২ ঘণ্টায় ঢাকা-চট্টগ্রাম এখন আর স্বপ্ন নয়

0

সময় এখন ডেস্ক:

ব্যবসায় অথবা খুব গুরুত্বপূর্ণ কোনো কাজে কাউকে ঢাকা চট্টগ্রাম যাতায়াত করতে সড়ক পথ ব্যবহার করতে হলে প্রথমেই যে বিষয়টি মাথায় আসে, তা হল- সময়। সবার পক্ষে হয়তো আকাশ পথ ব্যবহার করা সম্ভব নাও হতে পারে। কিন্তু সড়কপথে এতটা সময় লাগে যে, খুব জরুরী কাজ ভেস্তেও যেতে পারে। এমন অবস্থায় সরকার বিকল্প আরেকটি বিষয় নিয়ে ভাবছিলো দীর্ঘদিন। উপায়ও এসে গেছে।

সরকার ঢাকা-চট্টগ্রাম ভায়া লাকসাম হাইস্পিড ট্রেন নির্মাণ প্রকল্পের নীতিগত অনুমোদন দিয়েছে। প্রকল্পটি বাস্তবায়নে গতকাল চায়না রেলওয়ে কনস্ট্রাকশন কর্পোরেশন (ইন্টারন্যাশনাল) লিমিটেডের সঙ্গে সমঝোতা স্মারক (এমওইউ) স্বাক্ষরিত হয়েছে। প্রকল্পটি চীনের সাথে জি-টু-জি পদ্ধতিতে অগ্রাধিকার ভিত্তিতে বাস্তবায়িত হবে।

ঢাকা-চট্টগ্রাম ভায়া লাকসাম হাইস্পিড ট্রেন চালু জনগণের অনেক দিনের দাবি ছিল। ট্রেন লাইনটি চালু হলে ঢাকা-চট্টগ্রাম যাতায়াত সুবিধাসহ ব্যবসা-বাণিজ্যের প্রসার ও দেশের অর্থনীতির নানামুখী উন্নয়ন সাধিত হবে। ঢাকা-চট্টগ্রাম ভ্রমণের সময় ৫/৬ ঘন্টা থেকে ২ ঘন্টার নিচে নেমে আসবে। এই হাইস্পিড ট্রেন দেশের সামগ্রিক অর্থনৈতিক উন্নয়নে নতুন মাত্রা যোগ করবে।

চুক্তি স্বাক্ষর অনুষ্ঠানে জানানো হয়, দেশের অর্থনৈতিক কার্যক্রমে রাজধানী ঢাকা ও বাণিজ্যিক নগরী চট্টগ্রামসহ বিভাগীয় শহরগুলো বিশেষ ভূমিকা পালন করছে এবং বিভাগীয় শহরগুলোর অর্থনৈতিক গুরুত্ব ক্রমান্বয়ে বাড়ছে। সম্প্রতি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা রাজধানী ঢাকার সঙ্গে দেশের সকল বিভাগীয় শহরের হাইস্পিড ট্রেন চালুর ঘোষণা দেন। তারই অংশ হিসেবে প্রথম পর্যায়ে ঢাকা-চট্টগ্রাম ভায়া লাকসাম হাইস্পিড ট্রেন চালু বর্তমান সরকারের উন্নয়নমুখী চিন্তার ফসল।

বাংলাদেশ রেলওয়ের পক্ষে সমঝোতায় স্বাক্ষর করেন রেলের চিফ প্ল্যানিং অফিসার মো. আনোয়ারুল হক এবং চায়না রেলওয়ে কন্সট্রাকশন কর্পোরেশনের পক্ষে স্বাক্ষর করেন কর্পোরেশনের ভাইস প্রেসিডেন্ট ইয়া জিন জুন। এ সময় রেলপথমন্ত্রী মুজিবুল হক, রেল সচিব মো. মোফাজ্জল হোসেন এবং রেলওয়ের মহাপরিচালক কাজী মো. রফিকুল আলম ও চায়না রেলওয়ে কর্পোরেশনের চেয়ারম্যান ঝু লেই উপস্থিত ছিলেন।

Spread the love
  • 10
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
    10
    Shares

এই ওয়েবসাইটের যাবতীয় লেখার বিষয়বস্তু, মতামত কিংবা মন্তব্য– লেখকের একান্তই নিজস্ব। somoyekhon.com-এর সম্পাদকীয় নীতির সঙ্গে এর মিল আছে, এমন সিদ্ধান্তে আসার কোনো যৌক্তিকতাই নেই। লেখকের মতামত, বক্তব্যের বিষয়বস্তু বা এর যথার্থতা নিয়ে somoyekhon.com আইনগত বা অন্য কোনো ধরনের কোনো প্রকার দায় বহন করে না।