ইন্টারপোল খুঁজে পায়না, কিন্তু বুক ফুলিয়ে হাঁটছে রাজাকার মঈনুদ্দীন!

0

১৯৭১ সালে মুক্তিযুদ্ধে বাংলাদেশে মানবতাবিরোধী অপরাধ সংঘটনের দায়ে মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত সাবেক আলবদর কমান্ডার চৌধুরী মইনুদ্দিন বর্তমানে উত্তর লন্ডনে বসবাস করছে বলে দাবি করেছে ব্রিটিশ সংবাদমাধ্যম দ্য সান। পত্রিকাটির এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, ইন্টারপোলের ২৫ জন মোস্ট ওয়ান্টেড ব্রিটিশ মুসলিম নেতার তালিকায় রয়েছে তার নাম। তাকে ইন্টারপোল খুঁজে না পেলেও দ্য সান খুব সহজেই শনাক্ত করতে পেরেছে। ৬৯ বছর বয়সী চৌধুরী মইনুদ্দিনের কয়েকটি ছবি প্রকাশ করে পত্রিকাটি বলছে, সে যে বাড়িটিতে বসবাস করছে, তার মূল্য প্রায় ১০ লাখ পাউন্ড।

১৯৭১ সালে আলবদর বাহিনীর নেতৃত্ব দেওয়া এবং তার নেতৃত্বে ১৮ জন বুদ্ধিজীবিকে হত্যার অভিযোগে ২০১৩ সালে চৌধুরী মঈনুদ্দীনের অনুপস্থিতিতেই তার বিচার হয়। বাংলাদেশের আন্তর্জাতিক অপরাধ আদালত তাকে দোষী সাব্যস্ত করে। তবে ব্রিটেনের ন্যাশনাল হেলথ সার্ভিসের (এনএইচএস) সাবেক পরিচালক মঈনুদ্দিন ওই রায়কে ‘ত্রুটিপূর্ণ’ বলে দাবি করে। তার আইনজীবীও এই রায়কে ‘শো ট্রায়াল’ বলে উল্লেখ করে।

পুলিশের আন্তর্জাতিক সংস্থা ইন্টারপোলের ‘মোস্ট ওয়ান্টেড ব্রিটিশ ফিউজিটিভ’-এর তালিকায় রয়েছে মঈনুদ্দীনের নাম। বাংলাদেশ সরকারের অনুরোধেই মঈনুদ্দীনের বিরুদ্ধে রেড নোটিশ জারি করে ইন্টারপোল। আন্তর্জাতিক এই সংস্থাটির মোস্ট ওয়ান্টেড তালিকায় নাম থাকা ২৫ জনের প্রত্যেকেই ‘পলাতক’ রয়েছে। তবে ২৬ ডিসেম্বর দ্য সানের প্রতিবেদনে বলা হয়, মঈনুদ্দীন দিব্যি ঘুরে বেড়াচ্ছে লন্ডনে। সে শপিং করে, মসজিদেও যায়। তার স্বাভাবিক চলাফেরার কিছু মুহূর্তকে ক্যামেরাবন্দিও করেছে পত্রিকাটির সাংবাদিকরা। এ বিষয়ে মঈনুদ্দীনের এক প্রতিবেশী বলেন, ‘হয়তো ইন্টারপোল খুব ভালোভাবে তাকে খুঁজছে না।’

দ্য সান জানায়, মঈনুদ্দিন তার বাড়িতে বসেই তার বিরুদ্ধে আনীত অভিযোগকে ‘বাজে কথা’ অভিহিত করে অস্বীকার করেছে। ইন্টারপোলের রেড নোটিশের বিরুদ্ধে আপিল করেছে বলেও দাবি করেছে তিনি।

উল্লেখ্য, ১৯৭১ সালে বাংলাদেশ স্বাধীন হওয়ার পরপরই মঈনুদ্দীন ব্রিটেনে পালিয়ে যায়। ব্রিটিশ নাগরিকত্বও পায় সে। ৫৭ বছর বয়সী স্ত্রী ফরিদা ও চার সন্তান নিয়ে উত্তর লন্ডনে বসবাস করছে সে। তাকে গ্রেফতারে স্কটল্যান্ড ইয়ার্ডের সহায়তাও চেয়েছে বাংলাদেশ।

Spread the love
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

এই ওয়েবসাইটের যাবতীয় লেখার বিষয়বস্তু, মতামত কিংবা মন্তব্য– লেখকের একান্তই নিজস্ব। somoyekhon.com-এর সম্পাদকীয় নীতির সঙ্গে এর মিল আছে, এমন সিদ্ধান্তে আসার কোনো যৌক্তিকতাই নেই। লেখকের মতামত, বক্তব্যের বিষয়বস্তু বা এর যথার্থতা নিয়ে somoyekhon.com আইনগত বা অন্য কোনো ধরনের কোনো প্রকার দায় বহন করে না।