চট্টগ্রামে পোশাক শ্রমিককে ধর্ষণ ও নির্যাতনের দায়ে ৪ নারীসহ ৬ জন আটক

0

চট্টগ্রাম ব্যুরো:

এক পোশাক শ্রমিককে বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে ধর্ষণ ও নির্যাতনের অভিযোগে ৬ জনকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। সোমবার রাত ও মঙ্গলবার সকালে নগরের বিভিন্ন এলাকায় অভিযান চালিয়ে তাদের গ্রেফতার করা হয়। গ্রেফতাররা হলো- মো. নিজাম উদ্দিন, তানিয়া বেগম, পপি বেগম, সোনিয়া বেগম, মো. লিটন ও ফিরোজা বেগম।

সদরঘাট থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা নেজাম উদ্দিন জানান, সিএনজি অটোরিক্সা চালক মো. নিজাম উদ্দিন ২ সন্তানের জনক। বিয়ের বিষয়টি গোপন করে ১০ মাস আগে নগরের আগ্রাবাদের একটি পোশাক কারখানার কর্মীর সঙ্গে প্রেমের সম্পর্ক গড়ে তোলে সে। ওই পোশাক শ্রমিক আগ্রাবাদ এলাকায় ফুপুর বাসায় থাকতেন। বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে গত ১ এপ্রিল ফুপুর বাসা থেকে ওই পোশাক শ্রমিককে নিয়ে এসে ডবলমুরিং থানার নাজির বাড়ি এলাকায় একটি ভাড়া বাসায় উঠে নিজাম। এসময় ওই পোশাক শ্রমিককে কয়েক দফা ধর্ষণ করেন তিনি। ওই পোশাক শ্রমিক বারবার বিয়ের কথা বললেও কালক্ষেপণ করতে থাকে নিজাম। এর মধ্যে নিজামের পরিবারের লোকজন বিষয়টি জানতে পারে।

ওসি জানান, গত ৭ এপ্রিল নিজামের স্ত্রী তানিয়া বেগম ও ফিরোজা বেগম নামে আরেক নারী গিয়ে নিজাম এবং ওই পোশাক শ্রমিককে সদরঘাট থানার পশ্চিম মাদারবাড়িতে তানিয়ার বোন সোনিয়া বেগমের বাসায় নিয়ে আসে। সেখানে তানিয়া ও তার স্বজন পপি, সোনিয়া, লিটন ও ফিরোজা বেগম মিলে ওই পোশাক শ্রমিককে মারধর করে। এক পর্যায়ে তার মাথার চুল কেটে দেওয়া হয়। তার গালে জলন্ত সিগারেটের ছ্যাঁকা দেয় লিটন। পরে ধর্ষণ ও নির্যাতনের বিষয়গুলো না জানাতে তার কাছ থেকে লিখিত নেওয়া হয়। লিটনের মোবাইলে ওই পোশাক শ্রমিকের একটি স্বীকারোক্তিমূলক ভিডিও ধারণ করা হয়। এসব বিষয় কাউকে জানালে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ভিডিওটি ছড়িয়ে দেওয়ার হুমকি দেওয়া হয়।

তিনি বলেন, পরে মান সম্মানের ভয়ে ওই নারী বিষয়টি গোপন রাখেন। হাসপাতালে গিয়ে চিকিৎসাও নেননি। বিষয়টি পুলিশ জানার পর সোমবার রাতে ওই নারীকে থানায় ডেকে এনে নিরাপত্তা নিশ্চিতের প্রতিশ্রুতি দেওয়া হয়। পরে ৬ জনের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করেন ওই নারী। সোমবার রাতে ও মঙ্গলবার সকালে পুলিশ অভিযান চালিয়ে ৬ জনকে গ্রেফতার করে।

Spread the love
  • 136
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
    136
    Shares

এই ওয়েবসাইটের যাবতীয় লেখার বিষয়বস্তু, মতামত কিংবা মন্তব্য– লেখকের একান্তই নিজস্ব। somoyekhon.com-এর সম্পাদকীয় নীতির সঙ্গে এর মিল আছে, এমন সিদ্ধান্তে আসার কোনো যৌক্তিকতাই নেই। লেখকের মতামত, বক্তব্যের বিষয়বস্তু বা এর যথার্থতা নিয়ে somoyekhon.com আইনগত বা অন্য কোনো ধরনের কোনো প্রকার দায় বহন করে না।