‘বন্দেমাতরম’ গাইতে অস্বীকৃতি, মুসলিম শিক্ষককে গণধোলাই

0

কলকাতা প্রতিনিধি:

ভারতে প্রজাতন্ত্র দিবসে জাতীয় সংগীত ‘বন্দেমাতরম’ গাইতে অস্বীকৃতি জানানোয় এক মুসলিম শিক্ষককে বেধড়ক মারধর করার অভিযোগ উঠেছে। স্থানীয় বাসিন্দারাই ওই শিক্ষককে গণধোলাই দেয়। ঘটনাটি ঘটেছে, বিহার রাজ্যের কাটিহার জেলার আবদুল্লাপুরের একটি স্কুলে। ঘটনার পর বেশ কয়েকদিন সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে মারধরের সেই ভিডিও ভাইরাল হয়েছে।

জানা গেছে, ওই শিক্ষকের নাম আফজল হুসাইন। গত ২৬ জানুয়ারি ভারতের প্রজাতন্ত্র দিবসে (রিপাবলিক ডে) জাতীয় পতাকা উত্তোলনের পর ভারতের জাতীয় সংগীত বন্দেমাতরম গাইতে অস্বীকার করেন শিক্ষক আফজল। এর পরেই খেপে যায় স্থানীয়রা। তখনই তার ওপর ঝাঁপিয়ে পড়ে স্থানীয় কিছু লোকজন। স্থানীয়রা জোর করতে থাকে ওই শিক্ষককে বন্দেমাতরম গাইতে হবে। কিন্তু তিনি বন্দেমাতরম গাইতে অস্বীকার করায় তাকে বেধড়ক মারধর করা হয়।

আফজল হুসাইন গণমাধ্যমকে বলেন, ‘আমি ইসলাম ধর্মে বিশ্বাসী। আমার ধর্ম আমাকে বন্দেমাতরম গাওয়ার সম্মতি দেয় না। তা ছাড়া ভারতের সংবিধানে কোথাও লেখা নেই আমাকে বন্দেমাতরম গাইতেই হবে। তারওপর সেদিন আমার ওপর যেভাবে হামলা হয়েছিল, তাতে আমার প্রাণও চলে যেতে পারত।’

তবে ওইদিনের ঘটনা প্রসঙ্গে বিহারের কাটিহার জেলার শিক্ষা কর্মকর্তা দীনেশ চন্দ্র দেব জানান, এই ধরনের ঘটনার কোনো অভিযোগ এখনো পাইনি। অভিযোগ পেলে অবশ্যই তদন্ত করে দেখা হবে।

অন্যদিকে এ ঘটনায় বিহারের শিক্ষামন্ত্রী কে এন প্রসাদ জানান, ভারতের জাতীয় সংগীতকে অপমান করার অধিকার কারোরই নেই। এ রকম কেউ করে থাকলে তাকে ক্ষমা করা হবে না।

এ বিষয়ে জানতে চাওয়া হয় আব্দুল্লাপুরের ছোটি মসজিদের ইমাম মাওলানা ইব্রাহিম খলিলুল্লাহর কাছে। তিনি গণমাধ্যমকে জানান, রাষ্ট্রের আইন সকল নাগরিকের জন্য সমান। কোনো রাষ্ট্রে বসবাস করতে হলে সেখানকার আইন ও বিধি বিধান মেনে চলা ধর্ম, বর্ণ, গোত্র নির্বিশেষে সবার দায়িত্ব। নইলে শৃঙ্খলা থাকে না। জাতীয় সঙ্গীত একটি রাষ্ট্রের মর্যাদার সাথে জড়িত। একে অস্বীকার করার কোনো উপায় নাই।

Spread the love
  • 7.6K
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
    7.6K
    Shares

এই ওয়েবসাইটের যাবতীয় লেখার বিষয়বস্তু, মতামত কিংবা মন্তব্য– লেখকের একান্তই নিজস্ব। somoyekhon.com-এর সম্পাদকীয় নীতির সঙ্গে এর মিল আছে, এমন সিদ্ধান্তে আসার কোনো যৌক্তিকতাই নেই। লেখকের মতামত, বক্তব্যের বিষয়বস্তু বা এর যথার্থতা নিয়ে somoyekhon.com আইনগত বা অন্য কোনো ধরনের কোনো প্রকার দায় বহন করে না।