ইসলাম ত্যাগ করলেন হাফেজ মাওলানা মুফতী আবদুল্লাহ আল মাসুদ (ভিডিও)

50

।। আলহাজ হাফেজ মাওলানা মুফতী আব্দুল্লাহ আল মাসুদ ।।

দেশজুড়ে চাঞ্চল্য সৃষ্টি করলো একটি ইউটিউব ভিডিও। ইউটিউবের ওই ভিডিওতে কথা বলতে দেখা গেছে একজন ইসলামিক ব্যক্তিত্ব, আলেমে দ্বীন হযরতুল আল্লামা আলহাজ মাওলানা মুফতী আবদুল্লাহ আল মাসুদকে। যিনি একজন হাফেজ এবং মুফতী।

তিনি প্রায় এক যুগ ঢাকা শহরের একটি মসজিদে ইমামতি করেন এবং একটি কওমী মাদ্রাসার মুহতামীম (প্রিন্সিপাল) হিসেবে দায়িত্বরত ছিলেন। অত্যন্ত কট্টর ধার্মিক পরিবারের সন্তান হওয়ার কারনে জন্মের পর থেকেই তাঁকে সেভাবেই লালন পালন করা হয়। জ্ঞান হওয়ার পর তাঁকে ইসলামী পদ্ধতিতে দীক্ষিত করা হয়।

দীর্ঘদিন থেকে তিনি ইসলাম প্রচারের সাথে জড়িত ছিলেন। কখনো নিজের তাগিদে শিখেছেন, কখনো বা অন্যকে ইসলাম শিক্ষার সুযোগ করে দিয়েছেন। তিনি এমন একজন মানুষ যিনি প্রায় তার জীবনের বড় একটি সময় পার করে দিয়েছেন ইসলামের খেদমতে। কিন্তু তিনি গত কয়েকদিন আগে ঘোষণা দিলেন যে তিনি ইসলাম ত্যাগ করেছেন।

ইসলাম ত্যাগীকে মুরতাদ বলা হয়, যার শাস্তি মৃত্যুদন্ড। বাংলাদেশে কেউ ঘোষণা দিয়ে ইসলাম ত্যাগ করলে অর্থাৎ নাস্তিক হয়ে গেলে তার কী পরিণতি হয় সেটা আমরা পূর্ব অভিজ্ঞতা থেকে জানতে পারি। তাই তিনি নিরাপত্তা ও তাঁর চিন্তা চেতনা বিকাশিত করার স্বার্থে দেশ ত্যাগ করেন।

প্রশ্ন আসে কেন এত বছর ইসলাম এর খেদমতে থেকেও তিনি ইসলাম ত্যাগ করলেন! সেই প্রশ্নের উত্তর শুনুন তাঁরই মুখ থেকে। তিনি ভিডিওটিতে বিস্তারিত ভাবে কারণ গুলো বলেছেন।

আসাদ নূর নামক এক ব্লগার তার ইউটিউব চ্যানেল থেকে মাওলানা মাসুদকে দর্শকদের সাথে সাথে পরিচয় করিয়ে দেয়া হয়। মাওলানা সাহেব বলেন, সারা পৃথিবীব্যাপী বিশেষ করে বাংলাদেশে মানুষ যে হারে ধর্ম থেকে বেরিয়ে আসছে এতে খুব বেশি দেরী নেই যখন মানুষ গণহারে ঘোষণা দিয়ে দেশে থেকেই ধর্ম ছেড়ে দিবে।

Spread the love
  • 3.2K
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
    3.2K
    Shares

এই ওয়েবসাইটের যাবতীয় লেখার বিষয়বস্তু, মতামত কিংবা মন্তব্য– লেখকের একান্তই নিজস্ব। somoyekhon.com-এর সম্পাদকীয় নীতির সঙ্গে এর মিল আছে, এমন সিদ্ধান্তে আসার কোনো যৌক্তিকতাই নেই। লেখকের মতামত, বক্তব্যের বিষয়বস্তু বা এর যথার্থতা নিয়ে somoyekhon.com আইনগত বা অন্য কোনো ধরনের কোনো প্রকার দায় বহন করে না।