বেগুন তুলেই অনলাইনে ভাইরাল শিল্পা শেঠি (ভিডিও)

0

বিনোদন ডেস্ক:

বলিউডের লাস্যময়ী নায়িকা শিল্পা শেঠিকে আজকাল ডান্স শোতে সবচেয়ে বেশি দেখা যায়। শোতে তিনি জাজের ভূমিকায় দেখা দেন। তেমন কোনও ছবি নেই তার হাতে। বহুদিন ধরে করছেন না কোনো কাজ। এখন তিনি নিজের ফিটনেস নিয়ে বেশি ভাবেন। এবং শিল্পার ফিটনেস ক্লাবও রয়েছে। তার এখন সুখের সংসার। বিয়েও করেছেন ভাল পাত্র দেখে।

তবে হঠাৎ কী হল যে বেগুন তুলতে হচ্ছে তাকে। তাও নিজের বাড়িতে লাগানো বেগুন তুলছেন তিনি। তুলছেন ধনেপাতাও। কিছুই না আসলে শিল্পা নিজের বাড়ির বাগানে সবজি লাগিয়েছেন। আর সেই সবজি নিজে হাতে তুলে করবেন রান্না। এই খাবার স্বাস্থ্যকর। আর স্বাস্থ্য নিয়ে শিল্পা সব সময় সচেতন। তবে এই ভিডিও সোশ্যাল মিডিয়ায় শেয়ার হতেই ভাইরাল হয়।

তবে এই ভিডিও সোশ্যাল মিডিয়ায় শেয়ার হতেই ভাইরাল হয়। দেখে নিন সেই ভাইরাল ভিডিও- (সংবাদের একেবারে নিচে)

ঋণের টাকা নিয়ে ঝামেলায় শিল্পা শেঠি

ঋণ নিয়ে ফেরত না দেওয়ার অভিযোগে আইনি জটিলতায় পড়তে চলেছেন বলিউড অভিনেত্রী শিল্পা শেঠি ও তার পরিবার। এ জন্য মুম্বাইয়ে এক মেট্রোপলিটন আদালতে হাজিরা দিতে হলো শিল্পা, তার বোন শমিতা ও মাসুনন্দাকে।

জানা গিয়েছে, ফরহাদ নামের এক গাড়ি ব্যবসায়ী শিল্পা ও তার পরিবারের বিরুদ্ধে ঋণ নিয়ে ফেরত না দেওয়ার অভিযোগ এনেছেন।

দায়ের করা অভিযোগে বলা হয়েছে, ব্যবসা বিস্তারের নামে শিল্পার বাবা সুরেন্দ্র শেঠি ২০১৭ সালের জানুয়ারিতে ২১ লাখ টাকা ঋণ নিয়েছিলেন। এরপর ফরহাদ টাকা ফেরত চাইতে গেলে তখন শিল্পার বাবা বলেছিলেন, যে ব্যবসার জন্য এই টাকা ঋণ নেওয়া, সেই ব্যবসার সঙ্গে তার মেয়ে ও স্ত্রী যুক্ত। তাই টাকা ফেরত পেতে অসুবিধা হবে না। এরপর সুরেন্দ্রর মৃত্যুর পর তার পরিবারের কাছে সেই টাকা দাবি করতে গেলে, শিল্পা ও তার পরিবার গোটা বিষয়টি অস্বীকার করেন।

এদিকে এই অভিযোগ অস্বীকার করেছেন শিল্পা শেঠি। তিনি বলেন, অভিযোগকারী সংবাদমাধ্যমকে ভুল তথ্য দিচ্ছেন।

Spread the love
  • 19
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
    19
    Shares

এই ওয়েবসাইটের যাবতীয় লেখার বিষয়বস্তু, মতামত কিংবা মন্তব্য– লেখকের একান্তই নিজস্ব। somoyekhon.com-এর সম্পাদকীয় নীতির সঙ্গে এর মিল আছে, এমন সিদ্ধান্তে আসার কোনো যৌক্তিকতাই নেই। লেখকের মতামত, বক্তব্যের বিষয়বস্তু বা এর যথার্থতা নিয়ে somoyekhon.com আইনগত বা অন্য কোনো ধরনের কোনো প্রকার দায় বহন করে না।