মুসলিম মেয়েদের ছবি পোষ্ট নিয়ে দেওবন্দের ফতোয়া!

0

ধর্মীয় আবরণ দিয়ে মুসলিম মেয়েদেরেকে বাক্সবন্দী করে ফেলার একটা সুগভীর চক্রান্ত চলছে, যা এই অঞ্চলের ইতিহাস, ঐতিহ্য এবং সংস্কৃতির পরিপন্থী। হাজার বছরের পুরনো আরবের অপ সংস্কৃতির চর্চকারী বর্বর মোল্লাতন্ত্র এদেশের নারীদের ওপর তাদের সিদ্ধান্ত চাপিয়ে দিয়ে নারী অগ্রগতিকে রুখে দিতে চায়- এমনটাই বলেছেন দীপিকা রায় নামের ভারতীয় নারী আন্দোলনের একজন সক্রিয় কর্মী।

সম্প্রতি উত্তরপ্রদেশের দারুল উলুম দেওবন্দ মুসলিম মহিলাদের সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে সেলফি পোস্ট করতে নিষেধ করেছে। সেলফি সহ নিজেদের ছবি ফেসবুক, হোয়াটসঅ্যাপে, টুইটার, ইনস্টাগ্রাম ইত্যাদিতে শেয়ার করা ইসলামি আইনের পরিপন্থী বলে এক ফতোয়ায় জানিয়েছেন দারুল ইফতার মুফতি তারিক কাজমি।

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে মুসলিম মেয়েদের ছবি, সেলফি তুলে দেওয়ার প্রবণতা অবিলম্বে বন্ধ করার ফতোয়া দিয়েছেন তিনি। দারুল ইফতার পক্ষ থেকে এই নিষেধাজ্ঞা ঘোষণা করেছেন তিনি। বলেছেন, ফেসবুক, হোয়াটসঅ্যাপে, টুইটার, ইনস্টাগ্রাম ইত্যাদিতে মুসলিম মেয়েদের নিজেদের ছবি আপলোড করা ‘অ-ইসলামিয়’ আচরণ।


ছবি: মুফতি তারিক কাজমি

জনৈক মুসলিম ব্যক্তি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে তার স্ত্রী নিজের ছবি পোস্ট করতে পারেন কিনা, দারুল ইফতার কাছে জানতে চেয়েছিলেন। জবাবে কাজমি তাঁকে বলেছেন, মুসলিম মহিলাদের ছবি তোলার অনুমতি দেয় না ইসলাম। ফেসবুক, হোয়াটসঅ্যাপে, টুইটার, ইনস্টাগ্রাম ইত্যাদিতে তাঁদের নিজেদের ছবি পোস্ট করা ইসলাম, শরিয়তের মৌলিক বিশ্বাসের পরিপন্থী। বেগানা পর পুরুষের কাছে নিজেদের মুখ দেখানোর অধিকার নেই তাদের।

দেশে মুসলিম মেয়েদের সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে নিজেদের ছবি দেওয়ার প্রবণতা দিন কে দিন বাড়ছে বলে জানিয়ে এখনই বন্ধ করতে ফতোয়া জারি করেছেন কাজমি। মুসলিম সম্প্রদায়ের সদস্যদের তিনি মেয়েদের বোরখা পরা সুনিশ্চিত করতে নির্দেশ দিয়েছেন।

উল্লেখ্য, কিছুদিন আগেও দারুল ইফতা এক ফতোয়ায় মুসলিম মহিলাদের ভ্রু প্লাক করা, ছাঁটা ও চুল কাটা চলবে না বলে জানিয়েছিল। বেগানা পর পুরুষকে আকৃষ্ট করতে লিপস্টিক লাগানো, মেক আপ করা ইসলাম অনুমোদন করে না বলে জানিয়ে মুসলিম মেয়েদের বিউটি পার্লারে যেতেও নিষেধ করে দারুল ইফতা।

Spread the love
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

এই ওয়েবসাইটের যাবতীয় লেখার বিষয়বস্তু, মতামত কিংবা মন্তব্য– লেখকের একান্তই নিজস্ব। somoyekhon.com-এর সম্পাদকীয় নীতির সঙ্গে এর মিল আছে, এমন সিদ্ধান্তে আসার কোনো যৌক্তিকতাই নেই। লেখকের মতামত, বক্তব্যের বিষয়বস্তু বা এর যথার্থতা নিয়ে somoyekhon.com আইনগত বা অন্য কোনো ধরনের কোনো প্রকার দায় বহন করে না।