কোটা আন্দোলনের ৩ নেতাকে মাইক্রোবাসে ‘তুলে নেয়ার’ অভিযোগ

0

সময় এখন ডেস্ক:

সরকারি চাকরির ক্ষেত্রে বিদ্যমান কোটা প্রথা সংস্কারের দাবি নিয়ে আন্দোলনে নামা সংগঠনের তিন নেতাকে সাদা পোশাকে মাইক্রোবাসে তুলে নেয়ার অভিযোগ করছেন সংগঠনের নেতারা। তাদের অভিযোগ, বেলা দেড়টার দিকে আন্দোলনকারী সংগঠন ‘বাংলাদেশ সাধারণ ছাত্র অধিকার সংরক্ষণ পরিষদের’ তিন যুগ্ম আহ্বায়ক রাশেদ খাঁন, ফারুক হাসান, নুরুল হক নূরকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের সামনে থেকে একটি সাদা মাইক্রোবাসে তুলে নেয়া হয়েছে।

‘বাংলাদেশ সাধারণ ছাত্র অধিকার সংরক্ষণ পরিষদের’ যুগ্ম আহ্বায়ক বিন ইয়ামিন জানান, গত ৮ এপ্রিল পুলিশের সঙ্গে সংঘর্ষে আহতদের দেখতে তারা ঢাকা মেডিকেলে গিয়েছিলেন। সেখান থেকে ফেরার পথে এই ঘটনা ঘটে।

বিন ইয়ামিন বলেন, ‘আমরা ছিলাম পেছনের রিকশায়। আর ওরা (রাশেদ, ফারুক ও নুরুল) ছিল সামনের রিকশায়। হঠাৎ সাদা রঙের একটি মাইক্রোবাস থেকে বের হয়ে তাদের কলার ধরে রিকশা থেকে নামিয়ে মাইক্রোবাসে তুলে। যারা টেনে নিয়ে গেছে, তাদের একজনের গায়ে লাল পোশাক ছিল।’

আরও পড়ুন  রোহিঙ্গাদের নিয়ে ট্রাম্পের সাথে প্রধানমন্ত্রীর কী কথা হয়েছিলো?

বিন ইয়ামিনের এই অভিযোগের বিষয়ে জানতে চাইলে ঢাকা মহানগর গোয়েন্দা পুলিশ রমনা অঞ্চলের সহকারী কমিশনার শামসুল আরেফিন বলেন, ‘আমাদের কোন টিম ধরে নাই, অন্য কেউ ধরেছে কি না জানি না।’

রমনা অঞ্চলের উপ-কমিশনার মারুফ হোসেন সরদারও বলেন, ‘আমরা ধরি নাই, কেউ মিসিং হয়েছে, এমন কোনো অভিযোগও আমরা পাইনি।’

পড়ুন: জিজ্ঞাসাবাদ শেষে কোটা সংস্কারবাদী নেতাদেরকে ছেড়ে দেয়া হয়েছে (ভিডিও)

শাহবাগ থানায় ফোন করা হলে ডিউটি অফিসার উপপরিদর্শক মশিউর বলেন, ‘এ ব্যাপারে কোনো কিছু এখনও আমরা জানতে পারিনি। আরেকজন ফোনে থানায় জানালেন। তবে থানায় এখনও কোনো অভিযোগ আসেনি।’

উল্লেখ্য, গত ৮ এপ্রিল শুরু হওয়া আন্দোলন প্রধানমন্ত্রীর ঘোষণার পর স্থগিত হয় ১২ এপ্রিল। আন্দোলনরত শিক্ষার্থীরা তাদের ৬টি দাবি তুলে ধরে আন্দোলন স্থগিত করে। তাদের দাবিগুলো-

আরও পড়ুন  পথশিশুদের ফুল বিক্রির টাকা ছিনিয়ে আইসক্রিম খেল পুলিশ!

১. প্রধানমন্ত্রীর ঘোষণা গেজেট হিসেবে প্রকাশ করে দ্রুত বাস্তবায়ন করতে হবে।
২. সারাদেশে গ্রেপ্তার হওয়া শিক্ষার্থীদের নিঃশর্ত মুক্তি।
৩. আন্দোলনে পুলিশি নির্যাতনের শিকার শিক্ষার্থীদের সুচিকিৎসার ব্যয়ভার বহন করতে দ্রুত আন্দোলনকারীদের সঙ্গে যোগাযোগ করা।
৪. অজ্ঞাতদের আসামি করে ঢাবি ও পুলিশ প্রশাসনের করা পাঁচটি মামলা অবিলম্বে প্রত্যাহার।
৫. আন্দোলনে অংশগ্রহণকারী শিক্ষার্থী ও নেতাদের যাতে পরবর্তীতে হয়রানি করা না হয়।
৬. আন্দোলনে অংশ নেওয়া সব শিক্ষার্থীর যৌক্তির দাবিতে সহমত পোষণ করা সব শিক্ষক, সাংবাদিক ও বুদ্ধিজীবীদের ধন্যবাদ জ্ঞাপন।

Spread the love
  • 97
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
    97
    Shares

এই ওয়েবসাইটের যাবতীয় লেখার বিষয়বস্তু, মতামত কিংবা মন্তব্য– লেখকের একান্তই নিজস্ব। somoyekhon.com-এর সম্পাদকীয় নীতির সঙ্গে এর মিল আছে, এমন সিদ্ধান্তে আসার কোনো যৌক্তিকতাই নেই। লেখকের মতামত, বক্তব্যের বিষয়বস্তু বা এর যথার্থতা নিয়ে somoyekhon.com আইনগত বা অন্য কোনো ধরনের কোনো প্রকার দায় বহন করে না।