দিনাজপুর শিক্ষাবোর্ডে ইংরেজিতেই ফেল করেছে ৩৯ হাজার ৪৬৫ জন!

0

দিনাজপুর সংবাদদাতা:

এইচএসসি ও সমমান পরীক্ষার ফল প্রকাশিত হয়েছে গতকাল। গত দুই বছরের তুলনায় এবার ফলাফল সন্তোষজনক নয়। পাশের হারে দেখা দিয়েছে অবনমন। এ বছর যেখানে ১০টি শিক্ষাবোর্ডে গড় পাশের হার ৬৬.৬৪%, সেখানে গত বছর পাশ করেছিল ৬৮.৯১% শিক্ষার্থী। আর ২০১৬ সালে ১০টি বোর্ডে পাশের হার ছিল ৭৪.৭০% যা এ বছরের তুলনায় প্রায় ১০% বেশি।

এবারের ফলাফল বিশ্লেষণ করে দেখা গেছে ইংরেজিতে অকৃতকার্যের সংখ্যা প্রচুর। দিনাজপুর শিক্ষাবোর্ডে চলতি বছর এইচএসসি পরীক্ষায় ফেল করেছে ৪৭ হাজার ৫৫৬ শিক্ষার্থী। এর মধ্যে শুধু ইংরেজিতেই ফেল করেছে ৩৯ হাজার ৪৬৫ জন। দিনাজপুর শিক্ষাবোর্ড কর্তৃপক্ষ বলছে, ইংরেজিতে অধিকাংশ পরীক্ষার্থী ফেল করার কারণেই এবার পরীক্ষায় ফল বিপর্যয় হয়েছে।

চলতি এইচএসসি পরীক্ষা দিনাজপুর শিক্ষাবোর্ড থেকে অংশ নেয় লাখ ১৯ হাজার ৫০৭ পরীক্ষার্থী। যার মধ্যে পাস করেছে ৭১ হাজার ৯৫১ জন এবং ফেল করেছে ৪৭ হাজার ৫৫৬ জন। অকৃতকার্য পরীক্ষার্থীদের মধ্যে শুধু ইংরেজিতেই ফেল করেছে ৩৯ হাজার ৪৬৫ জন। আর বাংলায় ফেল করেছে ৪ হাজার ৬২৪ জন। মোট ফেল করা ৪৭ হাজার ৫৫৬ শিক্ষার্থীর মধ্যে এক বিষয়ে ফেল করেছে ২৮ হাজার ৮৮২ জন এবং দুই বিষয়ে ফেল করেছে ১২ হাজার ২০৮ জন। বাকিরা ফেল করেছে দুইয়ের অধিক বিষয়ে।

দিনাজপুর শিক্ষাবোর্ডের পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক মো. তোফাজ্জুর রহমান জানান, ইংরেজিতে এবার অধিকসংখ্যক পরীক্ষার্থী ফেল করার কারণে পাসের হার কমেছে। তিনি বলেন, অভিন্ন প্রশ্নপত্রে পরীক্ষা হওয়ার কথা থাকলেও দিনাজপুর শিক্ষাবোর্ডে ইংরেজি বিষয়ে পরীক্ষা হয়েছে ভিন্ন সেটে। আর তুলনামূলক এই সেটের প্রশ্নপত্রটি ছিল কঠিন। এ কারণেই ইংরেজির ফল খারাপ হয়েছে। এবার প্রশ্নপত্র ফাঁস না হওয়ায় কোচিংনির্ভর পরীক্ষার্থীরা বেশি ফল খারাপ করেছে বলেও জানান তিনি।

দিনাজপুর শিক্ষাবোর্ডের এই পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক বলেন, আগামীতে ইংরেজিতে যাতে ফল খারাপ না হয়, সে জন্য শিক্ষকদের নিয়ে কর্মশালা করা হবে। এ ছাড়া যে ১২টি কলেজ থেকে একজন পরীক্ষার্থীও পাস করতে পারেনি এবং যেসব কলেজে ৩০ শতাংশের কম পাস করেছে তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়ার কথা জানান তিনি।

Spread the love
  • 117
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
    117
    Shares

এই ওয়েবসাইটের যাবতীয় লেখার বিষয়বস্তু, মতামত কিংবা মন্তব্য– লেখকের একান্তই নিজস্ব। somoyekhon.com-এর সম্পাদকীয় নীতির সঙ্গে এর মিল আছে, এমন সিদ্ধান্তে আসার কোনো যৌক্তিকতাই নেই। লেখকের মতামত, বক্তব্যের বিষয়বস্তু বা এর যথার্থতা নিয়ে somoyekhon.com আইনগত বা অন্য কোনো ধরনের কোনো প্রকার দায় বহন করে না।