নবী মোহাম্মদের চরিত্র কতোটা নিকৃষ্ট দেখুন | মুফতী মাসুদের বয়ান (ভিডিও)

0

।। আলহাজ হাফেজ মাওলানা মুফতী আব্দুল্লাহ আল মাসুদ ।।

ইসলামের নবী হযরত মুহাম্মদের চরিত্র নিয়ে মুসলমানদের যে ভ্রান্ত ধারণাগুলো রয়েছে, সেটা নিয়ে আজ আলোচনা করেছেন হাফেজ মাওলানা মুফতী আব্দুল্লাহ আল মাসুদ।

নবীর চরিত্রের যে গুণাবলী সর্বত্র পরিচিত, তার মধ্যে রয়েছে সচ্চরিত্রবান, মহান রাজনীতিবিদ, বিপ্লবী ও দয়ালু। এই বিষয়গুলো উঠে এসেছে আজকের এই ভিডিওতে।

এই ভিডিওতে মুফতী মাসুদ উদাহরণ দিয়ে দেখিয়েছেন, নবীর চরিত্র আসলেই অনুসরণীয় নয়। যেমন ৫৩ বছর বয়সে ৬ বছর বয়সী আয়েশাকে বিয়ে করার বিষয়ে। সেই সাথে পালকপুত্র জায়েদের স্ত্রী জয়নাবকে কৌশলে বিয়ে করার বিষয়ে। আয়েশাকে কেন ওই বয়সে তার বিয়ে করতে হলো? এ প্রসঙ্গে মুসলমানদের বিভিন্ন যুক্তি রয়েছে, যার কোনটিই গ্রহণযোগ্য নয়। অনেকেই বলেন, আয়েশা বুদ্ধিমান হওয়ায় নবী মুহাম্মদের জন্য তাকে আল্লাহ আগেই নির্ধারণ করে রেখেছেন। যদি সত্যি তাই হতো, তবে কেন আয়েশা আরো আগে জন্ম নিলেন না?

সেই সাথে পালকপুত্রের স্ত্রী জয়নাবকে বিয়ে করার মাধ্যমে ইসলামে পালকপুত্র সংক্রান্ত আইনকে বাতিল করা হলো- এমন কুযুক্তি নিয়ে বিশ্লেষণ করেছেন মাওলানা মাসুদ এই ভিডিওতে।

নবীর চরিত্রের চাইতে উত্তম চরিত্র ধারণ করেন নবীর উম্মতরা স্বয়ং- এভাবে বিভিন্ন প্রখর যুক্তি প্রয়োগের মাধ্যমে মুফতী মাসুদ ব্যাখ্যা দিয়েছেন এর পেছনের কারনগুলো। যেমন, বর্তমান সামাজিক অবস্থায় কোনো নবীভক্তই ৬ বছর বয়সী কাউকে বিয়ে করতে চাইবে না, বিবেকের কারনে। পরমস্নেহে পুত্রতুল্য বিবেচনা করা হয়, এমন কাউকে চাপ প্রয়োগ করে তার স্ত্রীকে তালাক করিয়ে নিজে বিয়ে করতে চাইবেন না, এমনকি দাসী সঙ্গমও সমাজে ঘৃণ্য অপরাধ হিসেবে দেখা হয়। নবী মুহাম্মদের কোনো অনুসারীই নবীর এমন গুণাগুনকে সমর্থন করে না।

নবী চরিত্রের অন্যতম গুণ- মহান রাজনীতিবিদ; এটা নিয়েও মাওলানা মাসুদ আলোকপাত করেছেন। বর্তমান রাজনীতিবিদরা (রাষ্ট্রের কর্ণধাররা) রাষ্ট্র ব্যবস্থার সমালোচনকারীকে হয়তো কোথাও প্রতিহিংসা পরায়ণ হয়ে মামলা দেয়, কিন্তু কোথাও গুপ্ত ঘাতক পাঠিয়ে নৃশংসভাবে হত্যা করে না, এমনকি এই প্রথাকে কোথাও সমর্থনও করে না কেউ। কিন্তু ইসলামের নবী এমন ঘৃণ্য কাজে অভ্যস্ত ছিলেন।

বিপ্লবী বলে অভিহিত করা হয় নবী মুহাম্মদকে, কিন্তু তিনি বর্বরতম প্রথার ব্যবস্থা করে একটি জাতিকে কতোটা বিপ্লবী চেতনায় উদ্বুদ্ধ করে গেছেন, সেটা আজ খোলা চোখে দেখলে তার কদর্য রূপটিই ধরা পড়ে।

দয়ার নবী মুহাম্মদের নৃশংসতা ও হত্যাকাণ্ডের অসংখ্য উদাহরণের মধ্যে মাত্র অল্প কয়েকটির উদাহরণ দিয়েছেন মুফতী মাসুদ। সেসব জানার পর তার ভেতরে দয়ার ছিঁটেফোঁটাও আর পাওয়া যায় না।

ভিডিওটিতে আরও বিস্তারিত জানা যাবে এই ঘটনাগুলো সম্পর্কে। মুফতী মাসুদ এই ভিডিওর আলোচনার সাথে ইসলামে স্বীকৃত তথ্য প্রমাণগুলোও দাখিল করেছেন। সেসব সবার জেনে তারপর ধর্মের অনুসরণ করার আহ্বান জানিয়েছেন। যদি তা আদৌ অনুসরণ করার মতো হয়।

দেখুন ভিডিওটি:

Spread the love
  • 1.8K
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
    1.8K
    Shares

এই ওয়েবসাইটের যাবতীয় লেখার বিষয়বস্তু, মতামত কিংবা মন্তব্য– লেখকের একান্তই নিজস্ব। somoyekhon.com-এর সম্পাদকীয় নীতির সঙ্গে এর মিল আছে, এমন সিদ্ধান্তে আসার কোনো যৌক্তিকতাই নেই। লেখকের মতামত, বক্তব্যের বিষয়বস্তু বা এর যথার্থতা নিয়ে somoyekhon.com আইনগত বা অন্য কোনো ধরনের কোনো প্রকার দায় বহন করে না।