চোখ টিপ ইসলামে হারাম- প্রিয়ার বিরুদ্ধে সুপ্রিম কোর্টে অভিযোগ

0

বিনোদন ডেস্ক:

ভারতের হায়দারাবাদের ‘চোখ টিপ মারা ইসলামে হারাম’ এ যুক্তি দেখিয়ে মালায়ালাম অভিনেত্রী প্রিয়া প্রকাশের বিরুদ্ধে সুপ্রিম কোর্টে অভিযোগ করেছে দুই তরুণ। গানটিতে রাসুলুল্লাহর শানে অবমাননাকর শব্দ ব্যবহার করা হয়েছে অভিযোগ এনে ছবিটি থেকে গানটি সরিয়ে ফেলারও আবেদন করেন তারা।

গতমাসে ‘অরু আদার লাভ’ ছবির একটি গানে প্রিয়া প্রকাশের চোখ টিপ মারার ভিডিও বিশ্বজুড়ে ভাইরাল হয়ে পড়ে। নবী মুহাম্মদ (সা.) ও তার স্ত্রী রচিত খাদিজা (রা.) কে নিয়ে রচিত গানটিতে এমন দৃশ্য ব্যবহার নিয়ে ইসলামকে অবমাননারা করা হয়েছে সমালোচনা উঠেছিল। এবার সুপ্রিম কোর্টে ছবিটি থেকে গানটি সরিয়ে ফেলার জন্য আবেদন করা হলো। অভিযোগকারী দুই তরুণ হায়দারাবদের ‘বার এন্ড বাঞ্চ’ সংগঠনের সঙ্গেও জড়িত।

আরও পড়ুন  ইলিশের বিবর্তন ঘটছে: জন্ম পরিচয় আর স্বাদ কি ঘুচে যাবে?

গত ফেব্রুয়ারিতেও একবার ‘অরু আদার লাভ’ নামক সিনেমার জনপ্রিয় গান ‘মানিক্য মালারায়া পুভি’ -তে মুসলমান সম্পদায়ের ধর্মীয় অনুভূতিতে আঘাত করা হয়েছে বলে দাবি করা হয়েছিল। মালায়ালম অভিনেত্রী প্রিয়া ও সিনেমার পরিচালক ওমার লুলুর বিরুদ্ধে এই অভিযোগ করেছিল মুসলমানদের একটি স্থানীয় সংগঠন। এই মর্মে পুলিশের কাছে অভিযোগও দায়ের করেছে সংগঠনটি।

অভিযোগকারী সংগঠনটির নাম জনগণ সমিতি। এই সমিতির সদস্যদের একটি দল জিনসি থানায় লিখিত অভিযোগটি দায়ের করে। এ বিষয়ে সমিতির সভাপতি মহসীন আহমেদের বক্তব্য, “মুসলমান সম্প্রদায়ের ধর্মীয় অনুভূতিতে আঘাত করার উদ্দেশ্যে এটি একটি ইচ্ছাকৃত প্রচেষ্টা। অভিনেত্রী প্রিয়া প্রকাশ ভারিয়ার, পরিচালক ওমার লুলু ও সিনেমার প্রযোজকদের বিরুদ্ধে ভারতীয় দণ্ডবিধির ২৯৫ ধারায় মামলা দায়ের করার দাবি করছি আমরা।”

আরও পড়ুন  'হিন্দু বাড়ি লুট করতেই ধর্মের দোহাই দিয়ে আক্রমণ'

এ বিষয়ে জানতে চাওয়া হলে জিনসি থানার পুলিশ ইন্সপেক্টর ফাহিম হাসমি অভিযোগটি পাওয়ার কথা স্বীকার করে নিয়েছেন। তিনি বলেছেন, “নির্দিষ্ট কোন একটি সম্প্রদায়ের ধর্মীয় অনুভূতিতে আঘাত লেগেছে, এই বিষয়ে আমরা একটি লিখিত অভিযোগ পেয়েছি। আমরা অভিযোগটিকে সিনিয়র অফিসারদের নজরে নিয়ে আসব এবং তাদের নির্দেশ অনুযায়ী পদক্ষেপ নেব।”

এর আগেও হায়দ্রাবাদ পুলিশের কাছে পরিচালক ওমার লুলুর বিরুদ্ধে একই কারনে একটি এফআইআর করা হয়েছে। সেন্ট্রাল বোর্ড অফ ফিল্ম সার্টিফিকেশন (সিবিএফসি)-এ একটি চিঠি পাঠিয়ে গানটির ভিডিও নিষিদ্ধ করার আবেদন জানায় মুম্বাইয়ের রাজা অ্যাকাডেমি। সেই চিঠিতে বলা হয়েছে, দেশে শান্তি বজায় রাখতে হলে অবিলম্বে এই গানটি নিষিদ্ধ করতে হবে।

সেই সাথে কয়েকটি উগ্র ধর্মীয় সংগঠনও গানটির বিরুদ্ধে কট্টর অবস্থান জানিয়েছে। তারা শীঘ্রই ইউটিউব থেকে গানটি সরানো এবং সঙ্গীত শিল্পী ও অভিনেত্রীকে প্রকাশ্যে ক্ষমা চাওয়ার জন্য চাপ প্রয়োগ করেছে। মুসলমানদেরকে চলচ্চিত্রটি বয়কট করার ফতোয়াও দিয়েছে একটি সংগঠন।

আরও পড়ুন  শাহরুখের বিরুদ্ধে ঠেলাগাড়িঅলার এফআইআর!
Spread the love
  • 42
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
    42
    Shares

এই ওয়েবসাইটের যাবতীয় লেখার বিষয়বস্তু, মতামত কিংবা মন্তব্য– লেখকের একান্তই নিজস্ব। somoyekhon.com-এর সম্পাদকীয় নীতির সঙ্গে এর মিল আছে, এমন সিদ্ধান্তে আসার কোনো যৌক্তিকতাই নেই। লেখকের মতামত, বক্তব্যের বিষয়বস্তু বা এর যথার্থতা নিয়ে somoyekhon.com আইনগত বা অন্য কোনো ধরনের কোনো প্রকার দায় বহন করে না।