নগ্ন অবস্থায় মসজিদ কমিটির সভাপতি বিধবার বিছানা থেকে আটক!

0

কুমিল্লা প্রতিনিধি:

কুমিল্লা সদর উপজেলার ১ নং কালীর বাজার ইউনিয়ন এ অবস্থিত কমলাপুর বালিকা উচ্চ বিদ্যালয় এবং বাজার মসজিদ কমিটির সভাপতি, সাবেক ইউনিয়ন জাপা সেক্রেটারি মফিজুল (৫০) এক বিধবা নারীর সাথে অনৈতিক কার্যকলাপের সময় হাতেনাতে ধরা খেয়েছেন। ঘটনাসূত্রে জানা গেছে, শনিবার, রাত ৯টার সময় উপজেলার দৈয়ারা (দক্ষিণ সৈয়দপুর) এলাকায় এক বিধবা নারীর সাথে শয়নকক্ষে অনৈতিক কার্যকলাপের সময় নগ্ন অবস্থায় তাকে হাতেনাতে আটক করা হয়।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, মফিজুল সমাজ সেবকের মুখোশের আড়ালে গ্রামের নিরীহ, বিধবাসহ সুবিধা বঞ্চিত নারীদের বিশেষ সুবিধা দেওয়ার কথা বলে দীর্ঘদিন ধরে এইসব কর্মকাণ্ড চালিয়ে যাচ্ছে। গতকাল নগ্ন অবস্থায় গ্রামবাসী তাকে এক বিধবা নারীসহ আটক করে।

স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, বহুদিন ধরেই এমন নানা অনৈতিক সম্পর্ক এবং বিতর্কিত নানা কার্যকলাপে যুক্ত মফিজুল। দরিদ্র নারী ও গরীব মেয়েদের ইজ্জত নষ্ট করেছে সে। লোক লজ্জার ভয়ে কেউই সাহস করে অভিযোগ করেনি এতদিন। কিন্তু এসব ঘটনা স্থানীয়রা অনেকদিন ধরেই পর্যবেক্ষণ করছিলেন। শুধুমাত্র হাতে নাতে ধরার অপেক্ষায় ছিলেন তারা। মফিজুল টাকা আর ক্ষমতার জোরে প্রতিনিয়ত এসব কাজ করে যাচ্ছিলো। একসময় জাতীয় পার্টির ইউনিয়ন সাধারণ সম্পাদক থাকলেও দলের বেহাল দশা দেখা দিলে যোগ দেন ক্ষমতাসীন দল আওয়ামী লীগে। কিন্তু আওয়ামী লীগের স্থানীয় নেতা কর্মীরা তাকে এসব বদ স্বভাবের কারনে সাদরে গ্রহণ করেননি। এমনকি দলীয় সভা ও কার্যক্রমেও মফিজুল অনুপস্থিত থাকতো।

আরও পড়ুন  কনস্টেবলকে কাজে পাঠিয়ে স্ত্রীর সাথে বিছানায় ধরা পড়লো ইন্সপেক্টর!

স্থানীয়রা অভিযোগ করেন, এলাকার জনপ্রতিনিধিসহ বড় বড় নেতাদের সাথে ভাব জমিয়ে হয়ে যান কমলাপুর সরকারি হাইস্কুল ও মসজিদ কমিটির সভাপতি। এমন একজন চরিত্রহীন লোকের মসজিদ কমিটি ও স্কুলের মতো প্রতিষ্ঠানের বড় পদে থাকা কারো পছন্দ না হলেও ভয়ে মুখ খোলে না কেউ। তবে এলাকাবাসী বহুদিন থেকেই অপেক্ষা করছিল হাতেনাতে প্রমাণসহ ধরার। হলও তাই! দৈয়ারা গ্রামের মৃত ছায়েদ আলী মেম্বার বাড়ির বিধবা এক নারীর সাথে শয়ন কক্ষে অবৈধ দৈহিক মিলনের সময় গ্রামবাসী আটক করে তাকে।

প্রথমে উপস্থিত লোকজনকে ম্যানেজ করার নানা চেষ্টা করে ব্যর্থ হয় সে। ঘটনা জানাজানি হলে লোকজন বাড়তে থাকে। মুহূর্তেই খবর ছড়িয়ে পরে চারিদিকে। খবর পৌঁছে যায় স্থানীয় চেয়ারম্যান হাজী সেকান্দর আলীসহ আরও গণ্যমান্য ব্যক্তিদের কাছে। তবে স্থানীয় চেয়ারম্যান সেকান্দর আলী জানান, বিষয়টি তিনি জানেন না।

আরও পড়ুন  কেসিসি নির্বাচন: ২'শ কেন্দ্রে ৫০ হাজার ভোটে এগিয়ে আব্দুল খালেক
Spread the love
  • 256
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
    256
    Shares

এই ওয়েবসাইটের যাবতীয় লেখার বিষয়বস্তু, মতামত কিংবা মন্তব্য– লেখকের একান্তই নিজস্ব। somoyekhon.com-এর সম্পাদকীয় নীতির সঙ্গে এর মিল আছে, এমন সিদ্ধান্তে আসার কোনো যৌক্তিকতাই নেই। লেখকের মতামত, বক্তব্যের বিষয়বস্তু বা এর যথার্থতা নিয়ে somoyekhon.com আইনগত বা অন্য কোনো ধরনের কোনো প্রকার দায় বহন করে না।