নামাজে মা, কৌশলে সহকারীকে সরিয়ে প্রতিবন্ধী তরুণীকে ধর্ষণ করল চিকিৎসক

0

সময় এখন ডেস্ক:

রাজধানীর মালিবাগের একটি বেসরকারি চিকিৎসা কেন্দ্রে এক প্রতিবন্ধী তরুণীকে ধর্ষণের অভিযোগ উঠছে ডাঃ মাহফুজুর রহমান নামের এক থেরাপিস্ট চিকিৎসকের বিরুদ্ধে। এ ঘটনায় রমনা থানায় মামলা করেছেন ওই তরুণীর বাবা। বর্তমানে ঐ চিকিৎসক রহমান পলাতক।

মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা রমনা থানার এএসআই মফিজুর রহমান জানান, পুলিশ আসামি ডাঃ মাহফুজুর রহমানকে খুঁজছে। ঘটনার পর থেকে তিনি পলাতক। আটক করা হয়েছে তার সহকারী রাবেয়াকে। ধর্ষণের শিকার ওই তরুণীর বাবা এ বিষয়ে অভিযোগ করলে আমরা সঙ্গে সঙ্গেই মামলা নেই।

এএসআই মফিজুর রহমান প্রতিবেদককে আরও বলেন, অভিযুক্ত চিকিৎসকের বাসা মগবাজারের মধুবাগ এলাকায়। তিনি বর্তমানে পলাতক রয়েছেন। গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে।

জানা যায়, গতকাল বৃহস্পতিবার রাজধানীর মালিবাগের ‘পেইন সলিউশন অ্যান্ড ফিজিও থেরাপি সেন্টার’ -এ থেরাপি নিতে মায়ের সঙ্গে যান ওই তরুণী। তার বয়স ১৭ বছর। আর সেখাইনে ডাঃ মাহফুজুর রহমান তরুণীকে ধর্ষণ করেন। তরুণীর বাবা বাদী হয়ে রমনা থানায় ঘটনার রাতেই মামলা করেন, মামলা নং ২৭।

আরও পড়ুন  মাদ্রাসা ছাত্রীকে মুখ বেঁধে রাস্তা থেকে তুলে নিয়ে ধর্ষণ‍!

পুলিশ কর্মকর্তা জানান, মালিবাগ চৌধুরী পাড়ায় ৮/এ বাড়িতে ওই থেরাপি সেন্টার চিকিৎসা দেয়। প্রতিবন্ধী মেয়েকে থেরাপির জন্য গত ১০ দিন ধরেই মাহফুজুর রহমানের কাছে আনা নেওয়া করছিলেন তার মা। প্রতিদিন বিকাল ৫টা থেকে রাত ৮টা পর্যন্ত তাকে থেরাপি দেওয়া হয়। গতকাল বৃহস্পতিবার বিকালে যথারীতি থেরাপি নিতে মায়ের সঙ্গে আসেন ওই তরুণী।

আযান দিলে মাগরিবের নামাজ পড়তে যান মা। এ সময় ডাক্তার মাহফুজ কৌশলে তার সহকারী রাবেয়া বেগমকে থেরাপির কক্ষ থেকে বাইরে সরিয়ে দেন। আর সেই সুযোগে মেয়েটিকে ধর্ষণ করেন। এরপর মাহফুজ থেরাপি সেন্টার থেকে পালিয়ে যান।

এদিকে প্রতিবন্ধী মেয়েটির বাবা বলেন, ঘটনার সঙ্গে সঙ্গে আমি থানায় অভিযোগ করেছি। মামলাও নিয়েছে পুলিশ। এ মুহূর্তে ডাঃ মাহফুজ পলাতক। কিন্তু আমাকে দূর থেকে বিভিন্নভাবে মামলা তুলে নিতে ভয়ভীতি দেখাচ্ছে। আমি মামলা তুলে নেব না। আমার অসুস্থ মেয়ের প্রতি এমন অবিচারের বিচার চাই।

আরও পড়ুন  পাঠাও চালকের ধর্ষণ ঠেকানোর গল্প
Spread the love
  • 9
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
    9
    Shares

এই ওয়েবসাইটের যাবতীয় লেখার বিষয়বস্তু, মতামত কিংবা মন্তব্য– লেখকের একান্তই নিজস্ব। somoyekhon.com-এর সম্পাদকীয় নীতির সঙ্গে এর মিল আছে, এমন সিদ্ধান্তে আসার কোনো যৌক্তিকতাই নেই। লেখকের মতামত, বক্তব্যের বিষয়বস্তু বা এর যথার্থতা নিয়ে somoyekhon.com আইনগত বা অন্য কোনো ধরনের কোনো প্রকার দায় বহন করে না।