আমজাদ হোসেনের মৃত্যুর খবরটি সত্যি নয়

0

বিনোদন ডেস্ক:

গুরুতর অসুস্থ নির্মাতা আমজাদ হোসেনের উন্নত চিকিৎসার জন্য বিদেশে পাঠানোর বিষয়ে পরিবারের সদস্য ও দায়িত্বরত চিকিৎসকদের সব রকমের প্রস্তুতির নির্দেশনা দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। গত ২৪ নভেম্বর রাতে এই নির্দেশনা দেওয়া হয় বলে জানা গেছে।

সেই অনুযায়ী ব্যাংকক যাত্রার প্রস্তুতি চলছে। আজ মঙ্গলবার যে কোনো সময় তাকে ব্যাংককে নিয়ে যাওয়া হতে পারে। তার শারীরিক অবস্থা পরীক্ষা-নিরীক্ষা করা হচ্ছে। এখন পুরো বিষয়টা চিকিৎসকরা তত্ত্বাবধান করছেন। এমন তথ্য আজ জানালেন ডিরেক্টরস গিল্ডের সাধারণ সম্পাদক ও আমজাদ হোসেনের শিষ্য এসএ হক অলিক।

এদিকে আমজাদ হোসেন মারা গেছেন বলে খবর ছড়িয়েছে। যা ভাইরাল হয়ে যায় সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে। এই বিষয়টিকে গুজব বলে মন্তব্য করেছেন অলিক। তিনি বলেন, এ ধরনের খবর কেন ছড়ানো হচ্ছে, আর কারা ছড়াচ্ছে জানি না। এই বিষয়টি নিয়ে আমরা খুবই বিব্রত। সবাইকে অনুরোধ করবো, গুজব ছড়াবেন না। এমনভাবে তাকে ও পরিবারকে কষ্ট দিবেন না।

সপ্তাহখানেক আগে মস্তিষ্কে রক্তক্ষরণ হওয়ায় ঢাকার তেজগাঁওয়ের ইমপালস হাসপাতালে ভর্তি করা হয় আমজাদ হোসেনকে। হাসপাতালে তাকে নিবিড় পরিচর্যা কেন্দ্রে (আইসিইউ) ভর্তি করা হয়। শুরু থেকেই তাকে কৃত্রিম উপায়ে শ্বাস-প্রশ্বাস দিয়ে বাঁচিয়ে রাখা হয়েছে। বাংলাদেশের বরেণ্য এই নির্মাতার শারীরিক অসুস্থতার খবর শুনে হাসপাতালে ভর্তির তিন দিনের মাথায় তার চিকিৎসার দায়িত্ব নেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

আমজাদ হোসেনের চিকিৎসার জন্য মোট ৪২ লাখ ৩৫ হাজার টাকা দেয়া হয়েছে প্রধানমন্ত্রীর পক্ষ থেকে। এরমধ্যে এয়ার অ্যাম্বুলেন্সে ব্যাংককে নিয়ে যাবার জন্য ২২ লাখ ৩৫ হাজার টাকা এবং চিকিৎসা ব্যয়ের জন্য ২০ লাখ টাকা।

গতকাল সোমবার চিকিৎসকের বরাতে জানা যায়, তিনি আশঙ্কামুক্ত নন, শারীরিক অবস্থার কিছুটা অবনতি হয়েছে।

প্রসঙ্গত, বিএনপির অঙ্গ সংগঠন জিয়া সাংস্কৃতিক সংগঠন (জিসাস) এর একজন প্রভাবশালী নেতা আমজাদ হোসেন ব্যক্তিগত জীবনে বিএনপির রাজনীতির সাথে জড়িত শুরু থেকেই। বিএনপির বিভিন্ন সামাজিক ও সাংস্কৃতিক কর্মকাণ্ডে তিনি ছিলেন প্রথম সারিতে। কিন্তু তার রাজনৈতিক পক্ষ বিবেচনা পায়নি প্রধানমন্ত্রীর সহযোগিতা প্রাপ্তির ক্ষেত্রে। শেখ হাসিনাকে যারা কাছ থেকে চেনেন, তাঁর এই মানবিক দিকটি তাদের অজানা নয়। তিনি কারো রাজনৈতিক অবস্থানকে প্রাধান্য দেন না সহযোগিতার ক্ষেত্রে। কিছুদিন আগে গণভবনে সংলাপ চলাকালীন সময়ে বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরের স্বাস্থ্য এবং চিকিৎসা সম্পর্কে জানতে চান সরাসরি। একইসাথে তাকে জানান, যদি দেশের বাইরে গিয়ে চিকিৎসা করাতে হয়, তিনি (শেখ হাসিনা) যথাসম্ভব সব ধরনের সহযোগিতা দেবেন।

পরিবারসূত্রে জানা যায়, গত রোববার গণমাধ্যমে আমজাদ হোসেনকে নিয়ে সংবাদ হয় দেশের শীর্ষ কিছু সংবাদমাধ্যমে, যা চোখ এড়ায়নি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার। আর তাই তিনি নিজ থেকে আমজাদ হোসেনের ছেলেদের ডেকে পাঠান তার সঙ্গে দেখা করতে। সেই সাথে চিকিৎসার দায়িত্ব নেয়ার বিষয়টি তাদের জানিয়ে দেন।

Spread the love
  • 179
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
    179
    Shares

এই ওয়েবসাইটের যাবতীয় লেখার বিষয়বস্তু, মতামত কিংবা মন্তব্য– লেখকের একান্তই নিজস্ব। somoyekhon.com-এর সম্পাদকীয় নীতির সঙ্গে এর মিল আছে, এমন সিদ্ধান্তে আসার কোনো যৌক্তিকতাই নেই। লেখকের মতামত, বক্তব্যের বিষয়বস্তু বা এর যথার্থতা নিয়ে somoyekhon.com আইনগত বা অন্য কোনো ধরনের কোনো প্রকার দায় বহন করে না।