ওদের বেতন বাড়ান, নিরাপত্তাও নিশ্চিত করুন

0

।। এম আর ফারজানা ।।

আমাদের সমাজে মেয়েরা পিছিয়ে নেই, বরং আমরা তাদের পিছিয়ে দেই। আমরা বৈষম্য তৈরী করি। সালমারা বাসে করে যায়, অনলাইনে প্রতিবাদ হওয়াতে এখন মাইক্রোবাস দেয়া হয়েছে। প্রশ্ন হচ্ছে- প্রথমে মাইক্রোবাস দেয়া হয়নি কেন? তাদের কি যাত্রাপথে নিরাপত্তা দরকার নেই? যোগ্যতার দিক থেকে তারা কম কিসে?

বাংলার বাঘিনীদের জন্য ২ কোটি টাকা পুরস্কার ঘোষণা করেছিল বিসিবি। ১৫ খেলোয়াড় পাবেন ১০ লাখ করে। বাকি ৫০ লাখ পাবে টিম ম্যানেজমেন্ট, কোচিং স্টাফ ও যে ক’জন তুলনামূলক বেশি ভালো খেলেছেন। শুনলাম, মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা নাকি মেয়েদের হাতে টাকাটা তুলে দেবেন। এটা অবশ্যই মেয়ে গুলোর প্রাপ্য। প্রশ্ন হচ্ছে এই টাকা তো পুরস্কার, কিন্তু তাদের ম্যাচ ফি কি বাড়ানো হবে? তাদের পারিকশ্রমিক কি বাড়ানো হবে?

শুধু পুরষ্কার না, তাদের নিরাপত্তাও নিশ্চিত করুন। পাশাপাশি তাদের সন্মানিও বাড়ান। এবং যথাপোযুক্ত প্রশিক্ষণ যেন চলমান থাকে এর দাবি জানাই।

আমাদের সমাজে মেয়েরা লাঞ্ছিত হলে অনেক সময় সমাজিকতার ভয়ে মুখ খোলে না। ভাবে হেনস্তা হবে আরো বেশী তাই তারা চেপে যায়। বাংলার বাঘিনীদের ক্ষেত্রে যেন এরকম না হয়। কারন এই সমাজে মেয়েদের এগিয়ে যাওয়া পছন্দ করে না, বিশেষ করে মোল্লারা, ফাতোয়ার হাতিয়ার নিয়ে বসে থাকে। সুযোগ খুঁজতে থাকে কখন কীভাবে ফাতোয়ার চাবুকে আঘাত করা যায়।

রুমানারা, সালমারা একদিনে উঠে আসেনি। তাদের কী পরিমাণ চেষ্টা করতে হয়েছে এই সমাজের প্রতিবন্ধকতা ঠেলে সামনে আসতে, সেটা তারাই ভালোভাবে জানে। ভারতের মত দলকে হারানো এত সহজ ছিল না। কিন্তু আত্মপ্রত্যয়, চর্চা, মনোবল তাদের এগিয়ে নিয়ে গেছে। বাংলার ক্রিকেটার তারা। এই মানচিত্রকে সসম্মানে তারাই এগিয়ে নিয়ে যাবে।

যারা ফাতোয়া দেয়, যারা হাজার হাজার টাকা লুটপাট করে, তারা আসলে দেশকে পিছিয়ে দেয়। তাদের চেয়ে এই মেয়েগুলোই দেশকে এগিয়ে নিয়ে যাবে অনেকদূর। তাদের দরকার প্রশিক্ষণ। ভালো হয়, যদি সুন্দর বাংলার পাশাপাশি ইংরেজিটাও শিখে। ইংরেজি শিখতে হবে এমন বাধ্যতামূলক নয়। তবে জানা থাকলে ভালো। যখন তাদের বিরুদ্ধে বিদেশে অযাচিতভাবে কেউ হেনস্তা করবে, তখন ইংরেজী জানা থাকলে সাথে সাথে সেটার প্রতিবাদ করে দৃষ্টিআকর্ষণ করতে পারবে বিশ্ববাসীর কাছে।

তাদের নিরাপত্তা এবং সম্মান খুব দরকার। কারন এই সমাজেই তারা বাস করবে। সমাজের মানুষগুলো কেমন- বর্তমানে তা আমরা অনলাইনে দেখি। অতি বিপ্লবীরা তাদের বিবেকের ঝাণ্ডা উড়িয়ে এই মেয়েগুলোকে অপমান করতে দ্বিধা করবে না যদি খারাপ খেলে।

তাই তাদের অর্থনৈতিক ভিত্তিটা যেমন মজবুত হওয়া দরকার, তেমনি পাশাপাশি নিরাপত্তাও দরকার। এই সালমাদের দেখাদেখি অনেক মেয়ে অনুপ্রাণিত হবে, এগিয়ে আসবে। একটা দেশ এগিয়ে যায় যখন পুরুষের পাশাপাশি নারীরাও সমানভাবে সুযোগ পায়। সালমারা এই পথটা দেখিয়ে দিয়েছে। ভবিষ্যতে আরো অনেক মেয়ে এগিয়ে আসবে। বাংলার মাঠে-ঘাটে প্রচুর মেয়ে আছে যারা তাদের পরিবারের মানুষগুলোকে বুঝাতে পারেনা যে, খেলায় এখন আর মেয়েরা পিছিয়ে নেই।

সালমারাই হবে অনুপ্রেরণা দিকপাল। তাই তাদের প্রাপ্যটুকু তাদের দিন। বেতন বাড়ান সেই সাথে নিরাপত্তাও নিশ্চিত করুন।

ভালো থাকুক বাঘিনীরা, সামনে এগিয়ে যাক সফলতার সাথে এই কামনা করি। শুভেচ্ছা বাংলার ক্রিকেটারদের জন্য।

নিউজার্সি, যুক্তরাষ্ট্র থেকে
২০ জুন ২০১৮

Spread the love
  • 114
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
    114
    Shares

এই ওয়েবসাইটের যাবতীয় লেখার বিষয়বস্তু, মতামত কিংবা মন্তব্য– লেখকের একান্তই নিজস্ব। somoyekhon.com-এর সম্পাদকীয় নীতির সঙ্গে এর মিল আছে, এমন সিদ্ধান্তে আসার কোনো যৌক্তিকতাই নেই। লেখকের মতামত, বক্তব্যের বিষয়বস্তু বা এর যথার্থতা নিয়ে somoyekhon.com আইনগত বা অন্য কোনো ধরনের কোনো প্রকার দায় বহন করে না।