লিভারপুলে ইহুদি ফুটবলারে সালাহর আপত্তি, ক্লাব ছাড়ার হুমকি!

0

স্পোর্টস ডেস্ক:

মুসলমান ও ইহুদিদের মধ্যকার হাজার বছর পুরনো সঙ্কট নিয়ে মিশর-ইসরায়েলের রাজনৈতিক দ্বন্দ্বের বয়সও দীর্ঘ দিন। ১৯৬৭ সালে দুই দেশ যুদ্ধেও জড়িয়েছিল। ইতিহাসে যা ‘দ্য সিক্স ডে ওয়ার’ নামে পরিচিত। ২০১৩ সালের পর থেকে দেশ দুটির সম্পর্কের কিছুটা উন্নয়ন ঘটলেও স্বাভাবিক হয়নি পরিস্থিতি। আর সেই দ্বন্দ্ব এবার ছড়িয়ে পড়েছে ফুটবল মাঠেও।

সুইজারল্যান্ডের ক্লাব বাসেলের হয়ে ২০১৩-১৪ মৌসুমে ইসরায়েলের দল মাকাবি তেল আবিবের বিপক্ষে খেলতে নেমেছিলেন মিশরের ফরোয়ার্ড মোহাম্মদ সালাহ। উয়েফা চ্যাম্পিয়নস লিগের ওই ম্যাচের প্রথম লেগে বুট পরার ‘বাহানায়’ এবং ফিরতি লেগে হাত মেলানোর সময় হাত বন্ধ করে কোনমতে প্রতিপক্ষের খেলোয়াড়দের হাতের সঙ্গে হাত স্পর্শ করে খেলা শুরু করেছিলেন। ওই ম্যাচে গ্যালারিতে থাকা তেল আবিবের দর্শকদের মুখেও অকথ্য ভাষা শুনতে হচ্ছিল। খেলোয়াড়রাও সুযোগ বুঝে তাকে আক্রমণ করছিলেন।

গত বছর লিভারপুলে যোগ দেন সালাহ। বেশ কয়েকদিন ধরেই গুঞ্জন ইসরায়েলের তারকা মোয়ানেস ডাবরকে দলে ভেড়াতে আগ্রহী সালাহর বর্তমান ক্লাব। বর্তমানে সুইজারল্যান্ডের ক্লাব গ্রাসহপারের হয়ে ধারে খেলছেন অস্ট্রিয়ান দল রেড বুল স্লাজবার্গের এই স্ট্রাইকার। যদিও এতে ‘আপত্তি’ আছে মোহাম্মদ সালাহর। এমনটাই জানাচ্ছে জেরুজালেম পোস্ট।

ইসরায়েলের প্রভাবশালী এই গণমাধ্যম জানায়, লিভারপুলের হয়ে গোল্ডেন শ্যু জেতা সালাহ ক্লাব কর্তৃপক্ষকে জানিয়ে দিয়েছেন, যদি মোয়ানেস ডাবরকে নেয়া হয়, তাহলে তিনি দলকে ‘বিদায়’ জানিয়ে দেবেন।

রোজা না রেখে খেলার কারনে সালাহকে শাস্তি দিয়েছেন আল্লাহ!

এ বছরের জুনের কথা। উয়েফা চ্যাম্পিয়ন্স লিগের ফাইনাল শেষ হওয়ার পর পেরিয়ে গেছে ৪ দিন। ওই ম্যাচে সার্জিও রামোসের করা ট্যাকলিংয়ে সালাহ কাঁধে চোট পাওয়া নিয়ে আলোচনা চলছিল। ঘটনাটি নিয়ে ফুটবল বোদ্ধা থেকে শুরু করে লিভারপুল ও মিশরের সমর্থকরা দুষেছেন রিয়াল মাদ্রিদের অধিনায়ককে। যদিও রিয়াল অধিনায়ক জানান, ওই ট্যাকলে তার কোনো দায় ছিল না।

তবুও রামোসের নামে মামলা হয়। আর এই ট্যাকলের নেপথ্যের ব্যক্তি হিসেবে দায়ী করা হয় রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিনকেও। তিনিই নাকি ষড়যন্ত্র করে ইনজুরিতে ফেলেছেন, যেন সালাহ ২০১৮ বিশ্বকাপ খেলতে না পারে। আরও কথা ওঠে, এসব কিছুই না, বরং রোজা না রেখে খেলতে নামাই দায়ী সালাহর ইনজুরির জন্য।

স্কাই নিউজের এক প্রতিবেদনে বলা হয়, ফিজিওথেরাপিস্টের পরামর্শে চ্যাম্পিয়ন্স লিগের ফাইনালের জন্য তিনদিন রোজা রাখেননি মিশরের এই তারকা ফুটবলার। এর জন্যই সালাহকে আল্লাহ শাস্তি দিয়েছেন। তাই তিনি ইনজুরিতে পড়েছেন। মুবারক আল বাথালি নামের এক ইসলাম প্রচারক এমনই অভিযোগ তুলেছেন।

Spread the love
  • 85
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
    85
    Shares

এই ওয়েবসাইটের যাবতীয় লেখার বিষয়বস্তু, মতামত কিংবা মন্তব্য– লেখকের একান্তই নিজস্ব। somoyekhon.com-এর সম্পাদকীয় নীতির সঙ্গে এর মিল আছে, এমন সিদ্ধান্তে আসার কোনো যৌক্তিকতাই নেই। লেখকের মতামত, বক্তব্যের বিষয়বস্তু বা এর যথার্থতা নিয়ে somoyekhon.com আইনগত বা অন্য কোনো ধরনের কোনো প্রকার দায় বহন করে না।