পাকিস্থানে অপারেশন টেবিলেই অজ্ঞান নারীকে ডাক্তারদের গণধর্ষণ!

0

আন্তর্জাতিক ডেস্ক:

দীর্ঘদিন ধরে পাইলসের সমস্যা নিয়ে কষ্ট পাচ্ছিলেন এক নারী। অতঃপর তিনি সিদ্ধান্ত নেন অপারেশনের। পরীক্ষা নিরীক্ষা শেষে চিকিৎসকের পরামর্শ অনুযায়ী ভর্তি হন হাসপাতালে। তাকে নেয়া হয় অপারেশন থিয়েটারে। সেখানে কয়েক ঘণ্টা ধরে চিকিৎসকদের দ্বারা গণধর্ষণের শিকার হন ওই নারী। দেশের শীর্ষস্থানীয় একটি হাসপাতালে এই চাঞ্চল্যকর ঘটনাটি ঘটেছে।

ঘটনাসূত্রে জানা যায়, গত শুক্রবার ৩৫ বছর বয়সী ওই নারীকে লাহোরে অবস্থিত সার্ভিস হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। ভর্তি হওয়ার পর নিয়মানুযাযী তার অপারেশনের প্রক্রিয়া শুরু হয়। অপারেশন থিয়েটারে নিয়ে চিকিৎসকরা তাকে অ্যানেস্থেসিয়া দিয়ে অচেতন করেন। তারপর সেখানে কয়েক ঘণ্টা রাখা হয়। অপারেশনও করা হয় পাইলসের।

কিন্তু অপারেশনের পর জ্ঞান ফিরলে যৌনাঙ্গে তীব্র ব্যথার কারনে ওই নারী বুঝতে পারেন তিনি ওটি কক্ষেই চিকিৎসকদের দ্বারা ধর্ষণের শিকার হয়েছেন। পরে হাসপাতালে অস্ত্রপচারের সময় ধর্ষিত হয়েছেন বলে লাহোর পুলিশের কাছে অভিযোগ দায়ের করেন তিনি।

এক প্রত্যক্ষদর্শীর বর্ণনাও রয়েছে ওই অভিযোগে। ওই প্রত্যক্ষদর্শীও বলেছেন, দীর্ঘ ৮ ঘণ্টার অপারেশনের সময় নির্মমভাবে গণধর্ষণের শিকার হয়েছেন ওই নারী।

অভিযোগে ওই নারী বলেছেন, ‘আমি গত ২৪ নভেম্বর একটি অপারেশনের জন্য সার্ভিস হাসপাতাল ভর্তি হয়েছিলাম। অ্যানেস্থেসিয়া থেকে চেতনা ফিরে পাওয়ার পর আমি বুঝতে পারি যে, অস্ত্রপচারের সময় আমাকে যৌন নিপীড়ন করা হয়েছে।’

ধর্ষিতা বলেন, ‘এটা ছিল দীর্ঘ ৮ ঘণ্টার অপারেশন। কিন্তু হাসপাতাল থেকে আমাকে সেদিন সন্ধ্যায়ই ছেড়ে দেয়া হয়। পরে বাসায় ফেরার পর আমি শরীরের গোপনাঙ্গে রক্তক্ষরণ এবং ব্যথা অনুভব করি। রাতে আমার এক বোন শেখ জায়েদ হাসপাতালে নিয়ে যায় আমাকে। সেখানে চিকিৎসকরা পরীক্ষা-নিরীক্ষার পরে আমাকে নিশ্চিত করেন যে, আমি গণধর্ষিনের শিকার হয়েছি।’

হাসপাতালে অস্ত্রপচারের সময় ধর্ষণের এই অভিযোগ তদন্তে পাঞ্জাবের স্বাস্থ্যমন্ত্রী ডা. ইয়াসমিন রশিদ ৩ সদস্যের তদন্ত কমিটি গঠন করেছেন। ওই নারীর ডিএনএ সংগ্রহ করা হয়েছে এবং অভিযোগের তদন্ত চলছে।

সূত্র : ডেইলি মেইল‌

Spread the love
  • 2.1K
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
    2.1K
    Shares

এই ওয়েবসাইটের যাবতীয় লেখার বিষয়বস্তু, মতামত কিংবা মন্তব্য– লেখকের একান্তই নিজস্ব। somoyekhon.com-এর সম্পাদকীয় নীতির সঙ্গে এর মিল আছে, এমন সিদ্ধান্তে আসার কোনো যৌক্তিকতাই নেই। লেখকের মতামত, বক্তব্যের বিষয়বস্তু বা এর যথার্থতা নিয়ে somoyekhon.com আইনগত বা অন্য কোনো ধরনের কোনো প্রকার দায় বহন করে না।