জোবায়দা নয়, বিএনপির ত্রাণকর্তা হিসেবে নামছেন সিঁথি!

0

সময় এখন ডেস্ক:

দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক) কর্তৃক দায়েরকৃত জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট এবং জিয়া চ্যারিটেবল ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলায় সাজাপ্রাপ্ত বিএনপি চেয়ারপারস বর্তমানে আইনি লড়াইয়ে হেরে গিয়ে কারাগারে রয়েছেন। এদিকে পাসপোর্ট সংক্রান্ত জটিলতার কারণে আপাতত ব্রিটেন থেকে ফিরতে পারছেন না তারেক রহমানের স্ত্রী জোবায়দা রহমান। কারন হিসেবে জানা গেছে, তারেক রহমানের মত ব্রিটিশ পাসপোর্ট পাওয়ার আশায় জোবায়দা রহমানও তাদের বাংলাদেশি পাসপোর্ট আর নবায়ন করেননি।

এ অবস্থায় খালেদা জিয়ার কনিষ্ঠ পুত্রবধূ শর্মিলা রহমান সিঁথিই বিএনপির নির্বাচনী প্রচারণায় অংশ নেবেন বলে সূত্র জানিয়েছে। যেহেতু সিঁথির নামে কোনও ফৌজদারি মামলা নেই, তাই তাকেই এই মূহুর্তে জিয়া পরিবারের পক্ষ থেকে একমাত্র প্রতিনিধি হিসেবে উপযুক্ত মনে করছে বিএনপি।

এরইমধ্যে সিঁথি বেশ কয়েকবার জেলখানায় বেগম খালেদা জিয়ার সঙ্গে দেখা করেছেন। বেগম খালেদা জিয়া তাকে নির্বাচনি প্রচারণায় অংশ নিতে বলেছেন।

বিএনপি চেয়ারপার্সন বেগম খালেদা জিয়ার উপদেষ্টা আহমেদ আযম জানান, শর্মিলা রহমান সিঁথি নির্বাচনি প্রচারণায় থাকবেন। তবে কোন কোন আসনে তিনি প্রচারণা করবেন তা এখনো ঠিক হয়নি।

জানা গেছে, কারাবন্দি বেগম খালেদা জিয়ার হয়ে পরিবারের পক্ষে ভোটারদের মাঝে মানবিক আবেদন জানাতে জোবায়দা রহমানকেই প্রচারে নামানোর ইচ্ছে ছিলো বিএনপি হাইকমান্ডের। এতে সম্মতিও ছিল তারেক রহমানের। কিন্তু ব্রিটেনে রাজনৈতিক আশ্রয়ে থাকার কারনে বর্তমানে তারেক এবং জোবায়দা কারোরই পাসপোর্ট হাতে নেই। তাই খালেদা জিয়ার সম্মতিতে শর্মিলা রহমান সিঁথিকেই নির্বাচনী প্রচারের ময়দানে নামানোর বিষয়টি চূড়ান্ত হয়।

জানা গেছে, এ বিষয়ে বিএনপি মহাসচিবসহ বেশ কয়েকজন সিনিয়র নেতার সঙ্গে বৈঠক করেছেন শর্মিলা রহমান সিঁথি। বিএনপির শীর্ষ নেতাদের কাছ থেকে এতদ সংক্রান্ত পরিকল্পনা বুঝে নিচ্ছেন তিনি।

সূত্র জানিয়েছে, ৮টি বিভাগীয় সমাবেশে দলের পক্ষে প্রচার কাজ চালাবেন। এজন্য জাতীয়তাবাদী ছাত্রদল এবং জাতীয়তাবাদী যুবদলের সমন্বয়ে একটি টিম গঠন করা হয়েছে। বিষয়টি যাতে ইতিবাচকভাবে দেখা হয়, সেজন্য ঐক্যফ্রন্ট নেতা ড. কামাল হোসেনকেও এ বিষয়ে অবগত করা হয়েছে।

Spread the love
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

এই ওয়েবসাইটের যাবতীয় লেখার বিষয়বস্তু, মতামত কিংবা মন্তব্য– লেখকের একান্তই নিজস্ব। somoyekhon.com-এর সম্পাদকীয় নীতির সঙ্গে এর মিল আছে, এমন সিদ্ধান্তে আসার কোনো যৌক্তিকতাই নেই। লেখকের মতামত, বক্তব্যের বিষয়বস্তু বা এর যথার্থতা নিয়ে somoyekhon.com আইনগত বা অন্য কোনো ধরনের কোনো প্রকার দায় বহন করে না।