নূহ নবী মোবাইল ফোন ও পারমাণবিক শক্তির ব্যবহার জানতেন: তুর্কি ইসলামিক স্কলার (ভিডিও)

0

আন্তর্জাতিক ডেস্ক:

ইসলাম ধর্মের অনুসারীরা বহু শতাব্দী ধরেই কোরানকে পৃথিবীর প্রযুক্তি এবং উদ্ভাবনের মূল সূত্র হিসেবে বিশ্বাস করেন। ইসলাম ধর্ম অনুসারে আল্লাহ এ পর্যন্ত যত নবী রাসূল পাঠিয়েছেন পৃথিবীতে সবাই অলৌকিক ক্ষমতার অধিকারী ছিলেন। তাদের অসাধ্য কিছুই ছিল না। যখন যা চেয়েছেন, আল্লাহ তাদেরকে তা-ই দিয়েছেন।

যেমন, প্রাকৃতিক দূর্যোগের পূর্বাভাস নবী নূহ (আঃ) বহু যুগ আগেই পেয়ে গেছিলেন। এবং সেই মোতাবেক তিনি ব্যবস্থা নিয়ে রেখেছিলেন। যা ইহুদি ও খ্রিস্টানদের ধর্মগ্রন্থের পাশাপাশি মুসলমানদের ধর্মগ্রন্থেও কোরানেও আছে।

এবার তুরস্কের এক ইসলামিক স্কলার এবং অধ্যাপক ইসলাম ধর্মের নবী হযরত নূহ (আঃ) এর মোবাইল ফোন ব্যবহার করা প্রসঙ্গে এক চাঞ্চল্যকর তথ্য দিয়েছেন। তিনি দাবি করেছেন, নবী নূহ (আঃ) মোবাইল ফোন ব্যবহার করতেন। নূহ নবীর সময়ে যখন ভয়াবহ বন্যা হয়, তখন তিনি তার ছেলের সঙ্গে তাৎক্ষণিকভাবে মোবাইল ফোনে কথা বলেছিলেন এবং এ ব্যাপারে পবিত্র কোরান ও বাইবেলের ওল্ড টেস্টামেন্টে বর্ণনা আছে বলে দাবি করেছেন ওই ইসলামিক স্কলার অধ্যাপক।


ছবি: শিল্পীর তুলিতে আঁকা নূহ নবীর সেই জাহাজ

ইয়াবুজ অর্নেক নামের ওই অধ্যাপকের বরাত দিয়ে দেশটির হুররিয়াত ডেইলি এ ব্যাপারে প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে বলে জানিয়েছে সংযুক্ত আরব আমিরাতভিত্তিক গণমাধ্যম আল আরাবিয়া। ইয়াবুজ অর্নেক গত শনিবার তুরস্কের রাষ্ট্রীয় টেলিভিশন টিআরটি-তে এক অনুষ্ঠানে এ দাবি করেন। তিনি ইস্তাম্বুল ইউনিভার্সিটির মেরিন সাইন্স ফ্যাকাল্টির শিক্ষক।

ওই অধ্যাপক বলেন, ‘যখন ৩শ থেকে ৪শ ফুট উঁচু ঢেউ উঠছিল তখন নূহ (আঃ) এর ছেলে অনেক দূরে অবস্থান করছিলেন। কোরানে বলা হয়েছে, নূহ (আঃ) তার ছেলের সঙ্গে কথা বলেছেন। কিন্তু তারা কীভাবে যোগাযোগ করতে সমর্থ হলেন? এটা কি কোনো অলৌকিক ঘটনা? তা কি সম্ভব? তবে আমরা বিশ্বাস করি, তিনি [নূহ (আঃ)] মোবাইল ফোনের মাধ্যমে তার ছেলের সঙ্গে কথা বলেছেন।’

তিনি আরো দাবি করেন, নূহ নবী নিজেই স্টিলের প্লেট দিয়ে জাহাজ নির্মাণ করেন, তার মানে তিনি পারমাণবিক শক্তির ব্যবহার জানতেন। অর্নেক বলেন, ‘আমি একজন বিজ্ঞানী এবং আমি বিজ্ঞানের কথা বলছি।’

Spread the love
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

এই ওয়েবসাইটের যাবতীয় লেখার বিষয়বস্তু, মতামত কিংবা মন্তব্য– লেখকের একান্তই নিজস্ব। somoyekhon.com-এর সম্পাদকীয় নীতির সঙ্গে এর মিল আছে, এমন সিদ্ধান্তে আসার কোনো যৌক্তিকতাই নেই। লেখকের মতামত, বক্তব্যের বিষয়বস্তু বা এর যথার্থতা নিয়ে somoyekhon.com আইনগত বা অন্য কোনো ধরনের কোনো প্রকার দায় বহন করে না।