বাংলাদেশের গরু জবাইয়ের ছবি নিয়ে বিজেপি নেতার কেরামতি!

0

বাংলাদেশে ঈদুল আজহার সময় গরু জবাই করার একটি ছবিকে কেরালার দাবি করে তা সোশ্যাল মিডিয়ায় পোস্ট করেছেন রাজ্য বিজেপি মহাসচিব কে সুরেন্দ্র।

গত বছরের বাংলাদেশের ছবিটিকে ফটোশপে কাটছাঁট করে প্রকাশ করে উত্তেজনা ছড়ানোর চেষ্টা করায় ব্যাপক ক্ষোভের মুখে পড়েছেন বিজেপির এই নেতা।

ভারতীয় গণমাধ্যম আউটলুক ইন্ডিয়ার খবরে বলা হয়, বিজেপি নেতা সুরেন্দ্র যে ছবিটি পোস্ট করেছেনে গুগলে সার্চ দিলে দেখা যায় ছবিটি ঈদের সময় বাংলাদেশের গরু জবাই করার দৃশ্য।

সুরেন্দ্র সেই ছবিটিতে থাকা বাংলায় লেখা দোকানের সাইনবোর্ড কাটছাঁট করে প্রকাশ করেন এবং লোকজনকে কুর্তা-পায়জামা পরিহিত অবস্থায় দেখান।

বিজেপি নেতা তার পোস্টে দাবি করেন, রাজ্যে ব্যাপকভাবে প্রকাশ্য স্থানে অবৈধ গরু জবাইয়ের ঘটনা ঘটছে।

তার পোস্ট করা ছবিতে দেখা যায়, চারদিকে ছড়ানো রক্তের ওপর জবাই করা গরু পড়ে আছে। এটাকে তিনি উত্তেজক ও অসহনীয় বলে উল্লেখ করেন। বলেন, ‘অনেকেই এ ঘটনায় উত্তেজিত হবে।’

এদিকে, ছবি নিয়ে কেরামতি করায় সোশ্যাল মিডিয়ায় কঠোর সমালোচনার মুখে পড়েছেন এই বিজেপি নেতা।


ছবি: বিজেপি নেতা সুরেন্দ্র

ছবির ঘটনা কেরালায় ঘটেছে মানুষের মাঝে এমন একটি অনুভূতি তৈরি করে মানুষের আবেগকে উস্কে দিচ্ছেন বলে অভিযোগ উঠেছে।

ব্রিটিশ গণমাধ্যম গার্ডিয়ানের প্রতিবেদনে দেখা যায়, সুরেন্দ্রর ছবিটি গত বছর বাংলাদেশে ঈদুল আজহা উদযাপনের সময় জবাই করা পশুর দৃশ্য। এতে দেখা যায় ঢাকায় বৃষ্টির পানির সঙ্গে রক্ত মিশে লাল পানি প্রবাহিত হচ্ছে।

এর আগে কেরালার রাজ্য বিজেপি প্রধান কুম্মানাম রাজাসেখারান একটি ভিডিও পোস্ট করে বিতর্ক ছড়ানোর চেষ্টা করেন।

ওই ভিডিওতে দেখা যায়, রাস্তায় কিছু মানুষ নাচানাচি করছেন। এতে দাবি করা হয়, নাচানাচি করা ব্যক্তিরা সিপিআই (এম) কর্মী। তারা বিজেপির এক কর্মীর খুন উদযাপন করছেন।

এ ঘটনার পর পুলিশ রাজাসেখারানের বিরুদ্ধে একটি মামলা দায়ের করেন।

উল্লেখ্য, ভারতের কেন্দ্রীয় সরকারের এক নির্দেশের প্রতিবাদ করতে গিয়ে কেরালার যুব কংগ্রেস কর্মীরা প্রকাশ্য সড়কে গরু জবাই করায় ৩ সদস্যকে যুব কংগ্রেস থেকে বহিষ্কার করা হয়েছে।

ওই ঘটনায় পুলিশ ১৬ যুব কংগ্রেস কর্মীকে গ্রেফতার করেছে।

পশুহাটে জবাই করার জন্য গবাদি পশু বিক্রির ওপর নিষেধাজ্ঞা জারির প্রতিবাদে কেরালার যুব কংগ্রেস নেতা রিজিল মাকুট্টির নেতৃত্বে কান্নুরে বিক্ষোভ দেখান দলের কর্মীরা।

শনিবার দুপুরে রাস্তার মাঝখানে ‘যুব কংগ্রেস জিন্দাবাদ’ স্লোগান দিয়ে সকলে মিলে একটি গরু জবাই করেন। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে এ সংক্রান্ত ভিডিও ছড়িয়ে পড়তেই তীব্র বিতর্ক সৃষ্টি হয়।

প্রকাশ্য দিবালোকে নৃশংসভাবে গো-হত্যা করা হয়েছে দাবি করে যুব কংগ্রেস নেতাদের বিরুদ্ধে থানায় অভিযোগ জানান স্থানীয় এক বিজেপি নেতা।

তারপরেই পুলিশ প্রশাসন সক্রিয় হয় এবং মামলা দায়ের হয়। দোষী সাব্যস্ত হলে এক বছরের কারাবাস ও জরিমানা হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে।

বিভিন্ন মহলে তীব্র বিতর্ক সৃষ্টির পরিপ্রেক্ষিতে কংগ্রেসের ভাইস-প্রেসিডেন্ট রাহুল গান্ধী যুব কংগ্রেস কর্মীদের হঠকারিতার নিন্দা করে বলেন, ‘কেরালায় যা ঘটেছে, তা যুক্তিহীন ও বর্বরোচিত। দল ওই ঘটনাকে কখনোই সমর্থন করে না।’

Spread the love
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

এই ওয়েবসাইটের যাবতীয় লেখার বিষয়বস্তু, মতামত কিংবা মন্তব্য– লেখকের একান্তই নিজস্ব। somoyekhon.com-এর সম্পাদকীয় নীতির সঙ্গে এর মিল আছে, এমন সিদ্ধান্তে আসার কোনো যৌক্তিকতাই নেই। লেখকের মতামত, বক্তব্যের বিষয়বস্তু বা এর যথার্থতা নিয়ে somoyekhon.com আইনগত বা অন্য কোনো ধরনের কোনো প্রকার দায় বহন করে না।