দেশি বিজ্ঞানীদের আরেকটি সাফল্য- ব্ল্যাক বেঙ্গল ছাগলের জীবনরহস্য উন্মোচন

0

বিজ্ঞান ও তথ্য প্রযুক্তি ডেস্ক:

পাট, মহিষ ও ইলিশের পর এবার ব্ল্যাক বেঙ্গল জাতের ছাগলের জীবনরহস্য বা জিন নকশা (জিনোম সিকোয়েন্স) উন্মোচন করেছেন বাংলাদেশের একদল বিজ্ঞানী।

বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয় (বাকৃবি) এবং বাংলাদেশ প্রাণিসম্পদ গবেষণা ইন্সটিটিউটের (বিএলআরআই) গবেষকরা এ সফলতা পেলেন। মঙ্গলবার কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে বাকৃবির ভারপ্রাপ্ত ভিসি অধ্যাপক ড. মো. জসিমউদ্দিন খান আনুষ্ঠানিকভাবে ছাগলের জিনোম সিকোয়েন্সিংয়ের ঘোষণা দেন।

বিশ্ববিদ্যালয়ের পশু প্রজনন ও কৌলিবিজ্ঞান বিভাগের অধ্যাপক ড. এমএএম ইয়াহিয়া খন্দকারের নেতৃত্বে গবেষক দল ছাগলের জীবনরহস্য উন্মোচন করেন। গবেষক দলের অন্য সদস্যরা হলেন- পোল্ট্রিবিজ্ঞান বিভাগের অধ্যাপক ড. মো. বজলুর রহমান মোল্লা, পশু প্রজনন ও কৌলিবিজ্ঞান বিভাগের অধ্যাপক ড. মো. সামছুল আলম ভূঞা, বিএলআরআইয়ের প্রধান বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা ড. আব্দুল জলিল, ঊর্ধ্বতন বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা ড. গৌতম কুমার দেব, বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা মো. পণির চৌধুরী ও নূরে হাছনি দিশা।

প্রধান গবেষক ড. ইয়াহিয়া খন্দকার বলেন, ছাগলের জীবনরহস্য উন্মোচনের ফলে এখন এর খাদ্যাভাস, শারীরিক গঠন, চামড়া ও প্রজননসহ বিভিন্ন বিষয়ের ওপর গবেষণার দ্বার উম্মোচিত হল। ভবিষ্যতে কেউ গবেষণা করতে চাইলে এই জিনোম সিকোয়েন্সিং অনেক কাজে লাগবে।

গবেষক ড. মো. বজলুর রহমান বলেন, এর মাধ্যমে ছাগলের ওজন বৃদ্ধি, দুধ ও বাচ্চা উৎপাদন, রোগ প্রতিরোধ এবং মাংসের গঠন সংক্রান্ত জিন আবিষ্কার করা সহজ হবে। সহজেই ছাগলের মোট জিনের সংখ্যা, গঠন ও কার্যাবলী নিরূপণ করা যাবে।

ছাগলের জিনোমে গবেষকরা প্রায় ২.৯ গিগা বেজ নিউক্লিওটাইড পেয়েছেন। এর মাইটোকন্ড্রিয়াল জিনোম সাইজ ১৬ হাজার ৬৪০টি নিউক্লিউটাইড। এতে ৩৭টি জিন রয়েছে।

পূর্ণাঙ্গ সিকোয়েন্স এনালাইসিস করে ২৬ লাখ ৫ হাজার ৩০০টি সিঙ্গেল নিউক্লিউটাইড পলিমরফিজম (এসএনপি) পাওয়া গেছে। বর্তমানে পূর্ণাঙ্গ জিনোম সিকোয়েন্স বিশ্লেষণ করে ব্ল্যাক বেঙ্গল ছাগলের জিনোমের জিনের সংখ্যা ও গঠন জানার কাজ অব্যাহত রয়েছে। জিনোম হল কোনো প্রজাতি বা জীবের মোট নিউক্লিওটাইডের সমষ্টি। জানা গেছে, বাংলাদেশে মোট ছাগলের ৯০ ভাগই ব্ল্যাক বেঙ্গল জাতের।

Spread the love
  • 38
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
    38
    Shares

এই ওয়েবসাইটের যাবতীয় লেখার বিষয়বস্তু, মতামত কিংবা মন্তব্য– লেখকের একান্তই নিজস্ব। somoyekhon.com-এর সম্পাদকীয় নীতির সঙ্গে এর মিল আছে, এমন সিদ্ধান্তে আসার কোনো যৌক্তিকতাই নেই। লেখকের মতামত, বক্তব্যের বিষয়বস্তু বা এর যথার্থতা নিয়ে somoyekhon.com আইনগত বা অন্য কোনো ধরনের কোনো প্রকার দায় বহন করে না।