প্রতিমা ভাঙচুর: হাতেনাতে এক ‘দুর্বৃত্ত’ আটক

0

সিরাজগঞ্জ সংবাদদাতা:

সিরাজগঞ্জের এনায়েতপুরে কালী মন্দিরের প্রতিমা ভাঙচুর করার সময় আল আমিন হোসেন (২৩) নামের এক যুবককে হাতেনাতে আটক করে পুলিশে সোপর্দ করেছে স্থানীয়রা। শনিবার ভোরে থানার খুকনী সার্বজনীন কালি মন্দিরে এ ঘটনা ঘটে। আটক যুবক সোনাতলা গ্রামের প্রবাসী মুজাম্মেল হোসেনের ছেলে।

এনায়েতপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা রাশেদুল ইসলাম বিশ্বাস জানান, শনিবার ভোরের দিকে খুকনী সার্বজনীন কালি মন্দিরের মহাদেবের প্রতিমা ভেঙে ফেলে আল আমিন। ভাঙচুরের সময় স্থানীয় কালী মন্দির এলাকার সনাতন ধর্মাবলম্বীরা টের পেয়ে আল আমিনকে হাতে নাতে আটক করে থানা পুলিশের হাতে সোর্পদ করে। পরে বিকেলে কোর্টের মাধ্যমে তাকে জেল হাজতে প্রেরণ করা হয়েছে।

উল্লেখ্য, বাংলাদেশে গত ১ জানুয়ারি – ৩১ ডিসেম্বর, ২০১৭ তারিখ পর্যন্ত হিন্দু সম্প্রদায়ের কমপক্ষে ১০৭ জন মানুষ সাম্প্রদায়িক হত্যাকাণ্ডের শিকার এবং ৩১ জন গুম হয়েছে বলে একটি প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে বাংলাদেশ হিন্দু মহাজোট (বিজেএইচএম)। এক সাংবাদিক সম্মেলনে এই চাঞ্চল্যকর দাবি করা হয়।

জাতীয় প্রেসক্লাবে এক সংবাদ সম্মেলনে “হিন্দু সম্প্রদায়ের উপর নির্যাতন ১ জানুয়ারি – ৩১ ডিসেম্বর ২০১৭” শিরোনামের একটি প্রতিবেদন প্রকাশ করেন বিজেএইচএমের সাধারণ সম্পাদক পলাশ কান্তি দে। প্রতিবেদন অনুযায়ী, ৭৮২ জন হিন্দুকে দেশত্যাগ করতে বাধ্য হয় বা ছেড়ে চলে যাওয়ার জন্য হুমকি দেওয়া হয়েছে। ২৩ জনকে অন্য ধর্মে রূপান্তরে বাধ্য করা হয়। তিনি আরো জানান, কমপক্ষে ২৫ জন হিন্দু নারী ও শিশু ধর্ষিত হয়, ২৩৫টি মন্দির ও প্রতিমা ভাঙচুর করা হয়।

পলাশ কান্তি দে দাবি করেন যে, প্রশাসনের অবহেলা এবং ক্ষমতাশীলদেরকে রাষ্ট্রীয় মদদই এই অত্যাচারের প্রধান কারণ, যার ফলে দেশের হিন্দু সম্প্রদায়ের নিরাপত্তা হুমকির মুখে পড়েছে। নির্বাচনের সময় বিশ্বের অন্য কোন দেশে জাতিগত সংখ্যালঘুদের উপর এতো অত্যাচার হয় না, যতোটা এই দেশে হয়। আসন্ন জাতীয় নির্বাচনে হিন্দুদের ওপর আরও হানাহানি এবং হুমকির আশঙ্কা প্রকাশ করেন তিনি। এ ব্যাপারে সরকার যদি যথাযথ পদক্ষেপ গ্রহণ করে, তবে হিন্দুদের ওপর নির্যাতন বন্ধ করা কঠিন কিছু হবে না।

Spread the love
  • 340
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
    340
    Shares

এই ওয়েবসাইটের যাবতীয় লেখার বিষয়বস্তু, মতামত কিংবা মন্তব্য– লেখকের একান্তই নিজস্ব। somoyekhon.com-এর সম্পাদকীয় নীতির সঙ্গে এর মিল আছে, এমন সিদ্ধান্তে আসার কোনো যৌক্তিকতাই নেই। লেখকের মতামত, বক্তব্যের বিষয়বস্তু বা এর যথার্থতা নিয়ে somoyekhon.com আইনগত বা অন্য কোনো ধরনের কোনো প্রকার দায় বহন করে না।