আমাদের ‘অভাব’ আসলে ঠিক কোন জায়গায়?

0

।। অধ্যাপক ডাঃ নোমান খালেদ চৌধুরী ।।

একটি মেডিকেল কলেজের নিউরোসার্জারি বিভাগ, যেখানে এমএস কোর্স চালু আছে, যেখানে একটি বিশাল ওয়ার্ড আছে, প্রতিদিন যেখানে গড়ে ৫০ জন রোগী চিকিৎসার জন্য ভর্তি হয় এবং প্রতিদিন গড়ে ১৫০-২০০ জন রোগী ভর্তি থাকে, যে মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের ক্যাচম্যান্ট এরিয়া ১০টি জেলা এবং ৪ থেকে সাড়ে ৪ কোটি মানুষ, সেই মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের নিউরোসার্জারি বিভাগ কেমন হওয়া উচিত?

এই হাসপাতালের নিউরোসার্জারি বিভাগের জন্য একটি মাত্র অপারেশন কক্ষ এবং এই বিভাগের রোগীদের ব্রেইন ও স্পাইনাল অপারেশনের জন্য আধুনিক কোন যন্ত্রপাতিই নাই!

জ্বি, অবাক হবেন না, সত্যিই নাই। নাই আধুনিক ওটি টেবিল। নাই কোন উন্নতমানের অপারেটিং মাইক্রোস্কোপ। নাই মস্তিষ্কের খুলির হাড় কাটার জন্য উন্নততর ক্রেনিয়োটোম, নিউরো এন্ডোস্কোপ, আধুনিক নিউমেটিক ড্রিল মেশিন তো দুরের কথা। এখানে রোগীর মাথায় অপারেশন এর জন্য মাথার খুলির হাড় কাটা হয় কাঠ কাটা ও কাঠ ছিদ্র করার প্রাগৈতিহাসিক যুগের যন্ত্রের মত দেখতে একটি যন্ত্র দিয়ে, যার নাম হাডসন ব্রেস (Hudson Brace)। এই হাডসন ব্রেস দিয়ে প্রাগৈতিহাসিক পদ্ধতিতে মাথার খুলির হাড় ছিদ্র করে ধারালো তার (Gigli Saw) সেই ছিদ্রপথ দিয়া প্রবেশ করিয়ে মাথার খুলির হাড় কাটা হয়, যা একবিংশ শতাব্দীতে বিরল ও অকল্পনীয় ও বটে!

আরও পড়ুন  ফাঁকিবাজ ডাক্তার-নার্স ধরতে ছদ্মবেশে ৭৫ কর্মকর্তা তৎপর!


ছবি: গিগলি স’

পুরো বিষয়টি গল্প নয়, বরং চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের নিউরোসার্জারি বিভাগের প্রকৃত উপস্থাপনা মাত্র। অথচ অতীব প্রয়োজনীয় উল্লেখিত আধুনিক যন্ত্রপাতিগুলো কিনতে ৩/৪ কোটি টাকার বেশী লাগার কথা নয়।

আমরা কি এতই দরিদ্র, যে কারনে এগুলোর ব্যবস্থা আজও হয় নাই!!

এত কিছুর পরও আমি গর্বিত, চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজের নিউরোসার্জারি ডিপার্টমেন্টে কর্মরত শিক্ষক, নিউরোসার্জন, চিকিৎসক, সেবিকা ও স্টাফদের নিয়ে। যারা এত সীমাবদ্ধতা সত্ত্বেও এতদিন পর্যন্ত অসাধারণ পরিশ্রম করে মানুষের সেবা দিয়ে যাচ্ছেন। যা কোন প্রশংসা বাক্য দিয়ে প্রকাশ করা যায় না।

পরিচিতি: বিভাগীয় প্রধান, নিউরোসার্জারি বিভাগ, চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল

Spread the love
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

এই ওয়েবসাইটের যাবতীয় লেখার বিষয়বস্তু, মতামত কিংবা মন্তব্য– লেখকের একান্তই নিজস্ব। somoyekhon.com-এর সম্পাদকীয় নীতির সঙ্গে এর মিল আছে, এমন সিদ্ধান্তে আসার কোনো যৌক্তিকতাই নেই। লেখকের মতামত, বক্তব্যের বিষয়বস্তু বা এর যথার্থতা নিয়ে somoyekhon.com আইনগত বা অন্য কোনো ধরনের কোনো প্রকার দায় বহন করে না।