ছাত্রীদের নিরাপত্তার জন্য ৩ রাত ঘুমাইনি: প্রভোস্ট জিনাত হুদা

0

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিনিধি:

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের রোকেয়া হলের প্রভোস্ট অধ্যাপক ড. জিনাত হুদা জানিয়েছেন, ছাত্রীদের নিরাপত্তার কথা ভেবে ৩ রাত ঘুমাতে পারেননি তিনি। রোকেয়া হল সংসদে পুনর্নির্বাচন দেওয়ার এখতিয়ার তার নেই বলেও জানান প্রভোস্ট।

বৃহস্পতিবার (১৪ মার্চ) দুপুরে বিশ্ববিদ্যালয় ক্লাব ভবনে হলের পরিস্থিতি নিয়ে সংবাদ সম্মেলনে ড. জিনাত হুদা এ কথা জানান। যদিও পুনঃ র্নির্বাচন দাবিতে বিক্ষোভ ও অনশনরত শিক্ষার্থীরা প্রভোস্টকে দেখা করে কথা বলার দাবি জানালেও তিনি তাদের অনুরোধ রাখেননি।

সংবাদ সম্মেলনে অধ্যাপক ড. জিনাত হুদা বলেন, ১১ তারিখ নির্বাচনের আগের দিন বিশ্ববিদ্যালয় থেকে ৬টি ব্যালট বাক্স এবং ৩টি ট্রাংকসহ কেন্দ্রীয় সংসদের জন্য ৪ হাজার ৬০৮টি এবং হল সংসদের জন্য ৪ হাজার ৬৩৮টি ব্যালট পেপার সরবরাহ করা হয়। ভোটের দিন ৬টি ব্যালট বাক্স ভোট কেন্দ্রে রাখা হয়। আর বাকি ৩টি ট্রাংক ২ হাজার ৬০৮টি ব্যালট পেপারসহ পাশের রুমে রাখা হয়। এ নিয়ে ভুল বোঝাবুঝির সৃষ্টি হয়। পরে ওইগুলো সব প্রার্থীকে দেখানোও হয়। সেগুলোতে কোনো সিল মারা ছিল না।

অনশনরত শিক্ষার্থীদের বিষয়ে তিনি বলেন, ছাত্রীদের নিরাপত্তার জন্য প্রক্টরিয়াল টিম রয়েছে। আমি নিজেও আবাসিক শিক্ষকদের পাঠিয়েছি, যেন ওদের নিরাপত্তায় কোনো ব্যাঘাত না ঘটে। আমি নিজেইতো ৩ রাত ঘুমাতে পারিনি ছাত্রীদের নিরাপত্তার কথা ভেবে।

অজ্ঞাতনামাদের আসামি করে দায়ের করা মামলা, পুনঃ র্নির্বাচন ও প্রভোস্টের পদত্যাগের দাবিতে শিক্ষার্থীদের আন্দোলন প্রসঙ্গে জিনাত হুদা বলেন, হল কর্তৃপক্ষ বা আমার দ্বারা কারও বিরুদ্ধে কোনো মামলা হয়নি। ছাত্রীদের আমার কাছে আসতে হবে। আমি ওদের সঙ্গে ফোনে কথা বলেছি। ওদের কথা বলার জন্য ডেকেছিও। কিন্তু ওরা কথা বলতে আসেনি।

শিক্ষার্থীদের দাবির মুখে পদত্যাগ করবেন কি-না, সে বিষয়ে স্পষ্ট কিছু বলেননি ড. জিনাত হুদা। সংবাদ সম্মেলনে হলের হাউজ টিউটররা উপস্থিত ছিলেন।

১১ মার্চ অনুষ্ঠিত ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় কেন্দ্রীয় ছাত্র সংসদ (ডাকসু) ও হল সংসদ নির্বাচনের সময় রোকেয়া হলে অনিয়মের দাবি তোলে ফল প্রত্যাখ্যান করেন শিক্ষার্থীরা। তারা পুনর্নির্বাচন ও প্রভোস্টের পদত্যাগের দাবিতে আন্দোলন করে আসছেন।

Spread the love
  • 361
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
    361
    Shares

এই ওয়েবসাইটের যাবতীয় লেখার বিষয়বস্তু, মতামত কিংবা মন্তব্য– লেখকের একান্তই নিজস্ব। somoyekhon.com-এর সম্পাদকীয় নীতির সঙ্গে এর মিল আছে, এমন সিদ্ধান্তে আসার কোনো যৌক্তিকতাই নেই। লেখকের মতামত, বক্তব্যের বিষয়বস্তু বা এর যথার্থতা নিয়ে somoyekhon.com আইনগত বা অন্য কোনো ধরনের কোনো প্রকার দায় বহন করে না।