখকের মতামত, বক্তব্যের বিষয়বস্তু বা এর যথার্থতা নিয়ে somoyekhon.com আইনগত বা অন্য কোনো ধরনের কোনো প্রকার দায় বহন করে না।