এমপি বাবুর জিহ্বা কেটে নেয়ার হুমকি দিলেন হেফাজত নেতা!

0

নারায়ণগঞ্জ-২ (আড়াইহাজার) আসনের সংসদ সদস্য নজরুল ইসলাম বাবুকে আলেম ওলামাদের নিয়ে কটূক্তি করতে নিষেধ করেছেন হেফাজতে ইসলামীর নারায়ণগঞ্জ মহানগরীর সাধারণ সম্পাদক মাওলানা ফেরদৌসুর রহমান। তিনি এমপি বাবুকে হুঁশিয়ারি দিয়ে বলেন, ‘এ দেশ আলেম ওলামাদের দেশ। আলেম সমাজ মাঠে নামলে আপনি পালাবার সুযোগ পাবেন না। আপনি আলেমদের সমালোচনা যদি না থামান, আপনার জিহ্বা কেটে নেয়া হবে।’

শুক্রবার (১৫ ডিসেম্বর) নগরীর ডিআইটি বাণিজ্যিক এলাকায় রেলওয়ে জামে মসজিদে জুমার নামাজ শেষে মুসলমানদের কেবলা বায়তুল মোকাদ্দাস জেরুজালেমকে ইসরাইলের রাজধানী ঘোষণার প্রতিবাদে আয়োজিত বিক্ষোভ সমাবেশে তিনি এই হুঁশিয়ারি দেন। মাওলানা ফেরদৌসুর রহমান বলেন, ‘আড়াইহাজারে যত ওয়াজ মাহফিল হয় সেখানে আওয়ামী লীগ দলীয় সংসদ সদস্য নজরুল ইসলাম বাবু প্রতিটি ওয়াজ মাহফিলে জোর করে(!) প্রধান অতিথি থাকেন। আর ওয়াজ মাহফিলে আগত বক্তাদের অপমানিত করেন।’

মাওলানা ফেরদৌসুর রহমান আরও বলেন, ‘সম্প্রতি সাংসদ বাবু আল্লামা খুরশেদ আলম কাশেমি এবং হাবিবুর রহমান মিছবাহ’র সঙ্গে বাকবিতণ্ডার ঘটনা ঘটেছে। সাংসদ বাবু আলেমদের দেখে নেওয়ার হুমকি দিয়েছেন। এই ঘটনায় আমরা আলেম সমাজ নিন্দা ও প্রতিবাদ জানাই।’

এ প্রসঙ্গে সাংসদ নজরুল ইসলাম বাবু বলেন, ‘যারা আমার সম্পর্কে না জেনে, না বুঝে কথা বলে তাদের বক্তব্যের জবাবে বক্তব্য দেওয়ার রুচি মনমানসিকতা নেই। আমার বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র করা হচ্ছে।’


ছবি: হেফাজত নেতা মুফতি হাবিবুর রহমান মিছবাহ

উল্লেখ্য, গত বৃহস্পতিবার (৭ ডিসেম্বর) রাতে আড়াইহাজার পৌরসভার ৯ নম্বর ওয়ার্ডের তুরকিনী এলাকায় স্থানীয় যুবসমাজ আয়োজিত ওয়াজ মাহফিলে বক্তব্য দেওয়াকে কেন্দ্র করে মুফতি হাবিবুর রহমান মিছবাহ’র সঙ্গে সাংসদ নজরুল ইসলাম বাবুর বাকবিতণ্ডার ঘটনা ঘটে। সম্মেলনে স্থানীয় এমপি নজরুল ইসলাম বাবুকে প্রধান অতিথি হিসেবে রাখা হয়। প্রধান ওয়ায়েজ হিসেবে বয়ান করছিলেন হাবিবুর রহমান। এমপিকে দেখে হেফাজতপন্থী কিছু স্থানীয় নেতা তীব্র বিষোদ্গার করতে থাকেন। এর প্রেক্ষিতে এমপি বাবু বিরক্ত হন। তারপর তিনি এই অনুষ্ঠানে ইসলামের মৌলিক বিষয় (ঈমান, নামাজ, রোজা, হজ যাকাত) এর বাইরে ধর্মীয় বিদ্বেষমূলক বিষয়, জিহাদ, রাজনীতি ইত্যাদি নিয়ে আলোচনা না করার জন্য মুফতি হাবিবুর রহমান মিছবাহকে অনুরোধ করেন। এটি এমপি বাবু তার এলকায় আয়োজিত ধর্মীয় সম্মেলনগুলোতে বলে থাকেন সব সময়। আর এতেই হাবিবুর রহমান ও অন্যান্য হেফাজত নেতারা বিষয়টিকে অনধিকার চর্চা এবং আলেমদের প্রতি অপমান বলে রঙ চড়িয়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছড়িয়ে দেন।

Spread the love
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

এই ওয়েবসাইটের যাবতীয় লেখার বিষয়বস্তু, মতামত কিংবা মন্তব্য– লেখকের একান্তই নিজস্ব। somoyekhon.com-এর সম্পাদকীয় নীতির সঙ্গে এর মিল আছে, এমন সিদ্ধান্তে আসার কোনো যৌক্তিকতাই নেই। লেখকের মতামত, বক্তব্যের বিষয়বস্তু বা এর যথার্থতা নিয়ে somoyekhon.com আইনগত বা অন্য কোনো ধরনের কোনো প্রকার দায় বহন করে না।